০৪:০২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে সভাঃ ঈদে ১০দিন নৌপথে বাল্কহেড, ৭দিন সাধারণ পণ্যবাহী গাড়ি ফেরি পারাপার বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া নৌপথে চলাচলরত সকল জলযান সুষ্ঠুভাবে চলাচল, ঘাটের সুষ্ঠ ব্যবস্থাপনা, যাত্রীসাধারণের যাতায়াত নির্বিঘœ করার লক্ষ্যে সভা অনুষ্ঠিত হয়। ঈদে এই দুই ঘাটে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার নির্বিঘœ রাখতে ১৮টি ফেরি এবং ২০টি লঞ্চ চলাচল করবে। সভার সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান।

যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে ১৩ থেকে ২৩ জুন ১০দিন রাতের বেলায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে সকল প্রকার বাল্কহেড চলাচল বন্ধ, যান চলাচল নিয়ন্ত্রণে ১৪ থেকে ২০ জুন পর্যন্ত কোরবানীর পশু, নিত্য প্রয়োজনীয় পচনশীল পন্যভাহী ট্রাক ব্যতীত সাধারণ ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান ফেরি পারাপার বন্ধ থাকবে। কোরবানীর পশুবাহী ট্রাক পারাপারে নির্দিষ্ট ফেরির ব্যবস্থা করা, লঞ্চের স্বাভাবিক চলাচল নিশ্চিতকল্পে মাছ ধরা বন্ধ, ফেরিঘাট, লঞ্চঘাট ও স্পীডবোট ঘাটসমূহে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়, অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই নিয়ন্ত্রণে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা, বাস ও থ্রি-হুইলার চলাচলের রাস্তা নির্দিষ্ট করতে হবে।

নৌপথে ডাকাতি, চাঁদাবাজি, শ্রমিক ও যাত্রীদের হয়রানী প্রতিরোধে রাতে পুলিশ টহল ব্যবস্থা, যাত্রীদের যানমাল নিরাপত্তায় জেলা ও উপজেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, নৌপুলিশ ও কোস্টগার্ড এর সমন্বয়ে ভিজিলেন্স টিম গঠন, নৌপথে ফিটনেসবিহীন নৌযান ও ফেরি চলাচল বন্ধ করা, আবহাওয়া সংকেত অনুসরণপূর্বক নৌযান পরিচালনাসহ রেকার ও ক্রেন রাখার সিদ্ধান্ত হয়।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) সকালে অনুষ্ঠিত সভায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সুবিধাভোগী দালালচক্র যাতে ঘাটে কৃত্রিম যানজট সৃষ্টি করতে না পারে সেদিকে কড়া নজর, যাত্রীদের নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিত করতে চাঁদাবাজি, ছিনতাই, দালাল, পকেটমার, অজ্ঞান পার্টির দৌরাত্ম্য রোধে পুলিশ মনিটরিং, অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনসহ ট্রাফিক ব্যবস্থা জোরদারের সিদ্ধান্ত হয়। কোরবানী পশু ক্রয়-বিক্রয় ও পরিবহনে চাঁদাবাজি না হয় সে লক্ষ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর টহল বৃদ্ধি, ফেরিতে জুয়া খেলা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় সিভিল সার্জন মো. ইব্রাহিম টিটন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সিদ্ধার্থ ভৌমিক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুকিত সরকার, জেলা প্রাণীসম্পদের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম তালুকদার, গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র মো. নজরুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র, গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি প্রাণবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস, বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়ার ব্যবস্থাপক সালাহ উদ্দিন, বিআইডব্লিউটিএর উপসহকারী প্রকৌশলী সহিদুল ইসলাম ছাড়াও সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপ ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা বক্তব্য রাখেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুকিত সরকার বলেন, ঈদে ঘাট দিয়ে যানবাহন এবং যাত্রী পারাপার নির্বিঘœ রাখতে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। সকল ধরনের অপরাধ দমনে পাশাপাশি সাদা পোশাকের পুলিশ সহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা চার স্তরে নিরাপত্তায় দায়িত্ব পালন করবেন।

জেলা প্রশাসক আবু কায়সার জানান, ১২ থেকে ১৬ জুন পর্যন্ত পাটুরিয়া থেকে দৌলতদিয়া ঘাটগামী এবং ১৮ থেকে ২২ জুন পর্যন্ত দৌলতদিয়া থেকে পাটুরিয়াগামী লঞ্চে কোন মালামাল পরিবহন করা যাবেনা। যাত্রী ও যানবাহন পারাপারের সুবিদার্থে এখন থেকে সকল ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হবে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

রাজবাড়ীতে সভাঃ ঈদে ১০দিন নৌপথে বাল্কহেড, ৭দিন সাধারণ পণ্যবাহী গাড়ি ফেরি পারাপার বন্ধ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:৫৬:৫৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৬ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ ঈদুল আজহা উপলক্ষ্যে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া নৌপথে চলাচলরত সকল জলযান সুষ্ঠুভাবে চলাচল, ঘাটের সুষ্ঠ ব্যবস্থাপনা, যাত্রীসাধারণের যাতায়াত নির্বিঘœ করার লক্ষ্যে সভা অনুষ্ঠিত হয়। ঈদে এই দুই ঘাটে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার নির্বিঘœ রাখতে ১৮টি ফেরি এবং ২০টি লঞ্চ চলাচল করবে। সভার সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক আবু কায়সার খান।

যাত্রীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণে ১৩ থেকে ২৩ জুন ১০দিন রাতের বেলায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে সকল প্রকার বাল্কহেড চলাচল বন্ধ, যান চলাচল নিয়ন্ত্রণে ১৪ থেকে ২০ জুন পর্যন্ত কোরবানীর পশু, নিত্য প্রয়োজনীয় পচনশীল পন্যভাহী ট্রাক ব্যতীত সাধারণ ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান ফেরি পারাপার বন্ধ থাকবে। কোরবানীর পশুবাহী ট্রাক পারাপারে নির্দিষ্ট ফেরির ব্যবস্থা করা, লঞ্চের স্বাভাবিক চলাচল নিশ্চিতকল্পে মাছ ধরা বন্ধ, ফেরিঘাট, লঞ্চঘাট ও স্পীডবোট ঘাটসমূহে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়, অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই নিয়ন্ত্রণে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা, বাস ও থ্রি-হুইলার চলাচলের রাস্তা নির্দিষ্ট করতে হবে।

নৌপথে ডাকাতি, চাঁদাবাজি, শ্রমিক ও যাত্রীদের হয়রানী প্রতিরোধে রাতে পুলিশ টহল ব্যবস্থা, যাত্রীদের যানমাল নিরাপত্তায় জেলা ও উপজেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, নৌপুলিশ ও কোস্টগার্ড এর সমন্বয়ে ভিজিলেন্স টিম গঠন, নৌপথে ফিটনেসবিহীন নৌযান ও ফেরি চলাচল বন্ধ করা, আবহাওয়া সংকেত অনুসরণপূর্বক নৌযান পরিচালনাসহ রেকার ও ক্রেন রাখার সিদ্ধান্ত হয়।

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) সকালে অনুষ্ঠিত সভায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সুবিধাভোগী দালালচক্র যাতে ঘাটে কৃত্রিম যানজট সৃষ্টি করতে না পারে সেদিকে কড়া নজর, যাত্রীদের নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিত করতে চাঁদাবাজি, ছিনতাই, দালাল, পকেটমার, অজ্ঞান পার্টির দৌরাত্ম্য রোধে পুলিশ মনিটরিং, অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েনসহ ট্রাফিক ব্যবস্থা জোরদারের সিদ্ধান্ত হয়। কোরবানী পশু ক্রয়-বিক্রয় ও পরিবহনে চাঁদাবাজি না হয় সে লক্ষ্যে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর টহল বৃদ্ধি, ফেরিতে জুয়া খেলা বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় সিভিল সার্জন মো. ইব্রাহিম টিটন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সিদ্ধার্থ ভৌমিক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুকিত সরকার, জেলা প্রাণীসম্পদের প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম তালুকদার, গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র মো. নজরুল ইসলাম, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র, গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি প্রাণবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস, বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়ার ব্যবস্থাপক সালাহ উদ্দিন, বিআইডব্লিউটিএর উপসহকারী প্রকৌশলী সহিদুল ইসলাম ছাড়াও সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপ ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা বক্তব্য রাখেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুকিত সরকার বলেন, ঈদে ঘাট দিয়ে যানবাহন এবং যাত্রী পারাপার নির্বিঘœ রাখতে চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। সকল ধরনের অপরাধ দমনে পাশাপাশি সাদা পোশাকের পুলিশ সহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা চার স্তরে নিরাপত্তায় দায়িত্ব পালন করবেন।

জেলা প্রশাসক আবু কায়সার জানান, ১২ থেকে ১৬ জুন পর্যন্ত পাটুরিয়া থেকে দৌলতদিয়া ঘাটগামী এবং ১৮ থেকে ২২ জুন পর্যন্ত দৌলতদিয়া থেকে পাটুরিয়াগামী লঞ্চে কোন মালামাল পরিবহন করা যাবেনা। যাত্রী ও যানবাহন পারাপারের সুবিদার্থে এখন থেকে সকল ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হবে।