০৪:২৯ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে নানা আয়োজনে যুব মহিলালীগের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীতে নানা আয়োজনে শনিবার যুব মহিলালীগের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে গতকাল সকালে জেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। এরপর পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও গীতা থেকে পাঠ করে শুরু হয় আলোচনা সভা।

জেলা যুব মহিলালীগ সভাপতি কানিজ ফাতেমা চৈতির সভাপতিত্বে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রধান অতিথি হিসেবে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি কাজী কেরামত আলী বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যদের মধ্যে জেলা যুব মহিলালীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দা নাজমুন নাহার সেন্ট্রি, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও নবনির্বাচিত রাজবাড়ী সদর উপজেলার চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এস.এম নওয়াব আলী, জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এ্যাডঃ সফিকুল হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হাফিজুর রহমান হাফিজ, জেলা স্বেচ্চাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, যুব মহিলালীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক তামান্না নাসরিন রেশমী, যুব মহিলালীগ সদর উপজেলার সভাপতি আফরিন মাহফুজা বেনু, গোয়ালন্দ উপজেলা যুব মহিলালীগ সভাপতি সাহিদা আক্তার, সাধারণ সম্পাদক শাহেলা আক্তার প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন রাজবাড়ী সরকারী কলেজের ছাত্র সংসদের সাবেক জি এস এ্যাডঃ আশরাফুল ইসলাম আশা।

প্রধান অতিথি রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী বলেন, দূর্যোগপূণ্য আবহাওয়ার মধ্যে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুব মহিলা লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যারা কষ্ট করে এখানে এসেছেন তাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অবিস্মরণীয় উন্নতি করেছে। অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং মানবিক উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আজকে গ্রাম আর শহরের মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। গ্রামের প্রতিটা রাস্তা এখন পাকা, শহরের প্রতিটি রাস্তাও পাকা। গ্রামে প্রতিটা ঘরে ঘরে এখন বিদ্যুৎ রয়েছে। নারীর ক্ষমতায়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যথেষ্ট চেষ্টা করছেন। টিভিতে দেখতে পেলাম বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য প্রতিটি জেলায় সংগ্রাম করবে। যারা হত্যার রাজনীতি করে তাদের মুখে গণতন্ত্রের ভাষা মানায়না। কথায় কথায় বলেন গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করবেন? গণতন্ত্র কোথায় গেছে, আপনারা যখন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিলেন তখন কোথায় গণতন্ত্র ছিলো। শেখ হাসিনার প্রতি ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিলেন তখন গণতন্ত্র কোথায় ছিল৷

তিনি আরও বলেন, সংগঠন যদি না থাকে তাহলে সে সংগঠনের কোন দাম নেই। এজন্য প্রতিটি সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাদের সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে দুই মাস পর পর মিটিং করবে। এছাড়া পৌরসভা ও ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা মিটিং করছে কিনা তা জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তদারকি করবে, তাহলে সংগঠন শক্তিশালী হবে। আলোচনা সভা শেষে দোয়া ও কেক কেটে যুব মহিলালীগের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

রাজবাড়ীতে নানা আয়োজনে যুব মহিলালীগের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:৩৮:২৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ৭ জুলাই ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীতে নানা আয়োজনে শনিবার যুব মহিলালীগের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে গতকাল সকালে জেলা আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। এরপর পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত ও গীতা থেকে পাঠ করে শুরু হয় আলোচনা সভা।

জেলা যুব মহিলালীগ সভাপতি কানিজ ফাতেমা চৈতির সভাপতিত্বে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রধান অতিথি হিসেবে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি কাজী কেরামত আলী বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যদের মধ্যে জেলা যুব মহিলালীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দা নাজমুন নাহার সেন্ট্রি, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও নবনির্বাচিত রাজবাড়ী সদর উপজেলার চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এস.এম নওয়াব আলী, জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক এ্যাডঃ সফিকুল হোসেন, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হাফিজুর রহমান হাফিজ, জেলা স্বেচ্চাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরী, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, যুব মহিলালীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক তামান্না নাসরিন রেশমী, যুব মহিলালীগ সদর উপজেলার সভাপতি আফরিন মাহফুজা বেনু, গোয়ালন্দ উপজেলা যুব মহিলালীগ সভাপতি সাহিদা আক্তার, সাধারণ সম্পাদক শাহেলা আক্তার প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন রাজবাড়ী সরকারী কলেজের ছাত্র সংসদের সাবেক জি এস এ্যাডঃ আশরাফুল ইসলাম আশা।

প্রধান অতিথি রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী বলেন, দূর্যোগপূণ্য আবহাওয়ার মধ্যে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুব মহিলা লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে যারা কষ্ট করে এখানে এসেছেন তাদের সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অবিস্মরণীয় উন্নতি করেছে। অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং মানবিক উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আজকে গ্রাম আর শহরের মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। গ্রামের প্রতিটা রাস্তা এখন পাকা, শহরের প্রতিটি রাস্তাও পাকা। গ্রামে প্রতিটা ঘরে ঘরে এখন বিদ্যুৎ রয়েছে। নারীর ক্ষমতায়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যথেষ্ট চেষ্টা করছেন। টিভিতে দেখতে পেলাম বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য প্রতিটি জেলায় সংগ্রাম করবে। যারা হত্যার রাজনীতি করে তাদের মুখে গণতন্ত্রের ভাষা মানায়না। কথায় কথায় বলেন গণতন্ত্রকে পুনরুদ্ধার করবেন? গণতন্ত্র কোথায় গেছে, আপনারা যখন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিলেন তখন কোথায় গণতন্ত্র ছিলো। শেখ হাসিনার প্রতি ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিলেন তখন গণতন্ত্র কোথায় ছিল৷

তিনি আরও বলেন, সংগঠন যদি না থাকে তাহলে সে সংগঠনের কোন দাম নেই। এজন্য প্রতিটি সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাদের সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে দুই মাস পর পর মিটিং করবে। এছাড়া পৌরসভা ও ইউনিয়নের নেতাকর্মীরা মিটিং করছে কিনা তা জেলার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তদারকি করবে, তাহলে সংগঠন শক্তিশালী হবে। আলোচনা সভা শেষে দোয়া ও কেক কেটে যুব মহিলালীগের ২২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়।