১২:৪৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে আবারো হারানো ফোন ফিরে পেলেন ১০৭ জন

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ আবারো ১০৭টি হারানো মোবাইলফোন উদ্ধার করে প্রকৃত মালিককে ফিরিয়ে দিল রাজবাড়ী জেলা পুলিশ। পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ওই ১০৭টি মোবাইল ফোনের তথ্য যাচাই-বাছাই করে প্রকৃত মালিকের নিকট হস্তান্তর করা হয়। রাজবাড়ী পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ সুপার জি. এম. আবুল কালাম আজাদ পিপিএম এ তথ্য জানান।

সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রাজবাড়ী জেলার ৫টি থানার সাধারণ ডায়রীর (জিডি) সূত্র ধরে তথ্য প্রযুক্তিগত সহায়তায় রাজবাড়ী সদর থানার জিডি থেকে ৪২টি, গোয়ালন্দ ঘাট থানার জিডি থেকে ১২টি, পাংশা মডেল থানার জিডি থেকে ২৩টি, কালুখালী থানার জিডি থেকে ১২টি এবং বালিয়াকান্দি থানার জিডি থেকে ১৮টি সহ মোট ১০৭টি হারানো মোবাইলফোন উদ্ধার পূর্বক যাচাই করে প্রকৃত মালিকের হাতে হস্তান্তর করা হয়। এছাড়াও এমএফসি সংক্রান্তে বিকাশ বা নগদের  ৪২ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয় এবং হ্যাক হওয়া ৮টি ফেসবুক আইডি রিকোভারি করা হয়। উদ্ধারকৃত ওই ১০৭টি মোবাইলসহ চলতি বছরের জানুয়ারিতে ৭১টি, ফেব্রুয়ারিতে ১০৯টি, মার্চে ১১১টি, এপ্রিলে ৯২টি এবং সর্বশেষ মে মাসে ১০৭টি সহ সর্বমোট ৫৯৭টি মোবাইলফোন উদ্ধার করে প্রকৃত মালিকদের কাছে হস্তান্তর করেছে জেলা পুলিশ ।

এ সময় হারানো ফোন ফিরে পেয়ে প্রকৃত মালিকগণ সকলে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। পাশাপাশি পুলিশের প্রতি তাদের আস্থার কথা জানান। রাজবাড়ী জেলা পুলিশ প্রশাসনের এমন ত্বরিত ভূমিকায় আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানিয়ে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

পুলিশ সুপার জি.এম. আবুল কালাম আজাদ পিপিএম বলেন, রাজবাড়ী জেলা একটি ছোট জেলা। এ জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি যথেষ্ট ভালো। এ ছাড়াও প্রান্তিক মানুষের মোবাইলগুলো উদ্ধার এবং সাইবার ক্রাইম মনিটরিং করা হয়। মোবাইলফোন হারানো বা বিকাশের মাধ্যমে টাকা নিয়ে যাওয়া ও একজনের পার্সোনাল ছবি পোষ্ট করে তাকে ব্লাকমেইল করায় ভিকটিমের ভিতরে যে মানষিক কষ্ট, সেই কষ্টটা দুর করার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে চেষ্টা করি। ওই সমস্যাগুলো সমাধানের পর ভিকটিমের মুখের হাসি আমাদের কাজে আরও অনুপ্রাণিত করে। হারানো কোন কিছু ফিরে পেলে মানুষ যে আনন্দ পায় এটাই আমাদের প্রাপ্তি, সাফল্য। এ কাজটি আমরা ধারাবাহিকভাবে করে যাব।

পুলিশ সুপার বলেন, রাজবাড়ী জেলার প্রতিটি থানায় মোবাইলফোন হারিয়ে যাওয়া বা চুরি হওয়া সংক্রান্ত জিডি, বিকাশ প্রতারণা এবং ফেসবুক হ্যাক সংক্রান্তে জিডি হয়। ওই জিডির প্রেক্ষিতে জেলা পুলিশের সাইবার ক্রাইম মনিটরিং সেল এর একটি চৌকস দল উল্লেখিত মোবাইলফোন উদ্ধার, বিকাশ প্রতারণা, ফেসবুক হ্যাকসহ অন্যান্য সাইবার অপরাধ সম্পর্কে  সর্বদা নজরদারি করে থাকে।

মোবাইলফোন হস্তান্তর অনুষ্ঠানে ফোন মালিকগণ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) মো. রেজাউল করিম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) মুকিত সরকারসহ সহ জেলা পুলশিরে উর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

রাজবাড়ীতে আবারো হারানো ফোন ফিরে পেলেন ১০৭ জন

পোস্ট হয়েছেঃ ১০:১১:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ আবারো ১০৭টি হারানো মোবাইলফোন উদ্ধার করে প্রকৃত মালিককে ফিরিয়ে দিল রাজবাড়ী জেলা পুলিশ। পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে ওই ১০৭টি মোবাইল ফোনের তথ্য যাচাই-বাছাই করে প্রকৃত মালিকের নিকট হস্তান্তর করা হয়। রাজবাড়ী পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পুলিশ সুপার জি. এম. আবুল কালাম আজাদ পিপিএম এ তথ্য জানান।

সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রাজবাড়ী জেলার ৫টি থানার সাধারণ ডায়রীর (জিডি) সূত্র ধরে তথ্য প্রযুক্তিগত সহায়তায় রাজবাড়ী সদর থানার জিডি থেকে ৪২টি, গোয়ালন্দ ঘাট থানার জিডি থেকে ১২টি, পাংশা মডেল থানার জিডি থেকে ২৩টি, কালুখালী থানার জিডি থেকে ১২টি এবং বালিয়াকান্দি থানার জিডি থেকে ১৮টি সহ মোট ১০৭টি হারানো মোবাইলফোন উদ্ধার পূর্বক যাচাই করে প্রকৃত মালিকের হাতে হস্তান্তর করা হয়। এছাড়াও এমএফসি সংক্রান্তে বিকাশ বা নগদের  ৪২ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয় এবং হ্যাক হওয়া ৮টি ফেসবুক আইডি রিকোভারি করা হয়। উদ্ধারকৃত ওই ১০৭টি মোবাইলসহ চলতি বছরের জানুয়ারিতে ৭১টি, ফেব্রুয়ারিতে ১০৯টি, মার্চে ১১১টি, এপ্রিলে ৯২টি এবং সর্বশেষ মে মাসে ১০৭টি সহ সর্বমোট ৫৯৭টি মোবাইলফোন উদ্ধার করে প্রকৃত মালিকদের কাছে হস্তান্তর করেছে জেলা পুলিশ ।

এ সময় হারানো ফোন ফিরে পেয়ে প্রকৃত মালিকগণ সকলে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। পাশাপাশি পুলিশের প্রতি তাদের আস্থার কথা জানান। রাজবাড়ী জেলা পুলিশ প্রশাসনের এমন ত্বরিত ভূমিকায় আন্তরিকভাবে ধন্যবাদ জানিয়ে তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

পুলিশ সুপার জি.এম. আবুল কালাম আজাদ পিপিএম বলেন, রাজবাড়ী জেলা একটি ছোট জেলা। এ জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি যথেষ্ট ভালো। এ ছাড়াও প্রান্তিক মানুষের মোবাইলগুলো উদ্ধার এবং সাইবার ক্রাইম মনিটরিং করা হয়। মোবাইলফোন হারানো বা বিকাশের মাধ্যমে টাকা নিয়ে যাওয়া ও একজনের পার্সোনাল ছবি পোষ্ট করে তাকে ব্লাকমেইল করায় ভিকটিমের ভিতরে যে মানষিক কষ্ট, সেই কষ্টটা দুর করার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে চেষ্টা করি। ওই সমস্যাগুলো সমাধানের পর ভিকটিমের মুখের হাসি আমাদের কাজে আরও অনুপ্রাণিত করে। হারানো কোন কিছু ফিরে পেলে মানুষ যে আনন্দ পায় এটাই আমাদের প্রাপ্তি, সাফল্য। এ কাজটি আমরা ধারাবাহিকভাবে করে যাব।

পুলিশ সুপার বলেন, রাজবাড়ী জেলার প্রতিটি থানায় মোবাইলফোন হারিয়ে যাওয়া বা চুরি হওয়া সংক্রান্ত জিডি, বিকাশ প্রতারণা এবং ফেসবুক হ্যাক সংক্রান্তে জিডি হয়। ওই জিডির প্রেক্ষিতে জেলা পুলিশের সাইবার ক্রাইম মনিটরিং সেল এর একটি চৌকস দল উল্লেখিত মোবাইলফোন উদ্ধার, বিকাশ প্রতারণা, ফেসবুক হ্যাকসহ অন্যান্য সাইবার অপরাধ সম্পর্কে  সর্বদা নজরদারি করে থাকে।

মোবাইলফোন হস্তান্তর অনুষ্ঠানে ফোন মালিকগণ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) মো. রেজাউল করিম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম এন্ড অপস্) মুকিত সরকারসহ সহ জেলা পুলশিরে উর্দ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ।