০৮:৪৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মেসি কাঁদলেন, সবাইকে কাঁদিয়ে বিদায় নিলেন

অবশেষে মেসি এলেন। সংবাদ সম্মেলনকক্ষের দরজা দিয়ে ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি উচ্চতার মানুষটি ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে অনেকে তাঁদের আসন ছেড়ে উঠে দাঁড়ালেন। মেসির হৃদয়ের অনেকটা জুড়েই বার্সেলোনা, সেই ক্লাবকে বিদায় বলাটা এত সহজ নয়।

সংবাদ সম্মেলনকক্ষে নিজেকে সামলে নিতে একটু সময় নিলেন। এরপর শুরু করলেন কথা। প্রশ্নোত্তর পর্ব শুরুর আগে বিদায়ী বক্তব্যের শুরুতে মেসি বললেন, ‘গত কয়েক দিনে অনেক ভেবেছি, কী বলব এখানে। সত্যিটা হচ্ছে, কী বলব বুঝে উঠতে পারছি না। জীবনের এতগুলো বছর এখানে কাটানোর পর আমার জন্য এই দিনটা অনেক বেশি কঠিন।’

এতটুকু বলার পর গলাটা যেন ধরে এল মেসির। একটু থামলেন, কাঁদলেন, টিস্যু দিয়ে চোখ মুছলেন। সংবাদ সম্মেলনকক্ষে তখন কাঁদতে শুরু করে দিয়েছেন অনেকেই। মেসির কান্না সংক্রমিত হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে বুসকেতস, পিকে আলাবাদের চোখে। নিজেকে একটু সামলে নিয়ে মেসি আবার শুরু করেন, ‘গত বছর বুরোফ্যাক্স নিয়ে নাটকের সময় (ক্লাব ছাড়তে হলে) আমি কী বলব, সেটা ঠিক করে রেখেছিলাম। কিন্তু এ বছর সবকিছু অনেক ভিন্ন। এটা আমার ঘর, আমাদের ঘর। আমি এখানে থাকতে চেয়েছিলাম। সেটাই পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু আজ সবকিছু ছেড়ে যেতে হচ্ছে।’

নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি মেসি

নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি মেসি এএফপি

মেসি কিছুতেই কান্না আটকে রাখতে পারছিলেন না। কথা বলতে বলতেই আবার কাঁদতে শুরু করেন। আবার থামেন, চোখ মুছে নিজেকে সামলে নিয়ে আবার বলতে শুরু করেন, ‘আমি এ ক্লাবেই বেড়ে উঠেছি। আমি আজ যা, তা এখানে এসেই হয়েছি। কখনো যে এমন দিন আসবে, তা আমি ভাবতেই পারিনি। বার্সেলোনা বিশ্বের সেরা ক্লাব।

বার্সেলোনায় মেসির শেষদিনে সমর্থকদের ভীড়

বার্সেলোনায় মেসির শেষদিনে সমর্থকদের ভীড় রয়টার্স

প্রতিটা বিষয়ে মেসির বক্তব্যের পরই দর্শকসারি থেকে ভেসে এসেছে হাততালির শব্দ। মেসির কণ্ঠও বাষ্পরুদ্ধ হয়ে আসছিল বারবার। সেই কান্না থামিয়ে ক্লাবকে শেষবারের মতো বিদায় বলার পর্বটি শুরু করেন মেসি, ‘১৩ বছর বয়সে এখানে এসেছিলাম আমি। আজ ২১ বছর পর ক্লাব ছেড়ে যাচ্ছি। আমি, আমার স্ত্রী, আমার তিন কাতালান-আর্জেন্টাইন সন্তান…। ক্লাবটাতে যা করেছি, তা নিয়ে আমি গর্বিত।’

এরপর আর চাপাকান্না নয়, বিদায়ের কথা বলতে গিয়ে মেসি অঝোরে কাঁদতে শুরু করেন। বাকিদের চোখেও তখন জল। বিদায় নামের কঠিন কথার মানে হয়তো এখনো বুঝে উঠতে পারেনি মেসির ছোট ছেলে। চেয়ারে বসে নড়াচড়া করছিল সে। কিন্তু বাবার চোখে জল দেখে আর বাবাকে বিদায় বলতে শুনে একদমই চুপ হয়ে যায় বড় আর মেজ ছেলে!

ছিল মেসির পরিবারও

ছিল মেসির পরিবারও রয়টার্স

মেসি বক্তৃতা শেষ করেন আবারও বার্সেলোনায় ফিরে আসার প্রতিজ্ঞার কথা জানিয়ে, ‘দেড় বছর ধরে মাঠে আমাদের সমর্থকদের দেখতে পাইনি। তাঁদের না দেখে বিদায় নিতে হচ্ছে, এই ব্যাপারটাই বেশি কষ্ট দিচ্ছে। তবে আমি এখানে আবার ফিরব, এটা আমার ঘর। আমার সন্তানদেরও আমি কথা দিয়েছি, আমি আবার এখানে ফিরে আসব।’

এরপর সংবাদ সম্মেলনকক্ষে থাকা সবাই উঠে দাঁড়িয়ে করতালি দিয়ে মেসিকে সম্মান জানান। উঠে দাঁড়ান মেসির স্ত্রী রোকুজ্জোও। তাঁর বড় ও মেজ ছেলে চুপচাপ বসে ছিল নিজেদের আসনে। ছোট ছেলেটা তখনো বুঝে উঠতে পারছিল না কিছুই। এরপরই শুরু হয় প্রশ্নোত্তর পর্ব, বার্সেলোনায় মেসির শেষ সংবাদ সম্মেলন। (তথ্য সূত্রঃ প্রথম আলো)

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

মেসি কাঁদলেন, সবাইকে কাঁদিয়ে বিদায় নিলেন

পোস্ট হয়েছেঃ ০৭:৪৮:২৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৯ অগাস্ট ২০২১

অবশেষে মেসি এলেন। সংবাদ সম্মেলনকক্ষের দরজা দিয়ে ৫ ফুট ৭ ইঞ্চি উচ্চতার মানুষটি ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে অনেকে তাঁদের আসন ছেড়ে উঠে দাঁড়ালেন। মেসির হৃদয়ের অনেকটা জুড়েই বার্সেলোনা, সেই ক্লাবকে বিদায় বলাটা এত সহজ নয়।

সংবাদ সম্মেলনকক্ষে নিজেকে সামলে নিতে একটু সময় নিলেন। এরপর শুরু করলেন কথা। প্রশ্নোত্তর পর্ব শুরুর আগে বিদায়ী বক্তব্যের শুরুতে মেসি বললেন, ‘গত কয়েক দিনে অনেক ভেবেছি, কী বলব এখানে। সত্যিটা হচ্ছে, কী বলব বুঝে উঠতে পারছি না। জীবনের এতগুলো বছর এখানে কাটানোর পর আমার জন্য এই দিনটা অনেক বেশি কঠিন।’

এতটুকু বলার পর গলাটা যেন ধরে এল মেসির। একটু থামলেন, কাঁদলেন, টিস্যু দিয়ে চোখ মুছলেন। সংবাদ সম্মেলনকক্ষে তখন কাঁদতে শুরু করে দিয়েছেন অনেকেই। মেসির কান্না সংক্রমিত হয়ে ছড়িয়ে পড়েছে বুসকেতস, পিকে আলাবাদের চোখে। নিজেকে একটু সামলে নিয়ে মেসি আবার শুরু করেন, ‘গত বছর বুরোফ্যাক্স নিয়ে নাটকের সময় (ক্লাব ছাড়তে হলে) আমি কী বলব, সেটা ঠিক করে রেখেছিলাম। কিন্তু এ বছর সবকিছু অনেক ভিন্ন। এটা আমার ঘর, আমাদের ঘর। আমি এখানে থাকতে চেয়েছিলাম। সেটাই পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু আজ সবকিছু ছেড়ে যেতে হচ্ছে।’

নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি মেসি

নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি মেসি এএফপি

মেসি কিছুতেই কান্না আটকে রাখতে পারছিলেন না। কথা বলতে বলতেই আবার কাঁদতে শুরু করেন। আবার থামেন, চোখ মুছে নিজেকে সামলে নিয়ে আবার বলতে শুরু করেন, ‘আমি এ ক্লাবেই বেড়ে উঠেছি। আমি আজ যা, তা এখানে এসেই হয়েছি। কখনো যে এমন দিন আসবে, তা আমি ভাবতেই পারিনি। বার্সেলোনা বিশ্বের সেরা ক্লাব।

বার্সেলোনায় মেসির শেষদিনে সমর্থকদের ভীড়

বার্সেলোনায় মেসির শেষদিনে সমর্থকদের ভীড় রয়টার্স

প্রতিটা বিষয়ে মেসির বক্তব্যের পরই দর্শকসারি থেকে ভেসে এসেছে হাততালির শব্দ। মেসির কণ্ঠও বাষ্পরুদ্ধ হয়ে আসছিল বারবার। সেই কান্না থামিয়ে ক্লাবকে শেষবারের মতো বিদায় বলার পর্বটি শুরু করেন মেসি, ‘১৩ বছর বয়সে এখানে এসেছিলাম আমি। আজ ২১ বছর পর ক্লাব ছেড়ে যাচ্ছি। আমি, আমার স্ত্রী, আমার তিন কাতালান-আর্জেন্টাইন সন্তান…। ক্লাবটাতে যা করেছি, তা নিয়ে আমি গর্বিত।’

এরপর আর চাপাকান্না নয়, বিদায়ের কথা বলতে গিয়ে মেসি অঝোরে কাঁদতে শুরু করেন। বাকিদের চোখেও তখন জল। বিদায় নামের কঠিন কথার মানে হয়তো এখনো বুঝে উঠতে পারেনি মেসির ছোট ছেলে। চেয়ারে বসে নড়াচড়া করছিল সে। কিন্তু বাবার চোখে জল দেখে আর বাবাকে বিদায় বলতে শুনে একদমই চুপ হয়ে যায় বড় আর মেজ ছেলে!

ছিল মেসির পরিবারও

ছিল মেসির পরিবারও রয়টার্স

মেসি বক্তৃতা শেষ করেন আবারও বার্সেলোনায় ফিরে আসার প্রতিজ্ঞার কথা জানিয়ে, ‘দেড় বছর ধরে মাঠে আমাদের সমর্থকদের দেখতে পাইনি। তাঁদের না দেখে বিদায় নিতে হচ্ছে, এই ব্যাপারটাই বেশি কষ্ট দিচ্ছে। তবে আমি এখানে আবার ফিরব, এটা আমার ঘর। আমার সন্তানদেরও আমি কথা দিয়েছি, আমি আবার এখানে ফিরে আসব।’

এরপর সংবাদ সম্মেলনকক্ষে থাকা সবাই উঠে দাঁড়িয়ে করতালি দিয়ে মেসিকে সম্মান জানান। উঠে দাঁড়ান মেসির স্ত্রী রোকুজ্জোও। তাঁর বড় ও মেজ ছেলে চুপচাপ বসে ছিল নিজেদের আসনে। ছোট ছেলেটা তখনো বুঝে উঠতে পারছিল না কিছুই। এরপরই শুরু হয় প্রশ্নোত্তর পর্ব, বার্সেলোনায় মেসির শেষ সংবাদ সম্মেলন। (তথ্য সূত্রঃ প্রথম আলো)