০৫:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে বন্যার অবনতি, সকল বিভাগকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীতে পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় দিন দিন অবনতি হচ্ছে। প্রতিদিন পদ্মার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। বন্য পরিস্থিতি অবনতি হওয়ায় সকল উপজেলার বিভাগকে প্রস্তুত থাকতে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। আজ রোববার দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এ সংক্রান্ত এক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খানের সভাপতিত্বে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সিদ্ধার্থ ভৌমিক, সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইব্রাহিম টিটন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল আলিম, জেলা দুর্যোগ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা সৈয়দ আরিফুল হক, গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র, বালিয়াকান্দি উপজেলার ইউএনও কাবেরী রায়, কালুখালী উপজেলার ইউএনও মহুয়া আফরোজ, প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম তালুকদার, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান, জেলা রেডক্রিসেন্ট সমিতির সেক্রেটারী আকরাম হোসেন প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা সৈয়দ আরিফুল হক জানান, গত ২৪ ঘন্টায় পদ্মা নদীর গোয়ালন্দ পয়েন্টে আরো ৯ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে পানির লেভেল ৭ দশমিক ৭৫ মিটার। অর্থাৎ বিপদসীমার মাত্র ১৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জেলায় বন্যাসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় মানবিক সহায়তা হিসেবে বিতরণের জন্য ৮ লাখ ৯০ হাজার ৫০০ টাকা এবং ৪৫০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ করা হয়। ইতিমধ্যে ৪ লাখ ৪০ হাজার ৫০০ টাকা এবং ১২ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে।

রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির জেলা শাখার সেক্রেটারী আকরাম হোসেন জানান, রাজবাড়ী সদরে ১০০ জন এবং জেলায় ৫০ জন প্রশিক্ষিত যুবক প্রস্তুত রয়েছে। এছাড়া ১০ হাজার লিটার পানি মজুদ রয়েছে। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় যে কোন সমস্যায় জেলা রেডক্রিসেন্ট প্রস্তুত রয়েছে।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মশিউর রহমান জানান, দীর্ঘদিন বৃষ্টি না হওয়ায় খামারীরা মাছ চাষ করতে পারছিলনা। বর্তমানে বন্যা হওয়ায় নিচু এলাকার পুকুর বা খামার ডুবে মাছ ভেসে না যায় এজন্য চারপাশে নেট দিয়ে ঘিরে রাখাসাহ যাবতীয় প্রস্তুতি রাখতে বলা হয়েছে।

সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইব্রাহিম টিটন বলেন, প্রত্যেক উপজেলায় একটি করে মেডিকেল টিম প্রস্তুত রাখতে বলা হয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকার মানুষজন অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাৎক্ষনিক চিকিৎসা দেয়া যায়। বন্যার সময় সাপের উপদ্রপ আরো বাড়তে পাড়ে। ভয়ের কারণ নেই, প্রতিটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এন্টিভেনম রয়েছে।

জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান বলেন, প্রতিদিন বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হচ্ছে। এখন থেকে বন্যা কবলিত এলাকার সকল বিভাগ প্রস্তুত থাকবে। প্রতিটি বন্যা আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখতে হবে। আশ্রয়কেন্দ্রে আসা মানুষদের শুকনা খাবারের ব্যবস্থা করাসহ গবাদি পশুর জন্যও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। আজকের সভার পর প্রত্যেক ইউএনও ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাদের কাল সোমবারের মধ্যে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে জরুরি সভা করার কথা বলেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

রাজবাড়ীতে বন্যার অবনতি, সকল বিভাগকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৯:০৪:১৯ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৮ জুলাই ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীতে পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় দিন দিন অবনতি হচ্ছে। প্রতিদিন পদ্মার পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় জেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে। বন্য পরিস্থিতি অবনতি হওয়ায় সকল উপজেলার বিভাগকে প্রস্তুত থাকতে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে। আজ রোববার দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে এ সংক্রান্ত এক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খানের সভাপতিত্বে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সিদ্ধার্থ ভৌমিক, সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইব্রাহিম টিটন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল আলিম, জেলা দুর্যোগ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা সৈয়দ আরিফুল হক, গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র, বালিয়াকান্দি উপজেলার ইউএনও কাবেরী রায়, কালুখালী উপজেলার ইউএনও মহুয়া আফরোজ, প্রাণী সম্পদ অধিদপ্তরের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম তালুকদার, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মশিউর রহমান, জেলা রেডক্রিসেন্ট সমিতির সেক্রেটারী আকরাম হোসেন প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

সভায় জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা সৈয়দ আরিফুল হক জানান, গত ২৪ ঘন্টায় পদ্মা নদীর গোয়ালন্দ পয়েন্টে আরো ৯ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে পানির লেভেল ৭ দশমিক ৭৫ মিটার। অর্থাৎ বিপদসীমার মাত্র ১৫ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জেলায় বন্যাসহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় মানবিক সহায়তা হিসেবে বিতরণের জন্য ৮ লাখ ৯০ হাজার ৫০০ টাকা এবং ৪৫০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ করা হয়। ইতিমধ্যে ৪ লাখ ৪০ হাজার ৫০০ টাকা এবং ১২ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে।

রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির জেলা শাখার সেক্রেটারী আকরাম হোসেন জানান, রাজবাড়ী সদরে ১০০ জন এবং জেলায় ৫০ জন প্রশিক্ষিত যুবক প্রস্তুত রয়েছে। এছাড়া ১০ হাজার লিটার পানি মজুদ রয়েছে। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় যে কোন সমস্যায় জেলা রেডক্রিসেন্ট প্রস্তুত রয়েছে।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মশিউর রহমান জানান, দীর্ঘদিন বৃষ্টি না হওয়ায় খামারীরা মাছ চাষ করতে পারছিলনা। বর্তমানে বন্যা হওয়ায় নিচু এলাকার পুকুর বা খামার ডুবে মাছ ভেসে না যায় এজন্য চারপাশে নেট দিয়ে ঘিরে রাখাসাহ যাবতীয় প্রস্তুতি রাখতে বলা হয়েছে।

সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইব্রাহিম টিটন বলেন, প্রত্যেক উপজেলায় একটি করে মেডিকেল টিম প্রস্তুত রাখতে বলা হয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকার মানুষজন অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাৎক্ষনিক চিকিৎসা দেয়া যায়। বন্যার সময় সাপের উপদ্রপ আরো বাড়তে পাড়ে। ভয়ের কারণ নেই, প্রতিটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এন্টিভেনম রয়েছে।

জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান বলেন, প্রতিদিন বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হচ্ছে। এখন থেকে বন্যা কবলিত এলাকার সকল বিভাগ প্রস্তুত থাকবে। প্রতিটি বন্যা আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখতে হবে। আশ্রয়কেন্দ্রে আসা মানুষদের শুকনা খাবারের ব্যবস্থা করাসহ গবাদি পশুর জন্যও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। আজকের সভার পর প্রত্যেক ইউএনও ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাদের কাল সোমবারের মধ্যে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে জরুরি সভা করার কথা বলেন।