০১:৩০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীর খোলাবাড়িয়া দুর্গা মন্দিরের পাশে থেকে মাটি কাটার অভিযোগ

ইমরান মনিম, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ী সদর উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের খোলাবাড়িয়ায় অবস্থিত দেড়’শ বছরের ঐতিহ্যবাহী পুরাতন দুর্গা মন্দির। এ দুর্গা মন্দিরটি দেবনাথ কেদার নাথ সাহার (ডিকে সাহা) বাড়ি ও মন্দির বিভিন্ন স্থান থেকে  নানা শ্রেনী পেশার মানুষ এখনো মন্দিরটি দেখতে আসে।

তার উত্তরাধিকারী সুধীর কুমার সাহা, কেদার নাথ সাহা, গোবিন্দ চন্দ্র সাহা, ফনি ভূষন সাহা, ইন্দ্র ভূষন সাহা, ঋষিকেশ সাহা জগদিশ সাহা, নীল রতন সাহা ও নিকুঞ্জ বিহারী তাদের এ উত্তরাধিকার সম্পত্তি এখন বিক্রির ফলে মালিকানা হস্তান্তর হয়।

কিন্তু সম্প্রতি সময়ে স্থানীয় একটি মহল মন্দিরটির পাশ থেকে মাটি কেটে বিক্রির পায়তারা করছে। জেলা প্রশাসনকে ভূল বুঝিয়ে এ স্থান থেকে মাটি কাটার অনুমোদনও নেয় বলে জানা গেছে।কিন্তু মাটি কাটা হলে একদিকে মন্দিরটির যেমনি অস্তিত্ব বিলীন হবে তেমনি এ মন্দিরের পাশে বসবাসরত পরিবারগুলো হুমকিতে পরবে।মন্দির রক্ষায় স্থানীয় মন্দির সংলগ্ন জমির মালিক মো. ইব্রাহিম সরদার মাটি কাটার অনুমোদন বাতিল করার জন্য জেলা প্রশাসনকে অবহিত করেছেন।

বুধবার সরেজমিনে জেলা প্রশাসন থেকে মন্দিরের স্থান পরিদর্শন করার জন্য চার জন এসে পরিদর্শন করেছেন।এখনো জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন সদুত্তর পায়নি স্থানীয় মন্দির কতৃপক্ষ।তবে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বিষয়টি আমলে নিয়েছেন বলে জানায় তারা।এ মন্দির সহ আশেপাশের বাবু বাড়ি এ স্থানটিতে ২ একর ৬৩ শতাংশ জমি রয়েছে।এর মধ্যে ইব্রাহিম সরদারের ৭৭ শতাংশ ও নারায়ন কুমার সাহা (নারু বাবু) ৪৪ শতাংশ সহ মোট এক একর ৩৩ শতাংশ জমি রয়েছে। বাকি ১ একর ৩২ শতাংশ জমি স্থানীয় সামসুদ্দীন খান হিরু বাবুদের সন্তানদের (সুধীর কুমার বাবু) কাছ থেকে ক্রয় করেন। এ জমিটির এসএ খতিয়ান ৩৯৫ দাগ।

কিন্তু সম্প্রতি সময়ে মন্দির সহ এ জমির আশে পাশের জমি খনন করে মাটি বিক্রি করে সেখান থেকে মন্দিরটি ধ্বংসের পায়তারা করছেন।মন্দিরটিতে সব সময় সবধীনের পূজা অর্চনা করনে স্থানীয়রা।তবে দুর্গা পূজাটি বড় করে জাকজমক পূর্ণ করে এখানে অনুষ্ঠিত হয়।

এ জমির ক্রয়কৃত একাংশের মালিকানা ইব্রাহিম সরদার বলেন, এখানে আমার ক্রয় করা সম্পত্তি রয়েছে।এ ছাড়াও বাকি অর্ধেক অংশ সম্পত্তির মালিক হিরু মেম্বার যে জমিটি ক্রয় করে সে জমিটিতে আমি সরকারীভাবে কের্টে পেনশন দাখিল করেছি। বর্তমানে পনশন মামলাটি চলমান রয়েছে। কেন চলমান মামলার স্থান থেকে কেউ মাটি কাটতে পারেনা।তাছাড়া এখানে দেরশো বছরের ঐতিহ্যবাহী একটি দুর্গা মন্দির রয়েছে। এ মন্দিরটি মাটি কাটার ফলে দ্বংশ হওয়ার উপক্রম হবে।তাই আমি প্রশাসনের কাছে মন্দির রক্ষায় মাটি কাটার অনুমোদন বন্ধ রাখতে হস্তক্ষেপ কামনা করি।

মন্দি সংলগ্ন ও স্থানীয় পৈত্রিক সম্পত্তির দাবীদার নারায়ন কুমার সাহা (নারু বাবু) বলেন, আমাদের পুরাত ঐতিহ্যের এ মন্দিরটি রক্ষায় প্রশাসনের কাছে মাটি কাটার অনুমোদন বন্ধ রাখতে অবহিত করেছি। আমরা আশা করি এ আমাদের মন্দিরটি রক্ষায় প্রশাসন মাটি কাটার অনুমোদন বন্ধ করবে।

জমির আরেকজন মালিকানার দাবিদার খোলাবাড়িয়ার সাবেক স্থানীয় ইউপি সদস্য সামসুদ্দিন খান হিরু।তার স্ত্রী জনান, আমাদের ১৬ অংশের সাড়ে অংশ আমার স্বামী বাবুদের কাছ থেকে ক্রয় করেন। এখানে প্রায় আমাদের এক একর এক বিঘার বেশি জমি রয়েছে। আমার স্বা মৃত্যুর পর আমার পরিবারে এখন আয়ের মানুষ নাই। চার সন্তান নিয়ে খুব কষ্টে দিন চলে আমার। তাই আমি এ পরিত্যক্ত জমিটিতে ফসল হয়না। ফসলবিহীন চাষাবাদ বিহীন পরে আছে। তাই আমি এখন পুকুর কেটে মাছ চাষ করে আমার পরিবারটি সচল রাখতে চাই তাই আমি জেলা প্রশাসনের অনুমোদন নিয়েছি। কিন্তু অপর পক্ষ আমার এ পুকুর খনন করতে তালবাহানা করছে। আমি চাই প্রশাসন যেন এটা ক্ষতিয়ে দেখে আমাকে কাটার অনুমতি দেয়।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

রাজবাড়ীর খোলাবাড়িয়া দুর্গা মন্দিরের পাশে থেকে মাটি কাটার অভিযোগ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৫:৩৪:৪৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০২৪

ইমরান মনিম, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ী সদর উপজেলার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের খোলাবাড়িয়ায় অবস্থিত দেড়’শ বছরের ঐতিহ্যবাহী পুরাতন দুর্গা মন্দির। এ দুর্গা মন্দিরটি দেবনাথ কেদার নাথ সাহার (ডিকে সাহা) বাড়ি ও মন্দির বিভিন্ন স্থান থেকে  নানা শ্রেনী পেশার মানুষ এখনো মন্দিরটি দেখতে আসে।

তার উত্তরাধিকারী সুধীর কুমার সাহা, কেদার নাথ সাহা, গোবিন্দ চন্দ্র সাহা, ফনি ভূষন সাহা, ইন্দ্র ভূষন সাহা, ঋষিকেশ সাহা জগদিশ সাহা, নীল রতন সাহা ও নিকুঞ্জ বিহারী তাদের এ উত্তরাধিকার সম্পত্তি এখন বিক্রির ফলে মালিকানা হস্তান্তর হয়।

কিন্তু সম্প্রতি সময়ে স্থানীয় একটি মহল মন্দিরটির পাশ থেকে মাটি কেটে বিক্রির পায়তারা করছে। জেলা প্রশাসনকে ভূল বুঝিয়ে এ স্থান থেকে মাটি কাটার অনুমোদনও নেয় বলে জানা গেছে।কিন্তু মাটি কাটা হলে একদিকে মন্দিরটির যেমনি অস্তিত্ব বিলীন হবে তেমনি এ মন্দিরের পাশে বসবাসরত পরিবারগুলো হুমকিতে পরবে।মন্দির রক্ষায় স্থানীয় মন্দির সংলগ্ন জমির মালিক মো. ইব্রাহিম সরদার মাটি কাটার অনুমোদন বাতিল করার জন্য জেলা প্রশাসনকে অবহিত করেছেন।

বুধবার সরেজমিনে জেলা প্রশাসন থেকে মন্দিরের স্থান পরিদর্শন করার জন্য চার জন এসে পরিদর্শন করেছেন।এখনো জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন সদুত্তর পায়নি স্থানীয় মন্দির কতৃপক্ষ।তবে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক বিষয়টি আমলে নিয়েছেন বলে জানায় তারা।এ মন্দির সহ আশেপাশের বাবু বাড়ি এ স্থানটিতে ২ একর ৬৩ শতাংশ জমি রয়েছে।এর মধ্যে ইব্রাহিম সরদারের ৭৭ শতাংশ ও নারায়ন কুমার সাহা (নারু বাবু) ৪৪ শতাংশ সহ মোট এক একর ৩৩ শতাংশ জমি রয়েছে। বাকি ১ একর ৩২ শতাংশ জমি স্থানীয় সামসুদ্দীন খান হিরু বাবুদের সন্তানদের (সুধীর কুমার বাবু) কাছ থেকে ক্রয় করেন। এ জমিটির এসএ খতিয়ান ৩৯৫ দাগ।

কিন্তু সম্প্রতি সময়ে মন্দির সহ এ জমির আশে পাশের জমি খনন করে মাটি বিক্রি করে সেখান থেকে মন্দিরটি ধ্বংসের পায়তারা করছেন।মন্দিরটিতে সব সময় সবধীনের পূজা অর্চনা করনে স্থানীয়রা।তবে দুর্গা পূজাটি বড় করে জাকজমক পূর্ণ করে এখানে অনুষ্ঠিত হয়।

এ জমির ক্রয়কৃত একাংশের মালিকানা ইব্রাহিম সরদার বলেন, এখানে আমার ক্রয় করা সম্পত্তি রয়েছে।এ ছাড়াও বাকি অর্ধেক অংশ সম্পত্তির মালিক হিরু মেম্বার যে জমিটি ক্রয় করে সে জমিটিতে আমি সরকারীভাবে কের্টে পেনশন দাখিল করেছি। বর্তমানে পনশন মামলাটি চলমান রয়েছে। কেন চলমান মামলার স্থান থেকে কেউ মাটি কাটতে পারেনা।তাছাড়া এখানে দেরশো বছরের ঐতিহ্যবাহী একটি দুর্গা মন্দির রয়েছে। এ মন্দিরটি মাটি কাটার ফলে দ্বংশ হওয়ার উপক্রম হবে।তাই আমি প্রশাসনের কাছে মন্দির রক্ষায় মাটি কাটার অনুমোদন বন্ধ রাখতে হস্তক্ষেপ কামনা করি।

মন্দি সংলগ্ন ও স্থানীয় পৈত্রিক সম্পত্তির দাবীদার নারায়ন কুমার সাহা (নারু বাবু) বলেন, আমাদের পুরাত ঐতিহ্যের এ মন্দিরটি রক্ষায় প্রশাসনের কাছে মাটি কাটার অনুমোদন বন্ধ রাখতে অবহিত করেছি। আমরা আশা করি এ আমাদের মন্দিরটি রক্ষায় প্রশাসন মাটি কাটার অনুমোদন বন্ধ করবে।

জমির আরেকজন মালিকানার দাবিদার খোলাবাড়িয়ার সাবেক স্থানীয় ইউপি সদস্য সামসুদ্দিন খান হিরু।তার স্ত্রী জনান, আমাদের ১৬ অংশের সাড়ে অংশ আমার স্বামী বাবুদের কাছ থেকে ক্রয় করেন। এখানে প্রায় আমাদের এক একর এক বিঘার বেশি জমি রয়েছে। আমার স্বা মৃত্যুর পর আমার পরিবারে এখন আয়ের মানুষ নাই। চার সন্তান নিয়ে খুব কষ্টে দিন চলে আমার। তাই আমি এ পরিত্যক্ত জমিটিতে ফসল হয়না। ফসলবিহীন চাষাবাদ বিহীন পরে আছে। তাই আমি এখন পুকুর কেটে মাছ চাষ করে আমার পরিবারটি সচল রাখতে চাই তাই আমি জেলা প্রশাসনের অনুমোদন নিয়েছি। কিন্তু অপর পক্ষ আমার এ পুকুর খনন করতে তালবাহানা করছে। আমি চাই প্রশাসন যেন এটা ক্ষতিয়ে দেখে আমাকে কাটার অনুমতি দেয়।