০৮:০৫ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গ্রামের অসহায় মানুষের মাঝে চিত্রনায়িকা রোজিনার শাড়ি-লুঙ্গি ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ আশির দশকের জনপ্রিয় চলচিত্র অভিনেত্রী চিত্র নায়িকা রোজিনা শতাধিক দুস্থ নারী ও পুরুষের মাঝে শাড়ি, লুঙ্গি ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেছেন। শনিবার দুপুরে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌরসভার জুড়ান মোল্লার পাড়া নিজ মায়ের বাড়ির উঠানে এসব অসহায় মানুষের মাঝে শাড়ি ও লুঙ্গি বিতরণ করেন। এছাড়া তিনি তার মায়ের নামে ‘দশ গম্বুজ মা খাদিজা জামে মসজিদ’ নির্মাণ করেছেন সেই মসজিদে ও একটি স্থানীয় এতিমখানায় চার শতাধিক রোজাদারের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেন।

এসময় পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সাংস্কৃতিক কর্মী জাকারিয়া সরদার, মাইনদ্দিন মানু, দিপু হাসান সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। যাকাতের অর্থ দিয়ে প্রতিবছরের ধারাবাহিকতায় এবছরও এই কর্মসূচি পালন করেন এই অভিনেত্রী।

স্থানীয় সাংস্কৃতিককর্মী মো. জাকির সরদার বলেন, প্রতিবছর আমাদের রেজিনা আপা ঈদের আগে তার নানা বাড়ি এলাকায় অসহায় মানুষের মাঝে শাড়ি, লুঙ্গি বিতরণ করেন। তারই ধারাবাহিকতায় এবছরও তিনি শতাধিক শাড়ি, লুঙ্গি বিতরণ করেছেন। রোজিনা আপা আমাদের গ্রামের বাড়ি এলেই স্থানীরা অনেক খুশি হয়। তার এই মহত কাজের জন্য আমরা সব সময় দোয়া করি। তিনি যেন সারাজীবন অসহায়দের পাশে থেকে সেবা করতে পারে।

উপকারভোগী সেকেন আলী শেখ বলেন, বয়সের ভারে তেমন কাম কাইজ করতে পারিনা। মাইনসের কাছে চাইয়া-চিন্তা চলতে হয়। আইজ রোজিনা আপা আমারে ডাইকা একটা লুঙ্গি আর একটা শাড়ি দিছে। এহন আর চিন্তা নাই। অন্তত এই বছরডা চইলা যাবেনে।

স্থানীয় বাসিন্দা মাঈনদ্দিন মানু বলেন, দেশের জনপ্রিয় নায়িকা রোজিনা ম্যাডাম প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ঈদের আগে গ্রামের বাড়ি এসে দরিদ্র মানুষের মাঝে শাড়ি-কাপড় বিতরণ করেন। সারা বছর এলাকার দরিদ্র মানুষকে উনি দান, সাদকা করে থাকেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা রোজিনার সঙ্গে সারাজীবন কাটিয়েছি। যখনই উনি গ্রামে ফিরে আসেন, তখনই গ্রামের সাধারণ মানুষ আনন্দ প্রকাশ করেন। এলাকার মানুষের কথা চিন্তা করে বাড়ির আঙিনায় একটি চমৎকার ‘দশ গম্বুজ মা খাদিজা জামে মসজিদ’ নির্মাণ করেছেন এই নায়িকা। মসজিদটি নির্মাণের পর থেকে এখানে প্রচুর মুসুল্লি হয়।’

চিত্র নায়িকা রোজিনা বলেন, ‘আমার গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ী শহরের ভবানীপুর। গোয়ালন্দে হচ্ছে আমার নানা বাড়ি। এখানেই আমার জন্ম এবং এখানেই আমার বড় হয়ে ওঠা। মায়ের বড় সন্তান হিসেবে অধিকাংশ সময় কেটেছে গোয়ালন্দে। তাছাড়া মায়ের নামে ২০২০ সালের ৩ ফেব্রুয়ারী আনুষ্ঠানিকভাবে মসজিদ নির্মাণের কাজ শুরু করি। প্রাথমিকভাবে তুরস্কের মডেল দেখে দুটি মিনারসহ ১০টি গম্বুজ দিয়ে প্রায় পৌনে দুই কোটি টাকা ব্যায়ে পুরোনো আদলে সেটি নির্মাণ করি। মসজিদে নামাজ পড়তে আসা মুসুল্লীদের দেখে আমার মনটা ভরে যায়। আমি সহ আমার পরিবারের সকলের জন্য সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করছি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

গ্রামের অসহায় মানুষের মাঝে চিত্রনায়িকা রোজিনার শাড়ি-লুঙ্গি ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৯:৫০:০০ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ আশির দশকের জনপ্রিয় চলচিত্র অভিনেত্রী চিত্র নায়িকা রোজিনা শতাধিক দুস্থ নারী ও পুরুষের মাঝে শাড়ি, লুঙ্গি ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেছেন। শনিবার দুপুরে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌরসভার জুড়ান মোল্লার পাড়া নিজ মায়ের বাড়ির উঠানে এসব অসহায় মানুষের মাঝে শাড়ি ও লুঙ্গি বিতরণ করেন। এছাড়া তিনি তার মায়ের নামে ‘দশ গম্বুজ মা খাদিজা জামে মসজিদ’ নির্মাণ করেছেন সেই মসজিদে ও একটি স্থানীয় এতিমখানায় চার শতাধিক রোজাদারের মাঝে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেন।

এসময় পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন সাংস্কৃতিক কর্মী জাকারিয়া সরদার, মাইনদ্দিন মানু, দিপু হাসান সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। যাকাতের অর্থ দিয়ে প্রতিবছরের ধারাবাহিকতায় এবছরও এই কর্মসূচি পালন করেন এই অভিনেত্রী।

স্থানীয় সাংস্কৃতিককর্মী মো. জাকির সরদার বলেন, প্রতিবছর আমাদের রেজিনা আপা ঈদের আগে তার নানা বাড়ি এলাকায় অসহায় মানুষের মাঝে শাড়ি, লুঙ্গি বিতরণ করেন। তারই ধারাবাহিকতায় এবছরও তিনি শতাধিক শাড়ি, লুঙ্গি বিতরণ করেছেন। রোজিনা আপা আমাদের গ্রামের বাড়ি এলেই স্থানীরা অনেক খুশি হয়। তার এই মহত কাজের জন্য আমরা সব সময় দোয়া করি। তিনি যেন সারাজীবন অসহায়দের পাশে থেকে সেবা করতে পারে।

উপকারভোগী সেকেন আলী শেখ বলেন, বয়সের ভারে তেমন কাম কাইজ করতে পারিনা। মাইনসের কাছে চাইয়া-চিন্তা চলতে হয়। আইজ রোজিনা আপা আমারে ডাইকা একটা লুঙ্গি আর একটা শাড়ি দিছে। এহন আর চিন্তা নাই। অন্তত এই বছরডা চইলা যাবেনে।

স্থানীয় বাসিন্দা মাঈনদ্দিন মানু বলেন, দেশের জনপ্রিয় নায়িকা রোজিনা ম্যাডাম প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ঈদের আগে গ্রামের বাড়ি এসে দরিদ্র মানুষের মাঝে শাড়ি-কাপড় বিতরণ করেন। সারা বছর এলাকার দরিদ্র মানুষকে উনি দান, সাদকা করে থাকেন।

তিনি বলেন, ‘আমরা রোজিনার সঙ্গে সারাজীবন কাটিয়েছি। যখনই উনি গ্রামে ফিরে আসেন, তখনই গ্রামের সাধারণ মানুষ আনন্দ প্রকাশ করেন। এলাকার মানুষের কথা চিন্তা করে বাড়ির আঙিনায় একটি চমৎকার ‘দশ গম্বুজ মা খাদিজা জামে মসজিদ’ নির্মাণ করেছেন এই নায়িকা। মসজিদটি নির্মাণের পর থেকে এখানে প্রচুর মুসুল্লি হয়।’

চিত্র নায়িকা রোজিনা বলেন, ‘আমার গ্রামের বাড়ি রাজবাড়ী শহরের ভবানীপুর। গোয়ালন্দে হচ্ছে আমার নানা বাড়ি। এখানেই আমার জন্ম এবং এখানেই আমার বড় হয়ে ওঠা। মায়ের বড় সন্তান হিসেবে অধিকাংশ সময় কেটেছে গোয়ালন্দে। তাছাড়া মায়ের নামে ২০২০ সালের ৩ ফেব্রুয়ারী আনুষ্ঠানিকভাবে মসজিদ নির্মাণের কাজ শুরু করি। প্রাথমিকভাবে তুরস্কের মডেল দেখে দুটি মিনারসহ ১০টি গম্বুজ দিয়ে প্রায় পৌনে দুই কোটি টাকা ব্যায়ে পুরোনো আদলে সেটি নির্মাণ করি। মসজিদে নামাজ পড়তে আসা মুসুল্লীদের দেখে আমার মনটা ভরে যায়। আমি সহ আমার পরিবারের সকলের জন্য সবার কাছে দোয়া প্রার্থনা করছি।