০৮:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপরাধীদের ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ সমাজে অস্থিরতা বিরাজ করতে এবং সম্মানিত ব্যক্তিদের সামাজিকভাবে হেয় করতে একটি চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপতৎপরতা চালাচ্ছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। চক্রটিকে চিহিৃত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনার জোর দাবী জানানো হয়। রোববার রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় বক্তারা অপরাধীদের চিহিৃত করে আইনগত ব্যবস্থার দাবী জানান।

রোববার (৩০ জুলাই) গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত মাসিক আইনশৃৃঙ্খলা কমিটির সভার সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন। বক্তব্য রাখেন গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নার্গিস পারভীন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ফারসীন তারান্নুম হক, উজানচর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি গোলজার হোসেন মৃধা, দেবগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুল ইসলাম, দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা গিয়াস প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, ইদানিংকালে কিছু ব্যক্তি বাছাই করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানাভাবে হেয় করা হচ্ছে। সাইবার বুলিংয়ের শিকার হয়ে সমাজে হেয় করা হচ্ছে। সমাজে তাদের প্রতি নেতিবাচক ধারণা তৈরী হচ্ছে। চক্রের হাত থেকে সাইবার বুলিং থেকে রক্ষা পাচ্ছেন না শিক্ষক, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিসহ সমাজের অনেক প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তি। অপরাধী চক্রের তৎপরতার সাথে জড়িত রয়েছে তৎকালীন (বাংলা ভাই, শায়েখ আব্দুর রহমানের মতো) নিষিদ্ধ ঘোষিত কিছু দলের অনুসারী হিসেবে পরিচিত ব্যক্তি। গোয়ালন্দ উপজেলায় ওই সময়ের চিহিৃত কিছু ব্যক্তি হঠাৎ মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছেন। তাদের অনুসারীদের দিয়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক সম্মানি ব্যক্তিকে হেয় করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা গিয়াস বলেন, সামনে নির্বাচনকে টার্গেট করে হয়তো অপরাধীরা পুনরায় মাথা চাড়া দিয়ে উঠার চেষ্টা করছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের নানা ধরনের আপত্তিকর পোস্টের মাধ্যমে সমাজে যে কোন ধরনের অস্থির পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা করছেন। তাই এই সভা থেকে তাদেরকে চিহিৃত করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানাচ্ছি।

উজানচর ইউপি চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন মৃধা বলেন, ইদানিং কিছু চিহিৃত তরুন, যুবক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একেক সময় একেক ব্যক্তির উদ্দেশ্যে আপত্তিকর কথাবার্তা পোস্ট করে সমাজে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরীর চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন। তাদের হাত থেকে স্কুল-কলেজের শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, পুলিশের কর্মকর্তাসহ সমাজের অনেক সম্মানি ব্যক্তি রয়েছেন। সমাজে যাতে কোন ধরনের অস্থির পরিবেশ তৈরী না হয় সেদিকে নজর প্রদানের দাবী জানান।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার বলেন, কাজ করতে গেলে পক্ষে, বিপক্ষে যাবে এটা স্বাভাবিক। বিপক্ষে গেলে তাদের নির্দিষ্ট কিছু ব্যক্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানাভাবে হয়রানীর চেষ্টা করছেন। স্কুল-কলেজের শিক্ষক, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা এমনকি পুলিশও হয়রানীর শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ আসছে। এ বিষয়ে সবাইকে সতর্কতা থাকার আহ্বান জানান। সাথে অপরাধীদের চিহিৃত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান।

সভার সভাপতি ইউএনও মো. জাকির হোসেন বলেন, সভায় গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উঠে এসেছে সাইবার বুলিং বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অস্থির পরিবেশ তৈরীর চেষ্টা। অভিযোগ গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরে করনীয় জানতে উর্দ্বোতন কর্মকর্তাদের অবগত করা হবে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপরাধীদের ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী

পোস্ট হয়েছেঃ ১০:০৪:৪১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩০ জুলাই ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ সমাজে অস্থিরতা বিরাজ করতে এবং সম্মানিত ব্যক্তিদের সামাজিকভাবে হেয় করতে একটি চক্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপতৎপরতা চালাচ্ছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। চক্রটিকে চিহিৃত করে দ্রুত আইনের আওতায় আনার জোর দাবী জানানো হয়। রোববার রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় বক্তারা অপরাধীদের চিহিৃত করে আইনগত ব্যবস্থার দাবী জানান।

রোববার (৩০ জুলাই) গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত মাসিক আইনশৃৃঙ্খলা কমিটির সভার সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন। বক্তব্য রাখেন গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নার্গিস পারভীন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ফারসীন তারান্নুম হক, উজানচর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি গোলজার হোসেন মৃধা, দেবগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুল ইসলাম, দৌলতদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা গিয়াস প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, ইদানিংকালে কিছু ব্যক্তি বাছাই করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানাভাবে হেয় করা হচ্ছে। সাইবার বুলিংয়ের শিকার হয়ে সমাজে হেয় করা হচ্ছে। সমাজে তাদের প্রতি নেতিবাচক ধারণা তৈরী হচ্ছে। চক্রের হাত থেকে সাইবার বুলিং থেকে রক্ষা পাচ্ছেন না শিক্ষক, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনের কর্তা ব্যক্তিসহ সমাজের অনেক প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তি। অপরাধী চক্রের তৎপরতার সাথে জড়িত রয়েছে তৎকালীন (বাংলা ভাই, শায়েখ আব্দুর রহমানের মতো) নিষিদ্ধ ঘোষিত কিছু দলের অনুসারী হিসেবে পরিচিত ব্যক্তি। গোয়ালন্দ উপজেলায় ওই সময়ের চিহিৃত কিছু ব্যক্তি হঠাৎ মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছেন। তাদের অনুসারীদের দিয়ে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক সম্মানি ব্যক্তিকে হেয় করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা গিয়াস বলেন, সামনে নির্বাচনকে টার্গেট করে হয়তো অপরাধীরা পুনরায় মাথা চাড়া দিয়ে উঠার চেষ্টা করছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের নানা ধরনের আপত্তিকর পোস্টের মাধ্যমে সমাজে যে কোন ধরনের অস্থির পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা করছেন। তাই এই সভা থেকে তাদেরকে চিহিৃত করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানাচ্ছি।

উজানচর ইউপি চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন মৃধা বলেন, ইদানিং কিছু চিহিৃত তরুন, যুবক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একেক সময় একেক ব্যক্তির উদ্দেশ্যে আপত্তিকর কথাবার্তা পোস্ট করে সমাজে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরীর চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছেন। তাদের হাত থেকে স্কুল-কলেজের শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, পুলিশের কর্মকর্তাসহ সমাজের অনেক সম্মানি ব্যক্তি রয়েছেন। সমাজে যাতে কোন ধরনের অস্থির পরিবেশ তৈরী না হয় সেদিকে নজর প্রদানের দাবী জানান।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার বলেন, কাজ করতে গেলে পক্ষে, বিপক্ষে যাবে এটা স্বাভাবিক। বিপক্ষে গেলে তাদের নির্দিষ্ট কিছু ব্যক্তি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানাভাবে হয়রানীর চেষ্টা করছেন। স্কুল-কলেজের শিক্ষক, সাংবাদিক, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা এমনকি পুলিশও হয়রানীর শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ আসছে। এ বিষয়ে সবাইকে সতর্কতা থাকার আহ্বান জানান। সাথে অপরাধীদের চিহিৃত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান।

সভার সভাপতি ইউএনও মো. জাকির হোসেন বলেন, সভায় গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উঠে এসেছে সাইবার বুলিং বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অস্থির পরিবেশ তৈরীর চেষ্টা। অভিযোগ গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরে করনীয় জানতে উর্দ্বোতন কর্মকর্তাদের অবগত করা হবে।