০৪:১০ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে ডিবি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার প্রতারক

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ আমেরিকায় পাঠানোর নামে অসহায় মানুষের অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে খাঁন হুমায়ুন কবির (৪৭) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) দল। সোমবার সন্ধ্যায় রাজবাড়ী সদর থানার ভবানীপুর অফিসার্স ক্লাবের দক্ষিণ-পূর্ব কোনা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। হুমায়ুন নড়াইলের নড়াগাতি থানার জয়নগর ইউনিয়নের ঘড়িভাঙ্গা গ্রামের মৃত শামসুল হক খাঁন এর ছেলে।

এসময় তার কাছ থেকে প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ভূয়া জাতীয় পরিচয় পত্র, জন্মসনদ, টিন সার্টিফিকেট, ড্রাইভিং লাইসেন্সসহ বিভিন্ন ভূয়া ডকুমেনট জব্দ করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত হুমায়ুনের বিরুদ্ধে জাতীয় পরিচয়পত্রে নিজের প্রকৃত ঠিকানা না দিয়ে আমেরিকা প্রবাসী এক ব্যক্তির ঠিকানা ব্যবহার করে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করে আসছিল। এমনকি সে নিজের প্রথম স্ত্রীকে তালাকপ্রাপ্ত দেখিয়ে আরেকটি বিবাহ করার অভিযোগ রয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে জেলা পুলিশের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গ্রেপ্তারকৃত হুমায়ুন কবির বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে চাকুরি করতো। ২০১০ সালে তার চাকরি চলে যায়। চাকরি চলে যাওয়ার বিষয়টি পরিবারের কাছে গোপন রাখে এবং সে আর বাড়ি ফিরে নাই। বাড়িতে তার স্ত্রী, সন্তান রয়েছে। সে ঢাকায় গিয়ে প্রতারণার উদ্দেশ্যে কৌশলে তার জাতীয় পরিচয় পত্র, জন্ম সনদ, টিন সার্টিফিকেট, ড্রাইভিং লাইসেন্স সহ বিভিন্ন ভূয়া ডকুমেন্ট তৈরী করে। এসব ডকুমেন্টে নিজের নাম হুমায়ুনের পরিবর্তে মনিরুজ্জামান, পিতা শামসুল খানের পরিবর্তে মো. বাহেজ উদ্দিন, বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে বাসা-৫৬১, রাস্তা-১৫, রুপনগর টিনশেড, সেকশন ০৫, থানা রুপনগর, জেলা ঢাকা ব্যবহার করে।

উল্লেখিত বাসার ঠিকানা মূলত আমেরিকা প্রবাসী মো. বাহেজ উদ্দিনের। বাহেজ উদ্দিন তাঁর স্ত্রী, সন্তানসহ সবাই আমেরিকায় বসবাস করেন। বাহেজ উদ্দিন আমেরিকায় থাকায় হুমায়ুন কবির তার বাসা দেখাশুনা করতো। বাহেজ উদ্দিনের বাসা দেখাশুনা করাকালীন সময় হুমায়ুন কবির বাহেজ উদ্দিনকে বাবা এবং তার স্ত্রীকে মা বানিয়ে উল্লেখিত ঠিকানা ব্যবহার করে ভূয়া কাগজপত্র তৈরী করেন। প্রকৃত নাম-ঠিকানা গোপন রেখে আমেরিকা প্রবাসী বাহেজ উদ্দিনের ঠিকানা ব্যবহার করে রুপনগর থাকাকালীন সময়। পরবর্তীতে রাজবাড়ী সদর বানীবহ এলাকার বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে প্রতারণার উদ্দেশ্যে মিথ্যা তথ্যের সন্নিবেশ ঘটিয়ে জাল জাতীয় পরিচয়পত্র, মিথ্যা জন্ম সনদসহ বিভিন্ন কাগজ তৈরি করেন। এসব কাগজপত্র সঠিক হিসেবে ব্যবহার করে গ্রামের সহজ সরল মানুষের বিশ্বাস অর্জন করে তাদের থেকে প্রতারণামূলক আমেরিকা পাঠানোর কথা বলে নগদ ১৩ লাখ টাকা গ্রহণ করে আত্মসাৎ করে।

রাজবাড়ী ডিবি পুলিশের ওসি মো. মনিরুজ্জামান জানান, বাণীবহ এলাকার আলী হোসেন নামের এক ব্যক্তি হুমায়ুনের বিরুদ্ধে সম্প্রতি রাজবাড়ী সদর থানায় প্রতারণামূলক মামলা দায়ের করেন। জামিনে এসে মিথ্যা নাম ঠিকানা ব্যবহার করে রাজবাড়ীর আদালতে ভুক্তভোগীদের নামে ১১টি মামলা দায়ের করেন। শুধু তাই নয়, তার নিজের প্রথম স্ত্রী পাপিয়াকে তালাকপ্রাপ্ত দেখিয়ে বাণীবহ এলাকায় রেখা নামের আরেক নারীকে বিবাহ করেন। মূলত তার প্রথম স্ত্রী তালাকপ্রাপ্ত নন। বিবাহ কাবিন নামায় জাতীয় পরিচয়পত্র, জন্মসনদে জন্ম তারিখে মিথ্যা নাম ঠিকানা ব্যবহার করেন। তার বিরুদ্ধে যশোরের কোতয়ালী থানায় ২০১২ সালে একটি মামলা রয়েছে। এ ঘটনায় রাজবাড়ী সদর থানায় মামলা দায়ের শেষে বিকেলে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

রাজবাড়ীতে ডিবি পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার প্রতারক

পোস্ট হয়েছেঃ ০৯:১১:৩৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ আমেরিকায় পাঠানোর নামে অসহায় মানুষের অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে খাঁন হুমায়ুন কবির (৪৭) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) দল। সোমবার সন্ধ্যায় রাজবাড়ী সদর থানার ভবানীপুর অফিসার্স ক্লাবের দক্ষিণ-পূর্ব কোনা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। হুমায়ুন নড়াইলের নড়াগাতি থানার জয়নগর ইউনিয়নের ঘড়িভাঙ্গা গ্রামের মৃত শামসুল হক খাঁন এর ছেলে।

এসময় তার কাছ থেকে প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ভূয়া জাতীয় পরিচয় পত্র, জন্মসনদ, টিন সার্টিফিকেট, ড্রাইভিং লাইসেন্সসহ বিভিন্ন ভূয়া ডকুমেনট জব্দ করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত হুমায়ুনের বিরুদ্ধে জাতীয় পরিচয়পত্রে নিজের প্রকৃত ঠিকানা না দিয়ে আমেরিকা প্রবাসী এক ব্যক্তির ঠিকানা ব্যবহার করে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করে আসছিল। এমনকি সে নিজের প্রথম স্ত্রীকে তালাকপ্রাপ্ত দেখিয়ে আরেকটি বিবাহ করার অভিযোগ রয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে জেলা পুলিশের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গ্রেপ্তারকৃত হুমায়ুন কবির বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে চাকুরি করতো। ২০১০ সালে তার চাকরি চলে যায়। চাকরি চলে যাওয়ার বিষয়টি পরিবারের কাছে গোপন রাখে এবং সে আর বাড়ি ফিরে নাই। বাড়িতে তার স্ত্রী, সন্তান রয়েছে। সে ঢাকায় গিয়ে প্রতারণার উদ্দেশ্যে কৌশলে তার জাতীয় পরিচয় পত্র, জন্ম সনদ, টিন সার্টিফিকেট, ড্রাইভিং লাইসেন্স সহ বিভিন্ন ভূয়া ডকুমেন্ট তৈরী করে। এসব ডকুমেন্টে নিজের নাম হুমায়ুনের পরিবর্তে মনিরুজ্জামান, পিতা শামসুল খানের পরিবর্তে মো. বাহেজ উদ্দিন, বর্তমান ও স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে বাসা-৫৬১, রাস্তা-১৫, রুপনগর টিনশেড, সেকশন ০৫, থানা রুপনগর, জেলা ঢাকা ব্যবহার করে।

উল্লেখিত বাসার ঠিকানা মূলত আমেরিকা প্রবাসী মো. বাহেজ উদ্দিনের। বাহেজ উদ্দিন তাঁর স্ত্রী, সন্তানসহ সবাই আমেরিকায় বসবাস করেন। বাহেজ উদ্দিন আমেরিকায় থাকায় হুমায়ুন কবির তার বাসা দেখাশুনা করতো। বাহেজ উদ্দিনের বাসা দেখাশুনা করাকালীন সময় হুমায়ুন কবির বাহেজ উদ্দিনকে বাবা এবং তার স্ত্রীকে মা বানিয়ে উল্লেখিত ঠিকানা ব্যবহার করে ভূয়া কাগজপত্র তৈরী করেন। প্রকৃত নাম-ঠিকানা গোপন রেখে আমেরিকা প্রবাসী বাহেজ উদ্দিনের ঠিকানা ব্যবহার করে রুপনগর থাকাকালীন সময়। পরবর্তীতে রাজবাড়ী সদর বানীবহ এলাকার বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে প্রতারণার উদ্দেশ্যে মিথ্যা তথ্যের সন্নিবেশ ঘটিয়ে জাল জাতীয় পরিচয়পত্র, মিথ্যা জন্ম সনদসহ বিভিন্ন কাগজ তৈরি করেন। এসব কাগজপত্র সঠিক হিসেবে ব্যবহার করে গ্রামের সহজ সরল মানুষের বিশ্বাস অর্জন করে তাদের থেকে প্রতারণামূলক আমেরিকা পাঠানোর কথা বলে নগদ ১৩ লাখ টাকা গ্রহণ করে আত্মসাৎ করে।

রাজবাড়ী ডিবি পুলিশের ওসি মো. মনিরুজ্জামান জানান, বাণীবহ এলাকার আলী হোসেন নামের এক ব্যক্তি হুমায়ুনের বিরুদ্ধে সম্প্রতি রাজবাড়ী সদর থানায় প্রতারণামূলক মামলা দায়ের করেন। জামিনে এসে মিথ্যা নাম ঠিকানা ব্যবহার করে রাজবাড়ীর আদালতে ভুক্তভোগীদের নামে ১১টি মামলা দায়ের করেন। শুধু তাই নয়, তার নিজের প্রথম স্ত্রী পাপিয়াকে তালাকপ্রাপ্ত দেখিয়ে বাণীবহ এলাকায় রেখা নামের আরেক নারীকে বিবাহ করেন। মূলত তার প্রথম স্ত্রী তালাকপ্রাপ্ত নন। বিবাহ কাবিন নামায় জাতীয় পরিচয়পত্র, জন্মসনদে জন্ম তারিখে মিথ্যা নাম ঠিকানা ব্যবহার করেন। তার বিরুদ্ধে যশোরের কোতয়ালী থানায় ২০১২ সালে একটি মামলা রয়েছে। এ ঘটনায় রাজবাড়ী সদর থানায় মামলা দায়ের শেষে বিকেলে আদালতে পাঠানো হয়েছে।