০৯:৩০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অর্থ সঙ্কটে রিয়াদে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত একমাত্র ছেলের লাশ আনা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পরিবার

শামীম শেখ, গোয়ালন্দঃ পরিবারের অভাব দূর করতে মাত্র দেড় বছর আগে অনেক স্বপ্ন নিয়ে সৌদি আরব পাড়ি জমান জাহাঙ্গীর মোল্লা (৩৫)। অর্থনৈতিক সঙ্কট দূর হওয়ার আগেই ২৬ মে সড়ক দুর্ঘটনায় রিয়াদে মারা যান। একদিকে অর্থ সঙ্কটে ছেলের লাশ আনা নিয়ে অনিশ্চয়তায় ভুগছে পাশাপাশি একমাত্র উপার্জনক্ষম ছেলেকে হারিয়ে অসহায় হয়ে পরেছে পরিবার। জাহাঙ্গীর রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের হাউলি কেউটিল গ্রামের ইয়াছিন মোল্লার একমাত্র ছেলে।

নিহত সৌদি প্রবাসী জাহাঙ্গীর মোল্লার পরিবার জানায়, শুক্রবার (২৬ মে) বিকেলে সৌদি আরবের রিয়াদে সড়ক দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই মারা যায় জাহাঙ্গীর। ওইদিন সন্ধ্যার আগে সড়ক দুর্ঘটনায় জাহাঙ্গীরের মৃত্যুর খবর পরিবারকে ফোনে জানায়। বাড়িতে ফোনটি ধরেন তার স্ত্রী লিপি আক্তার। জাহাঙ্গীর-লিপি আক্তারের ঘরে রয়েছে তিন ছেলে সন্তান। বড় ছেলের বয়স ১০ বছর, মেঝ ছেলের বয়স ৪ বছর আর ছোট ছেলের বয়স মাত্র ১১ মাস।

পরিবার জানায়, রাজবাড়ী সদরের লালগোলা গ্রামে তাদের বাড়ি ছিল। তিন বছর আগে পদ্মার ভাঙনে সবকিছু বিলীন হলে গোয়ালন্দের হাউলি কেউটিল রেললাইনের পাশে স্থানীয় এক জনের কাছ থেকে ৭ শতাংশ জায়গার ওপর একটি চৌচালা টিনের ঘর কিনে উঠে পড়েন। অর্থ সঙ্কটে অসহায় জাহাঙ্গীর শ্বশুর বাড়ি থেকে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা, দুই বোন ও এনজিও থেকে ঋনগ্রস্ত হয়ে সাড়ে চার লক্ষাধিক টাকা খরচ করে সৌদি আরব পাড়ি জমায়। সেখানে কাজ ঠিকমতো করতে না পারায় অনেক কষ্ট করতে হয়। মাঝেমধ্যে কিছু টাকা পাঠালে তাই দিয়ে চলে সংসার। দেড় বছরে সবেমাত্র লক্ষাধিক টাকার ঋন শেষ করতে পেরেছিলেন।

শুক্রবার (২ জুন) দুপুরে সরেজমিন বাড়িতে দেখা যায়, বেশ কয়েকজন প্রতিবেশী মহিলা জাহাঙ্গীরের বাবা-মা ঘিরে বসে আছেন। আমাদের সাংবাদিক পরিচয় পাওয়া মাত্রই মা রাবেয়া বেগম এবং বাবা ইয়াছিন মোল্লা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

একমাত্র ছেলে হারিয়ে মা রাবেয়া বেগম কান্না করে বলছিলেন, “ওই দিন সকালে আমারে শুধু বইলা গেল মা আমি কাজে যাচ্ছি। এরপর আর কোন কথা কইলোনা রে। ওরে আমার ব্যাটারে তোমরা আমার ব্যাটারে আইনা দাও। আমি কোথায় গেলে ব্যাটারে পাবো রে। আমারে মা কইয়া ডাক দিবে ক্যারা রে। আমি অহন কি নিইয়া বাচমু রে, ওরে আমার ব্যাটা”।

বাবা ইয়াছিন মোল্লা বলেন, বড় দুই মেয়ের পর ছেলে জাহাঙ্গীর এরপর আরেক মেয়ের জন্ম। নদী ভাঙনে সব শেষ হয়ে গেলে অসহায় হয়ে পড়ি। নারায়ণগঞ্জের একটি পোশাক কারখানার রঙের শ্রমিকের কাজ করতেন তিনি। গত বছর ঈদুল ফিতরের আগে অসুস্থ্য হলে বাড়ি ফিরে আসেন। এরপর থেকে কিছুই করতে পারেননা। সংসারে তারা স্বামী-স্ত্রী, জাহাঙ্গীরের স্ত্রী ও তিন নাতীসহ ছয় সদস্যের একমাত্র ভরসা ছিল জাহাঙ্গীর। এখন কিভাবে চলবে এই পরিবার।

তিনি বলেন, ২৬ মে সকালে ফোনে শুধু বলেছিল, “বাবা কাজে যাচ্ছি। দুই-তিন দিনের মধ্যে কিছু পাঠাইয়া দিব”। এরপর সন্ধ্যার আগে ফোন আসে জাহাঙ্গীর মারা গেছে। আমার একমাত্র ছেলের লাশ চাই। কিন্তু লাশ আনতে চার লাখ টাকা লাগবে। এত টাকা কোথায় পাব। এখনো তিন লাখ টাকা দেনা শোধ করতে পারি নাই। আমরা টিএনও (ইউএনও) স্যারের কাছে গেছিলাম।

জাহাঙ্গীরের স্ত্রী লিপি আক্তার বলেন, ছোট ছেলে ৬ মাসের পেটে রেখে ওর বাবা সৌদি আরব যায়। ২৬ মে বেলা ১১টার দিকে ফোন করে শুধু বলেছিল সবার দিকে খেয়াল রাইখো। কয়েকদিনের মধ্যে কিছু টাকা পাঠাবো। এরপর আর কথা হয়নি। বিকেল ৫টার পর একজন ফোনে জানায়, সে এক্সিডেন্ট করেছে। এরপর শুনি আর বেঁচে নেই।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন বলেন, গত বৃহস্পতিবার পরিবারটি আমার কার্যালয়ে এসেছিল। বিষয়টি জানালে সরকারি খরচে লাশ দেশে ফিরিয়ে আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিতভাবে আবেদন করেছি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

অর্থ সঙ্কটে রিয়াদে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত একমাত্র ছেলের লাশ আনা নিয়ে দুশ্চিন্তায় পরিবার

পোস্ট হয়েছেঃ ০১:৪৪:৩৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ৪ জুন ২০২৩

শামীম শেখ, গোয়ালন্দঃ পরিবারের অভাব দূর করতে মাত্র দেড় বছর আগে অনেক স্বপ্ন নিয়ে সৌদি আরব পাড়ি জমান জাহাঙ্গীর মোল্লা (৩৫)। অর্থনৈতিক সঙ্কট দূর হওয়ার আগেই ২৬ মে সড়ক দুর্ঘটনায় রিয়াদে মারা যান। একদিকে অর্থ সঙ্কটে ছেলের লাশ আনা নিয়ে অনিশ্চয়তায় ভুগছে পাশাপাশি একমাত্র উপার্জনক্ষম ছেলেকে হারিয়ে অসহায় হয়ে পরেছে পরিবার। জাহাঙ্গীর রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের হাউলি কেউটিল গ্রামের ইয়াছিন মোল্লার একমাত্র ছেলে।

নিহত সৌদি প্রবাসী জাহাঙ্গীর মোল্লার পরিবার জানায়, শুক্রবার (২৬ মে) বিকেলে সৌদি আরবের রিয়াদে সড়ক দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলেই মারা যায় জাহাঙ্গীর। ওইদিন সন্ধ্যার আগে সড়ক দুর্ঘটনায় জাহাঙ্গীরের মৃত্যুর খবর পরিবারকে ফোনে জানায়। বাড়িতে ফোনটি ধরেন তার স্ত্রী লিপি আক্তার। জাহাঙ্গীর-লিপি আক্তারের ঘরে রয়েছে তিন ছেলে সন্তান। বড় ছেলের বয়স ১০ বছর, মেঝ ছেলের বয়স ৪ বছর আর ছোট ছেলের বয়স মাত্র ১১ মাস।

পরিবার জানায়, রাজবাড়ী সদরের লালগোলা গ্রামে তাদের বাড়ি ছিল। তিন বছর আগে পদ্মার ভাঙনে সবকিছু বিলীন হলে গোয়ালন্দের হাউলি কেউটিল রেললাইনের পাশে স্থানীয় এক জনের কাছ থেকে ৭ শতাংশ জায়গার ওপর একটি চৌচালা টিনের ঘর কিনে উঠে পড়েন। অর্থ সঙ্কটে অসহায় জাহাঙ্গীর শ্বশুর বাড়ি থেকে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা, দুই বোন ও এনজিও থেকে ঋনগ্রস্ত হয়ে সাড়ে চার লক্ষাধিক টাকা খরচ করে সৌদি আরব পাড়ি জমায়। সেখানে কাজ ঠিকমতো করতে না পারায় অনেক কষ্ট করতে হয়। মাঝেমধ্যে কিছু টাকা পাঠালে তাই দিয়ে চলে সংসার। দেড় বছরে সবেমাত্র লক্ষাধিক টাকার ঋন শেষ করতে পেরেছিলেন।

শুক্রবার (২ জুন) দুপুরে সরেজমিন বাড়িতে দেখা যায়, বেশ কয়েকজন প্রতিবেশী মহিলা জাহাঙ্গীরের বাবা-মা ঘিরে বসে আছেন। আমাদের সাংবাদিক পরিচয় পাওয়া মাত্রই মা রাবেয়া বেগম এবং বাবা ইয়াছিন মোল্লা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

একমাত্র ছেলে হারিয়ে মা রাবেয়া বেগম কান্না করে বলছিলেন, “ওই দিন সকালে আমারে শুধু বইলা গেল মা আমি কাজে যাচ্ছি। এরপর আর কোন কথা কইলোনা রে। ওরে আমার ব্যাটারে তোমরা আমার ব্যাটারে আইনা দাও। আমি কোথায় গেলে ব্যাটারে পাবো রে। আমারে মা কইয়া ডাক দিবে ক্যারা রে। আমি অহন কি নিইয়া বাচমু রে, ওরে আমার ব্যাটা”।

বাবা ইয়াছিন মোল্লা বলেন, বড় দুই মেয়ের পর ছেলে জাহাঙ্গীর এরপর আরেক মেয়ের জন্ম। নদী ভাঙনে সব শেষ হয়ে গেলে অসহায় হয়ে পড়ি। নারায়ণগঞ্জের একটি পোশাক কারখানার রঙের শ্রমিকের কাজ করতেন তিনি। গত বছর ঈদুল ফিতরের আগে অসুস্থ্য হলে বাড়ি ফিরে আসেন। এরপর থেকে কিছুই করতে পারেননা। সংসারে তারা স্বামী-স্ত্রী, জাহাঙ্গীরের স্ত্রী ও তিন নাতীসহ ছয় সদস্যের একমাত্র ভরসা ছিল জাহাঙ্গীর। এখন কিভাবে চলবে এই পরিবার।

তিনি বলেন, ২৬ মে সকালে ফোনে শুধু বলেছিল, “বাবা কাজে যাচ্ছি। দুই-তিন দিনের মধ্যে কিছু পাঠাইয়া দিব”। এরপর সন্ধ্যার আগে ফোন আসে জাহাঙ্গীর মারা গেছে। আমার একমাত্র ছেলের লাশ চাই। কিন্তু লাশ আনতে চার লাখ টাকা লাগবে। এত টাকা কোথায় পাব। এখনো তিন লাখ টাকা দেনা শোধ করতে পারি নাই। আমরা টিএনও (ইউএনও) স্যারের কাছে গেছিলাম।

জাহাঙ্গীরের স্ত্রী লিপি আক্তার বলেন, ছোট ছেলে ৬ মাসের পেটে রেখে ওর বাবা সৌদি আরব যায়। ২৬ মে বেলা ১১টার দিকে ফোন করে শুধু বলেছিল সবার দিকে খেয়াল রাইখো। কয়েকদিনের মধ্যে কিছু টাকা পাঠাবো। এরপর আর কথা হয়নি। বিকেল ৫টার পর একজন ফোনে জানায়, সে এক্সিডেন্ট করেছে। এরপর শুনি আর বেঁচে নেই।

গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন বলেন, গত বৃহস্পতিবার পরিবারটি আমার কার্যালয়ে এসেছিল। বিষয়টি জানালে সরকারি খরচে লাশ দেশে ফিরিয়ে আনতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিতভাবে আবেদন করেছি।