০৪:১৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

যুবকের অণ্ডকোষ কেটে হত্যার অভিযোগে কালুখালীর ৪ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালুখালী, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মোতালেব ওরফে তালেব শেখ (৪০) নামের এক যুবকের অণ্ডকোষ কেটে হত্যার অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় বিজ্ঞ আদালত অভিযুক্ত ৪জনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড এবং অর্থদণ্ড প্রদান করেছেন। অপর দুইজনকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন। মঙ্গলবার (২ জুলাই) বিকেল ৫টার দিকে রাজবাড়ী জেলা সিনিয়র দায়রা জজ মোসাম্মাৎ জাকিয়া পারভিন এ রায় প্রদান করেন।

এর মধ্যে ৩০২ ধরার রায়ে ৪ জনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান এবং ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরো এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। অপর ২০১ ধারায় তাদের ৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড, ৩ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন আদালত। রায়ে ২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় তাদেরকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। ২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল বিকেলে কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের পাতুরিয়া গড়াই নদীতে মোতালেব ওরফে তালেব শেখের ভাসমান অবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করে থানা পুলিশ।

দণ্ডাদেশ প্রাপ্তরা হলেন, কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের পাতুরিয়া গ্রামের মৃত নেপাল বিশ্বাসের ছেলে নরেশ বিশ্বাস, হাটবাড়ীয়া গ্রামের গোকুল বিশ্বাসের ছেলে সবুজ বিশ্বাস, নিখিল বিশ্বাসের ছেলে বলরাম ওরফে বলাই বিশ্বাস, মৃত কুমারেশ মন্ডলের ছেলে সঞ্জিত মন্ডল। এদের মধ্যে বলরাম ওরফে বলাই বিশ্বাস ও সঞ্জিত মন্ডল পলাতক রয়েছেন। এসময় অনুপ বিশ্বাস ও শুভ মন্ডল নামের দুই জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় অভিযোগের দায় হতে বেকসুর খালাস প্রদান করেন বিজ্ঞ আদালত।

মামলা সূত্র জানায়, ২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল বিকেল ৪টার দিকে কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের পাতুরিয়া গড়াই নদীতে মোতালেব ওরফে তালেব শেখের মরদেহ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পেয়ে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে জানায়। পরে খবর পেয়ে কালুখালী থানা পুলিশ গড়াই নদী থেকে মোতালেবের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজবাড়ীর মর্গে প্রেরণ করে। তার আগে সুরতহালে দেখা যায়, অ-কোষ কেটে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে মোতালেবকে হত্যা করা হয়েছে। এ বিষয়ে নিহত মোতালেবের ভাই মো. রমজান আলী শেখ বাদী হয়ে ওই দিন রাতেই কালুখালী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

রাজবাড়ী জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) উজির আলী শেখ বলেন, হত্যাকাণ্ডটি আলোচিত ও লোমহর্ষক। অণ্ডকোষ কেটে হত্যার পর তার মরদেহ গড়াই নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হয়। মামলায় অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে রাজবাড়ী জেলা সিনিয়র দায়রা জজ মোসাম্মাৎ জাকিয়া পারভিন ৪ জনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রদান ও ২ জনকে বেকসুর খালাস প্রদান করেন। মামলার ৬ আসামীর মধ্যে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রাপ্ত ৪জনের মধ্যে ২জন উপস্থিত ও ২জন পলাতক ছিলেন। পলাতক দুজনের মধ্যে একজন মামলা দায়েরের শুরু থেকে পলাতক ও অপরজন আদালত থেকে জামিনে ছিলেন। বেকসুর খালাসপ্রাপ্ত দুইজনই আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এ রায়ে আমরা সন্তুষ্টি প্রকাশ করছি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

যুবকের অণ্ডকোষ কেটে হত্যার অভিযোগে কালুখালীর ৪ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:৩০:১১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, কালুখালী, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার মোতালেব ওরফে তালেব শেখ (৪০) নামের এক যুবকের অণ্ডকোষ কেটে হত্যার অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় বিজ্ঞ আদালত অভিযুক্ত ৪জনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড এবং অর্থদণ্ড প্রদান করেছেন। অপর দুইজনকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন। মঙ্গলবার (২ জুলাই) বিকেল ৫টার দিকে রাজবাড়ী জেলা সিনিয়র দায়রা জজ মোসাম্মাৎ জাকিয়া পারভিন এ রায় প্রদান করেন।

এর মধ্যে ৩০২ ধরার রায়ে ৪ জনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড প্রদান এবং ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরো এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করেন। অপর ২০১ ধারায় তাদের ৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড, ৩ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো ৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রদান করেন আদালত। রায়ে ২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় তাদেরকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। ২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল বিকেলে কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের পাতুরিয়া গড়াই নদীতে মোতালেব ওরফে তালেব শেখের ভাসমান অবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করে থানা পুলিশ।

দণ্ডাদেশ প্রাপ্তরা হলেন, কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের পাতুরিয়া গ্রামের মৃত নেপাল বিশ্বাসের ছেলে নরেশ বিশ্বাস, হাটবাড়ীয়া গ্রামের গোকুল বিশ্বাসের ছেলে সবুজ বিশ্বাস, নিখিল বিশ্বাসের ছেলে বলরাম ওরফে বলাই বিশ্বাস, মৃত কুমারেশ মন্ডলের ছেলে সঞ্জিত মন্ডল। এদের মধ্যে বলরাম ওরফে বলাই বিশ্বাস ও সঞ্জিত মন্ডল পলাতক রয়েছেন। এসময় অনুপ বিশ্বাস ও শুভ মন্ডল নামের দুই জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমানিত না হওয়ায় অভিযোগের দায় হতে বেকসুর খালাস প্রদান করেন বিজ্ঞ আদালত।

মামলা সূত্র জানায়, ২০১৮ সালের ২৮ এপ্রিল বিকেল ৪টার দিকে কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের পাতুরিয়া গড়াই নদীতে মোতালেব ওরফে তালেব শেখের মরদেহ ভাসমান অবস্থায় দেখতে পেয়ে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে জানায়। পরে খবর পেয়ে কালুখালী থানা পুলিশ গড়াই নদী থেকে মোতালেবের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজবাড়ীর মর্গে প্রেরণ করে। তার আগে সুরতহালে দেখা যায়, অ-কোষ কেটে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে পিটিয়ে মোতালেবকে হত্যা করা হয়েছে। এ বিষয়ে নিহত মোতালেবের ভাই মো. রমজান আলী শেখ বাদী হয়ে ওই দিন রাতেই কালুখালী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।

রাজবাড়ী জজ কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) উজির আলী শেখ বলেন, হত্যাকাণ্ডটি আলোচিত ও লোমহর্ষক। অণ্ডকোষ কেটে হত্যার পর তার মরদেহ গড়াই নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হয়। মামলায় অভিযোগ প্রমানিত হওয়ায় মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে রাজবাড়ী জেলা সিনিয়র দায়রা জজ মোসাম্মাৎ জাকিয়া পারভিন ৪ জনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রদান ও ২ জনকে বেকসুর খালাস প্রদান করেন। মামলার ৬ আসামীর মধ্যে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ প্রাপ্ত ৪জনের মধ্যে ২জন উপস্থিত ও ২জন পলাতক ছিলেন। পলাতক দুজনের মধ্যে একজন মামলা দায়েরের শুরু থেকে পলাতক ও অপরজন আদালত থেকে জামিনে ছিলেন। বেকসুর খালাসপ্রাপ্ত দুইজনই আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এ রায়ে আমরা সন্তুষ্টি প্রকাশ করছি।