০৮:০৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে জোরপূর্বক শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচরে ৮ বছর বয়সী এক শিশুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ পেয়ে থানা পুলিশ বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকা থেকে অভিযুক্ত মো. মজিবর শেখকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃত মজিবর শেখ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের গফুর মাতুব্বর পাড়ার হাকিম শেখ এর ছেলে।

এ ঘটনায় শিশুটির মা বাদী হয়ে বুধবার দিবাগত মধ্যরাতে মজিবর শেখকে অভিযুক্ত করে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন।

অভিযোগে শিশুটির মা জানায়, তার স্বামী এলাকায় থাকেন না। সংসারে দুই মেয়ের মধ্যে বড় মেয়েকে অনেক আগে বিয়ে দিয়েছেন। তিনি স্থানীয় একটি মুরগির খামারে শ্রমিক হিসেবে কাজ করায় প্রতিদিন ছোট এই শিশু মেয়েটিকে বাড়িতে রেখে কাজে যান। প্রতিদিনের মতো বুধবার (২ আগষ্ট) সকালে ৮ বছর বয়সী শিশু মেয়েটিকে বাড়িতে রেখে সে মুরগির খামারে কাজে যান। সন্ধ্যার দিকে বাড়িতে প্রবেশের সময় হঠাৎ করে মেয়ের চিৎকারের আওয়াজ শুনতে পান। দৌড়ে বাড়ির উঠানে গিয়ে দেখেন ঘর থেকে মজিবর দৌড়ে পালিয়ে যাচ্ছে। এ সময় ঘরের ভিতর চৌকিতে নগ্ন অবস্থায় শিশু মেয়েকে কান্না করতে দেখেন। কারন জানতে চাইলে এ সময় শিশুটি তার মাকে জানায়, প্রতিবেশী মজিবর শেখ বাড়িতে একা পেয়ে তাকে ঘরের ভিতর চৌকিতে নিয়ে জোরপূর্বক প্যান্ট খুলে ধর্ষণের চেষ্টা করে। পরে বিষয়টি তিনি তাৎক্ষনিক প্রতিবেশীসহ এলাকাবাসীকে অবগত করেন।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, শিশু ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়ার পর এলাকার কয়েকজন তরুন-যুবক ধাওয়া দিয়ে রাতইে মজিবরকে আটক করে গন ধোলাই দেয়। মজিবরের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ এর আগেও কয়েকবার পাওয়া গেছে। এলাকার লোকজন স্থানীয়ভাবে শালিস বৈঠকে বসে তাকে সংশোধনের সুযোগ দিলেও কিছুদিন পর পুনরায় একই ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ে। গন ধোলাই খেয়ে পরিবারের লোকজন চিকিৎসার জন্য মজিবরকে রাতেই গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এদিকে শিশুটির মা বুধবার দিবাগত মধ্য রাতেই বাদী হয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেন। খবর পেয়ে হাসপাতাল থেকে মজিবর পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তাকে হাসপাতাল এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার জানান, বুধবার দিবাগত মধ্যরাতে শিশুটির মা বাদী হয়ে থানায় মজিবরকে অভিযুক্ত করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা (নং-৩) দায়ের করেন। পুলিশ খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৩টার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকা থেকে অভিযুক্ত মজিবরকে গ্রেপ্তার করে। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে রাজবাড়ীর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

গোয়ালন্দে জোরপূর্বক শিশু ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:৪০:৪৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩ অগাস্ট ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচরে ৮ বছর বয়সী এক শিশুকে জোরপূর্বক ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ পেয়ে থানা পুলিশ বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকা থেকে অভিযুক্ত মো. মজিবর শেখকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃত মজিবর শেখ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের গফুর মাতুব্বর পাড়ার হাকিম শেখ এর ছেলে।

এ ঘটনায় শিশুটির মা বাদী হয়ে বুধবার দিবাগত মধ্যরাতে মজিবর শেখকে অভিযুক্ত করে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় একটি ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন।

অভিযোগে শিশুটির মা জানায়, তার স্বামী এলাকায় থাকেন না। সংসারে দুই মেয়ের মধ্যে বড় মেয়েকে অনেক আগে বিয়ে দিয়েছেন। তিনি স্থানীয় একটি মুরগির খামারে শ্রমিক হিসেবে কাজ করায় প্রতিদিন ছোট এই শিশু মেয়েটিকে বাড়িতে রেখে কাজে যান। প্রতিদিনের মতো বুধবার (২ আগষ্ট) সকালে ৮ বছর বয়সী শিশু মেয়েটিকে বাড়িতে রেখে সে মুরগির খামারে কাজে যান। সন্ধ্যার দিকে বাড়িতে প্রবেশের সময় হঠাৎ করে মেয়ের চিৎকারের আওয়াজ শুনতে পান। দৌড়ে বাড়ির উঠানে গিয়ে দেখেন ঘর থেকে মজিবর দৌড়ে পালিয়ে যাচ্ছে। এ সময় ঘরের ভিতর চৌকিতে নগ্ন অবস্থায় শিশু মেয়েকে কান্না করতে দেখেন। কারন জানতে চাইলে এ সময় শিশুটি তার মাকে জানায়, প্রতিবেশী মজিবর শেখ বাড়িতে একা পেয়ে তাকে ঘরের ভিতর চৌকিতে নিয়ে জোরপূর্বক প্যান্ট খুলে ধর্ষণের চেষ্টা করে। পরে বিষয়টি তিনি তাৎক্ষনিক প্রতিবেশীসহ এলাকাবাসীকে অবগত করেন।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, শিশু ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ পাওয়ার পর এলাকার কয়েকজন তরুন-যুবক ধাওয়া দিয়ে রাতইে মজিবরকে আটক করে গন ধোলাই দেয়। মজিবরের বিরুদ্ধে এ ধরনের অভিযোগ এর আগেও কয়েকবার পাওয়া গেছে। এলাকার লোকজন স্থানীয়ভাবে শালিস বৈঠকে বসে তাকে সংশোধনের সুযোগ দিলেও কিছুদিন পর পুনরায় একই ধরনের অপরাধে জড়িয়ে পড়ে। গন ধোলাই খেয়ে পরিবারের লোকজন চিকিৎসার জন্য মজিবরকে রাতেই গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

এদিকে শিশুটির মা বুধবার দিবাগত মধ্য রাতেই বাদী হয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ দায়ের করেন। খবর পেয়ে হাসপাতাল থেকে মজিবর পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তাকে হাসপাতাল এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) স্বপন কুমার মজুমদার জানান, বুধবার দিবাগত মধ্যরাতে শিশুটির মা বাদী হয়ে থানায় মজিবরকে অভিযুক্ত করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা (নং-৩) দায়ের করেন। পুলিশ খবর পেয়ে রাত সাড়ে ৩টার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এলাকা থেকে অভিযুক্ত মজিবরকে গ্রেপ্তার করে। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে রাজবাড়ীর আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান।