০৫:২৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে পদ্মার দুষ্প্রাপ্য এক ‘ঢাই’ মাছ বিক্রি হলো ২২ হাজারে

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ ‘ঢাই’ মাছ দেখতে অনেকটা পাঙ্গাশ মাছের মতো। রুপালি রঙের আঁশবিহীন মাছ। মুখের আকৃতি পাঙ্গাশের মতো এবং অনকে সুস্বাদু। পদ্মা নদীর ঢাই মাছ মানেই সকলের কাছে যেন বাড়তি পাওয়া। সাধারণত আকারে ১-২ কেজি দেখা যায়। বর্ষা মৌসুমে জেলেদের জালে মাঝে মধ্যে এক-দুটি ধরা পড়ে। বড় ঢাই তো অনেক ভাগ্যের ব্যাপার। যে কারনে অন্যান্য মাছের তুলনায় এর দামও অনেক বেশি।

সোমবার সকালে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার পদ্মা নদীতে জেলেদের জালে ৭ কেজি ১০০ ওজনের একটি বড় ঢাই মাছ ধরা পড়েছে। স্থানীয় জেলে হযরত মন্ডলের জালে মাছটি ধরা পড়ে। দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার উজানে উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের মজলিশপুর এলাকায় জাল তুললে মাছটি পাওয়া যায়।

স্থানীয় মৎস্যজীবীরা জানান, প্রতিদিনের মতো সোমবার (১ জুলাই) ভোরে জাল নিয়ে নদীতে মাছ শিকারে বের হন বাহির চর দৌলতদিয়া চাঁদখান পাড়ার জেলে হযরত মন্ডল। বাহির চর থেকে জাল ফেলে প্রায় ৮ কিলোমিটার দূরে উজানচর ইউপির চর করনেশনা-মজলিশপুর এলাকায় জাল নৌকায় তুলে দেখতে পান বড় একটি ঢাই। সাথে উঠে আসে আরো দুটি ইলিশ মাছ। বিক্রির জন্য নিয়ে আসেন দৌলতদিয়া ঘাট বাজার দুলাল মন্ডলের আড়তে। এ সময় নিলামে তোলা হলে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ী শাহজাহান শেখ মাছ তিনটি কিনেন।

ফেরি ঘাট এলাকার মাছ ব্যবসায়ী শাহজাহান শেখ জানান, পদ্মা নদীর এতবড় ঢাই সাধারণত বছরে এক-দুটি দেখা যায়। এই মৌসুমে এতবড় ঢাই এই প্রথম। মাছটির ওজন ছিল প্রায় ৭ কেজি ১০০ গ্রাম। দুলাল মন্ডলের আড়তে নিলামে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে তিনি ৩ হাজার ২০০ টাকা কেজি দরে ২২ হাজার ৭০০ টাকায় কিনেন। মাছটি তার ফেরি ঘাট আড়ত ঘরে বিক্রির জন্য রেখে দিয়েছেন। কেজি প্রতি তিনি ২০০ টাকা করে লাভ পেলেই বিক্রি করবেন।

শাহজাহান শেখ বলেন, ওই আড়ত থেকে দুটি বড় ইলিশও উঠে। এর একটির ওজন ছিল ১ কেজি এবং অপরটির ওজন ছিল ১ কেজি ১০০ গ্রাম। ইলিশ দুটি ২ হাজার ১৫০ টাকা কেজি দরে ৪ হাজার ৫০০ টাকায় কিনেন। পরে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি ফেরি ঘাট দিয়ে যাওয়ার সময় ৪ হাজার ৬০০ টাকায় কিনে নেন।

গোয়ালন্দ উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত রাজবাড়ী সদর উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা মোস্তফা আল রাজীব বলেন, ঢাই বা শিলং হচ্ছে ক্যাটফিস জাতীয় সুস্বাদু ও স্রোতস্বিনী নদীর আঁশবিহীন রুপালী রঙের মাছ। লম্বায় সাধারণত ১৮৩ সেন্টিমিটার, ওজনে ৩-১০ কেজি হয়। রুপালি রঙ এবং পাখনাগুলো লাল রঙের হয়। অন্যান্য ক্যাটফিসের তুলনায় ডিম কম দেয় এবং বর্ষায় প্রাপ্ত বয়স্করা প্রজননের জন্য ছোট নদী থেকে বড় নদীতে আসে। ঢাই বা শিলং অনেক দুষ্প্রাপ্য এবং অনেক দামি মাছ। আমাদের পদ্মা নদীতে এই মাছ ধরা পড়া মানে জেলেদের জন্য অনেক সুখবর বটে

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

রাজবাড়ীতে পদ্মার দুষ্প্রাপ্য এক ‘ঢাই’ মাছ বিক্রি হলো ২২ হাজারে

পোস্ট হয়েছেঃ ০৯:০৬:৩৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২ জুলাই ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ ‘ঢাই’ মাছ দেখতে অনেকটা পাঙ্গাশ মাছের মতো। রুপালি রঙের আঁশবিহীন মাছ। মুখের আকৃতি পাঙ্গাশের মতো এবং অনকে সুস্বাদু। পদ্মা নদীর ঢাই মাছ মানেই সকলের কাছে যেন বাড়তি পাওয়া। সাধারণত আকারে ১-২ কেজি দেখা যায়। বর্ষা মৌসুমে জেলেদের জালে মাঝে মধ্যে এক-দুটি ধরা পড়ে। বড় ঢাই তো অনেক ভাগ্যের ব্যাপার। যে কারনে অন্যান্য মাছের তুলনায় এর দামও অনেক বেশি।

সোমবার সকালে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার পদ্মা নদীতে জেলেদের জালে ৭ কেজি ১০০ ওজনের একটি বড় ঢাই মাছ ধরা পড়েছে। স্থানীয় জেলে হযরত মন্ডলের জালে মাছটি ধরা পড়ে। দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট থেকে প্রায় ৮ কিলোমিটার উজানে উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের মজলিশপুর এলাকায় জাল তুললে মাছটি পাওয়া যায়।

স্থানীয় মৎস্যজীবীরা জানান, প্রতিদিনের মতো সোমবার (১ জুলাই) ভোরে জাল নিয়ে নদীতে মাছ শিকারে বের হন বাহির চর দৌলতদিয়া চাঁদখান পাড়ার জেলে হযরত মন্ডল। বাহির চর থেকে জাল ফেলে প্রায় ৮ কিলোমিটার দূরে উজানচর ইউপির চর করনেশনা-মজলিশপুর এলাকায় জাল নৌকায় তুলে দেখতে পান বড় একটি ঢাই। সাথে উঠে আসে আরো দুটি ইলিশ মাছ। বিক্রির জন্য নিয়ে আসেন দৌলতদিয়া ঘাট বাজার দুলাল মন্ডলের আড়তে। এ সময় নিলামে তোলা হলে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ী শাহজাহান শেখ মাছ তিনটি কিনেন।

ফেরি ঘাট এলাকার মাছ ব্যবসায়ী শাহজাহান শেখ জানান, পদ্মা নদীর এতবড় ঢাই সাধারণত বছরে এক-দুটি দেখা যায়। এই মৌসুমে এতবড় ঢাই এই প্রথম। মাছটির ওজন ছিল প্রায় ৭ কেজি ১০০ গ্রাম। দুলাল মন্ডলের আড়তে নিলামে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে তিনি ৩ হাজার ২০০ টাকা কেজি দরে ২২ হাজার ৭০০ টাকায় কিনেন। মাছটি তার ফেরি ঘাট আড়ত ঘরে বিক্রির জন্য রেখে দিয়েছেন। কেজি প্রতি তিনি ২০০ টাকা করে লাভ পেলেই বিক্রি করবেন।

শাহজাহান শেখ বলেন, ওই আড়ত থেকে দুটি বড় ইলিশও উঠে। এর একটির ওজন ছিল ১ কেজি এবং অপরটির ওজন ছিল ১ কেজি ১০০ গ্রাম। ইলিশ দুটি ২ হাজার ১৫০ টাকা কেজি দরে ৪ হাজার ৫০০ টাকায় কিনেন। পরে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি ফেরি ঘাট দিয়ে যাওয়ার সময় ৪ হাজার ৬০০ টাকায় কিনে নেন।

গোয়ালন্দ উপজেলার অতিরিক্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত রাজবাড়ী সদর উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা মোস্তফা আল রাজীব বলেন, ঢাই বা শিলং হচ্ছে ক্যাটফিস জাতীয় সুস্বাদু ও স্রোতস্বিনী নদীর আঁশবিহীন রুপালী রঙের মাছ। লম্বায় সাধারণত ১৮৩ সেন্টিমিটার, ওজনে ৩-১০ কেজি হয়। রুপালি রঙ এবং পাখনাগুলো লাল রঙের হয়। অন্যান্য ক্যাটফিসের তুলনায় ডিম কম দেয় এবং বর্ষায় প্রাপ্ত বয়স্করা প্রজননের জন্য ছোট নদী থেকে বড় নদীতে আসে। ঢাই বা শিলং অনেক দুষ্প্রাপ্য এবং অনেক দামি মাছ। আমাদের পদ্মা নদীতে এই মাছ ধরা পড়া মানে জেলেদের জন্য অনেক সুখবর বটে