০৯:২৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীর বসন্তপুরে ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে পল্লী চিকিৎসককে কুপিয়ে জখম

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীতে বাদশা মৃধা (৬০) নামে এক পল্লী চিকিৎসককে কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার (৭ জুন) দিবাগত রাত ১১ টার দিকে সদর উপজেলার বসন্তপুর স্টেশন বাজারের পাশে ফুটবল খেলার মাঠে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাদশা মৃধা বসন্তপুর ইউনিয়নের হাটজয়পুর গ্রামের মৃত আব্দুর রহমান মৃধার ছেলে। বসন্তপুর স্টেশন বাজারে তার ওষুধের দোকান রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,বাদশা মৃধা বসন্তপুর বাজারে মমতাজ মেডিকেল হল নামের একটি ঔষধের দোকান ও পাশাপাশি বিকাশের দোকান চালাতো। প্রতিদিনের ন্যায় শুক্রবার দিবাগত রাত ১১ টার দিকে দোকান বন্ধ করে দোকানে থাকা দুইটি টাকার ব্যাগ নিয়ে বাড়িতে যাওয়ার সময় ছিনতাইকারীরা জোর পূর্বক দুটি ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় ছিনতাইকারীদের সাথে তার ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে সাথে থাকা একটি ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। ওই ব্যাগের ভিতর ৭০ হাজার টাকা ছিল বলে জানা যায়।

বাদশা মৃধার ছেলে মামুন মৃধা জানান, রাত ১১টার দিকে তার বাবা দোকান বন্ধ করে বসন্তপুর স্টেশন বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। তিনি বাজারের পাশে ফুটবল খেলার মাঠে পৌঁছালে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা তাকে এলোপাতাড়ি কোপানো শুরু করে। তিনি হাত দিয়ে ঠেকাতে গেলে বাম হাতে তিনটি কোপ লাগে। এতে হাতের হাড় ও রগ কেটে যায়। তার চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। অবস্থা গুরুতর হওযায় সেখান থেকে তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করা হয়। পঙ্গু হাসপাতালে তার অপারেশন সম্পন্ন হয়েছে। এখন তিনি শঙ্কামুক্ত। কে বা কারা কি কারণে তার বাবাকে কুপিয়েছে এই মুহুর্তে তা তিনি বলতে পারছেন না। তবে এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করবেন বলে জানান মামুন মৃধা।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইফতেখারুল আলম প্রধান, পল্লী চিকিৎসককে কুপিয়ে জখমের বিষয়ে থানায় এখনো পর্যন্ত লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়নি। তবে ঘটনাটি শোনার পর আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

রাজবাড়ীর বসন্তপুরে ছিনতাইয়ের চেষ্টাকালে পল্লী চিকিৎসককে কুপিয়ে জখম

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:৫০:৪৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৯ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীতে বাদশা মৃধা (৬০) নামে এক পল্লী চিকিৎসককে কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার (৭ জুন) দিবাগত রাত ১১ টার দিকে সদর উপজেলার বসন্তপুর স্টেশন বাজারের পাশে ফুটবল খেলার মাঠে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাদশা মৃধা বসন্তপুর ইউনিয়নের হাটজয়পুর গ্রামের মৃত আব্দুর রহমান মৃধার ছেলে। বসন্তপুর স্টেশন বাজারে তার ওষুধের দোকান রয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়,বাদশা মৃধা বসন্তপুর বাজারে মমতাজ মেডিকেল হল নামের একটি ঔষধের দোকান ও পাশাপাশি বিকাশের দোকান চালাতো। প্রতিদিনের ন্যায় শুক্রবার দিবাগত রাত ১১ টার দিকে দোকান বন্ধ করে দোকানে থাকা দুইটি টাকার ব্যাগ নিয়ে বাড়িতে যাওয়ার সময় ছিনতাইকারীরা জোর পূর্বক দুটি ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এ সময় ছিনতাইকারীদের সাথে তার ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে সাথে থাকা একটি ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। ওই ব্যাগের ভিতর ৭০ হাজার টাকা ছিল বলে জানা যায়।

বাদশা মৃধার ছেলে মামুন মৃধা জানান, রাত ১১টার দিকে তার বাবা দোকান বন্ধ করে বসন্তপুর স্টেশন বাজার থেকে বাড়ি ফিরছিলেন। তিনি বাজারের পাশে ফুটবল খেলার মাঠে পৌঁছালে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা দুর্বৃত্তরা তাকে এলোপাতাড়ি কোপানো শুরু করে। তিনি হাত দিয়ে ঠেকাতে গেলে বাম হাতে তিনটি কোপ লাগে। এতে হাতের হাড় ও রগ কেটে যায়। তার চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। অবস্থা গুরুতর হওযায় সেখান থেকে তাকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করা হয়। পঙ্গু হাসপাতালে তার অপারেশন সম্পন্ন হয়েছে। এখন তিনি শঙ্কামুক্ত। কে বা কারা কি কারণে তার বাবাকে কুপিয়েছে এই মুহুর্তে তা তিনি বলতে পারছেন না। তবে এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করবেন বলে জানান মামুন মৃধা।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইফতেখারুল আলম প্রধান, পল্লী চিকিৎসককে কুপিয়ে জখমের বিষয়ে থানায় এখনো পর্যন্ত লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়নি। তবে ঘটনাটি শোনার পর আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।