০৪:৩৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শহর ছেড়ে ঈদ যাত্রায় গ্রামমুখী মানুষ, দৌলতদিয়ায় লঞ্চে ভিড়

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ আর কয়েকদিন পর মসুলিম সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আযহা। প্রিয়জনের সাথে ঈদ করতে শহর ছেড়ে গ্রামে ছুটতে শুরু করেছে মানুষ। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলগামী অধিকাংশ মানুষ মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাট থেকে ফেরির চেয়ে লঞ্চে নদী পাড়ি দিচ্ছেন। আর এসব মানুষের ভিড় পড়ছে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে। আগের চেয়ে অনেকটা স্বস্তিতেই তারা বাড়ি ফিরতে পারছন বলে অনেকের অভিমত।

রাজধানী ছেড়ে গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ যাচ্ছেন মঞ্জুরুল ইসলাম। তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করেন। বৃহস্পতিবার সকালে পরিবারসহ গ্রামের বাড়ি ফেরার পথে কথা হয় দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে। এসময় তিনি বলেন, পদ্মা সেতু চালুর পর দুই বছর ধরে আমরা অনেকটা স্বস্তিতেই বাড়ি ফিরতে পারছি। আজ সকালে রওয়ানা করে সড়ক পথে গাড়ির কিছুটা চাপ ছাড়া তেমন কোন সমস্যায় পড়িনি। এখন ঘাট থেকে সহজে বাড়ি ফিরতে পারলে আমাদের জন্য ভালো।

সাভারের একটি করপোরেট প্রতিষ্ঠানের মানব সম্পদ বিভাগে চাকুরী করেন মো. সাদ্দাম হোসেন। লঞ্চ থেকে নামার পর তিনি বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই অবদানের জন্য অনেক শান্তশিষ্ট পরিবেশে ঈদ যাত্রায় বাড়ি ফিরতে পারছি। এখন পর্যন্ত কোথাও কোন সমস্যায় পড়তে হয়নি। ঈদ করতে গ্রামের দাদা বাড়ি ফরিদপুরের মধুখালী যাচ্ছি। তবে আগেভাগে রওয়ান করেও লঞ্চে ভিড় পেলাম।

বৃহস্পতিবার সকালে দীর্ঘক্ষণ দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে অপেক্ষা করে দেখা যায়, পাটুরিয়া ঘাট ছেড়ে আসা প্রতিটি লঞ্চে যাত্রীদের ভিড়। সাধারণের চেয়ে কয়েকগুন বেশি যাত্রী বহন করা হচ্ছে। এসময় পন্টুনে দাঁড়িয়ে থাকা ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা যাত্রীদের নামানোর ক্ষেত্রে সহযোগিতা করছেন। সার্বিক বিষয় তদারকি করছেন বিআইডব্লিউটিএর দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

বিআইডব্লিউটিএর ট্রাফিক বিভাগের পরিদর্শক মো. জাকির হোসেন বলেন, ঈদ যাত্রীরা যাতে নির্বিঘেœ বাড়ি ফিরতে পারে এজন্য দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ছোট-বড় মিলে ২০টি লঞ্চ চালু রয়েছে। আজ সকাল থেকে যাত্রীদের চাপ বেড়েছে। ঈদের ছুটিতে এখনই মানুষজন শহর ছেড়ে গ্রামের বাড়ি ফিরতে শুরু করছে।

এদিকে ফেরি ঘাটে ঢাকামুখী যানবাহনের তেমন কোন চাপ দেখা যায়নি। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলগামী পরিবহনের চাপ পাটুরিয়া ঘাটে থাকায় ফেরিগুলো দৌলতদিয়া ঘাটে বেশিক্ষণ অপেক্ষা না করেই দ্রুত ছেড়ে যাচ্ছে। দুই-চারটি যানবাহন যা আসছে সাথে সাথেই তারা ফেরিতে উঠে পাটুরিয়ায় চলে যাচ্ছে। এ ছাড়া কোরবানীর পশুবাহি গাড়ির সংখ্যাও তুলনামূলক কমে গেছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক মো. সালাহ উদ্দিন বলেন, বুধবার সকাল ৬টার থেকে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় প্রায় আড়াই হাজার যানবাহন দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে পাড়ি দিয়েছে। এরমধ্যে পাঁচ শতাধিক শুধু পশুবাহি গাড়িই ছিল। আজ দিনের বেলায় পশুবাহি গাড়ির চাপ কমে অনেকটা স্বাভাবিক হয়েছে। বর্তমানে এই নৌপথে ছোট-বড় মিলে ১৮টি ফেরি চলাচল করছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

শহর ছেড়ে ঈদ যাত্রায় গ্রামমুখী মানুষ, দৌলতদিয়ায় লঞ্চে ভিড়

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:০০:৪১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ আর কয়েকদিন পর মসুলিম সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আযহা। প্রিয়জনের সাথে ঈদ করতে শহর ছেড়ে গ্রামে ছুটতে শুরু করেছে মানুষ। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলগামী অধিকাংশ মানুষ মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাট থেকে ফেরির চেয়ে লঞ্চে নদী পাড়ি দিচ্ছেন। আর এসব মানুষের ভিড় পড়ছে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে। আগের চেয়ে অনেকটা স্বস্তিতেই তারা বাড়ি ফিরতে পারছন বলে অনেকের অভিমত।

রাজধানী ছেড়ে গ্রামের বাড়ি গোপালগঞ্জ যাচ্ছেন মঞ্জুরুল ইসলাম। তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করেন। বৃহস্পতিবার সকালে পরিবারসহ গ্রামের বাড়ি ফেরার পথে কথা হয় দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে। এসময় তিনি বলেন, পদ্মা সেতু চালুর পর দুই বছর ধরে আমরা অনেকটা স্বস্তিতেই বাড়ি ফিরতে পারছি। আজ সকালে রওয়ানা করে সড়ক পথে গাড়ির কিছুটা চাপ ছাড়া তেমন কোন সমস্যায় পড়িনি। এখন ঘাট থেকে সহজে বাড়ি ফিরতে পারলে আমাদের জন্য ভালো।

সাভারের একটি করপোরেট প্রতিষ্ঠানের মানব সম্পদ বিভাগে চাকুরী করেন মো. সাদ্দাম হোসেন। লঞ্চ থেকে নামার পর তিনি বলেন, আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই অবদানের জন্য অনেক শান্তশিষ্ট পরিবেশে ঈদ যাত্রায় বাড়ি ফিরতে পারছি। এখন পর্যন্ত কোথাও কোন সমস্যায় পড়তে হয়নি। ঈদ করতে গ্রামের দাদা বাড়ি ফরিদপুরের মধুখালী যাচ্ছি। তবে আগেভাগে রওয়ান করেও লঞ্চে ভিড় পেলাম।

বৃহস্পতিবার সকালে দীর্ঘক্ষণ দৌলতদিয়া লঞ্চ ঘাটে অপেক্ষা করে দেখা যায়, পাটুরিয়া ঘাট ছেড়ে আসা প্রতিটি লঞ্চে যাত্রীদের ভিড়। সাধারণের চেয়ে কয়েকগুন বেশি যাত্রী বহন করা হচ্ছে। এসময় পন্টুনে দাঁড়িয়ে থাকা ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা যাত্রীদের নামানোর ক্ষেত্রে সহযোগিতা করছেন। সার্বিক বিষয় তদারকি করছেন বিআইডব্লিউটিএর দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

বিআইডব্লিউটিএর ট্রাফিক বিভাগের পরিদর্শক মো. জাকির হোসেন বলেন, ঈদ যাত্রীরা যাতে নির্বিঘেœ বাড়ি ফিরতে পারে এজন্য দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে ছোট-বড় মিলে ২০টি লঞ্চ চালু রয়েছে। আজ সকাল থেকে যাত্রীদের চাপ বেড়েছে। ঈদের ছুটিতে এখনই মানুষজন শহর ছেড়ে গ্রামের বাড়ি ফিরতে শুরু করছে।

এদিকে ফেরি ঘাটে ঢাকামুখী যানবাহনের তেমন কোন চাপ দেখা যায়নি। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলগামী পরিবহনের চাপ পাটুরিয়া ঘাটে থাকায় ফেরিগুলো দৌলতদিয়া ঘাটে বেশিক্ষণ অপেক্ষা না করেই দ্রুত ছেড়ে যাচ্ছে। দুই-চারটি যানবাহন যা আসছে সাথে সাথেই তারা ফেরিতে উঠে পাটুরিয়ায় চলে যাচ্ছে। এ ছাড়া কোরবানীর পশুবাহি গাড়ির সংখ্যাও তুলনামূলক কমে গেছে।

বিআইডব্লিউটিসি দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক মো. সালাহ উদ্দিন বলেন, বুধবার সকাল ৬টার থেকে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘন্টায় প্রায় আড়াই হাজার যানবাহন দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে পাড়ি দিয়েছে। এরমধ্যে পাঁচ শতাধিক শুধু পশুবাহি গাড়িই ছিল। আজ দিনের বেলায় পশুবাহি গাড়ির চাপ কমে অনেকটা স্বাভাবিক হয়েছে। বর্তমানে এই নৌপথে ছোট-বড় মিলে ১৮টি ফেরি চলাচল করছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।