০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে ধর্ষক পিতাকে গ্রামবাসীর সহায়তায় পুলিশে দিল কিশোরী

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ জোরপূর্বক নিজের কিশোরী কন্যাকে (১৬) একাধিকবার ধর্ষণ করায় অতিষ্ঠ হয়ে পতার বিচার চেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশে ধরিয়ে দিয়েছে কিশোরী। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায়।  বুধবার ভোর রাতে নিজের কন্যাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে পাষ- পিতা। এ ঘটনায় পুলিশ ধর্ষক পিতা মো. কালাম ফকিরকে (৫০) গ্রেপ্তার করেছে।

ধর্ষনের শিকার কিশোরী ও স্থানীয়রা জানান, গ্রেপ্তারকৃত কালাম ফকির মোট চারটি বিয়ে করেছেন। তার এমন কুকির্তীর কারনে আগের দুই স্ত্রী তাকে ফেলে অন্যত্র চলে গেছেন। বর্তমানে তৃতীয় ও চতুর্থ স্ত্রী তার সংসারে রয়েছে। ধর্ষনের শিকার কিশোরী তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তান।

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার (৬ জুন) দিবাগত রাত ১২টার দিকে বাড়ির সাথে তাদের নিজস্ব মুদি দোকান বন্ধ করে কিশোরী ও তার সৎ মা খাবার খেয়ে একত্রে ঘুমিয়ে পড়ে। রাত পৌনে ১টার দিকে বিদ্যুৎ চলে গেলে কালাম ফকির তার ঘরে সবাইকে ঘুমাতে বলে। রাত শেষে বুধবার ভোররাত ৪টার দিকে কিশোরী কন্যার মুখ ও হাত চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষন করে। কোন কিছু বললে খুন করার ভয় দেখায় কালাম। ভোর ৬টার দিকে মায়ের ঘুম ভাঙলে কিশোরী মায়ের কাছে ঘটনাটি খুলে বলে। দুই মায়ের কাছে বাবার এমন কুকির্তীর কথা বললেও কর্ণপাত না করায় দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ স্থানীয় সদস্য জামাল মোল্লাসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের কাছে অভিযোগ করে। মেয়ের অভিযোগ পেয়ে ইউপি সদস্যসহ স্থানীয় লোকজন তাকে আটক করে পুলিশে খবর দিয়ে ধরিয়ে দেয়।

ওই কিশোরীর অভিযোগ, এর আগে তার বড় মায়ের বড় কন্যাকে তার বাবা একাধিকবার ধর্ষণ করে গর্ভপতি করে। পরে আমার ওই বড় মা ও বোন দেশের বাইরে চলে যান। এছাড়া বাবার এমন কুকির্তীর কারনে আমার নিজের আপন মাও তাকে ছেড়ে চলে যায়। আমি আমার বাবার কঠিন বিচার দাবী করছি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য জামাল মোল্লা বলেন, কালাম ফকিরের বিরুদ্ধে এর আগেও প্রথম স্ত্রীর বড় মেয়েকে ধর্ষণ করায়স গর্ভবতী হয়ে পড়ে। পরে তাকে জোরপূর্বক গর্ভপাত করানো হয়। লজ্জায় ওই মেয়ে এবং তার মা বিদেশে চলে যায়। দ্বিতীয় স্ত্রীর ঘরের এই কন্যাকে এর আগেও কয়েকবার ধর্ষন করেছে। এলাকার আরেকটি মেয়েকেও ধর্ষনের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। পরে মেয়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমরা এলাকাবাসী তাকে আটক করে পুলিশকে খবর দিয়ে ধরিয়ে দিয়েছি। এ ঘটনায় কঠিন শাস্তির দাবী জানাচ্ছি।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার জানান, বুধবার রাতে কিশোরী কন্যা বাদী হয়ে নিজের পিতার বিরুদ্ধে ধর্ষনের অভিযোগে মামলা করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নিজের কন্যাকে ধর্ষনের অভিযোগ স্বীকার করেছে। আমরা তার জবানবন্দি নিতে আদালতে পাঠানোর প্রক্রিয়া করছি। একই সাথে কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষা করাতে আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

গোয়ালন্দে ধর্ষক পিতাকে গ্রামবাসীর সহায়তায় পুলিশে দিল কিশোরী

পোস্ট হয়েছেঃ ০৭:২৭:২৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৯ জুন ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ জোরপূর্বক নিজের কিশোরী কন্যাকে (১৬) একাধিকবার ধর্ষণ করায় অতিষ্ঠ হয়ে পতার বিচার চেয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্যসহ স্থানীয়দের সহায়তায় পুলিশে ধরিয়ে দিয়েছে কিশোরী। ঘটনাটি ঘটেছে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায়।  বুধবার ভোর রাতে নিজের কন্যাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে পাষ- পিতা। এ ঘটনায় পুলিশ ধর্ষক পিতা মো. কালাম ফকিরকে (৫০) গ্রেপ্তার করেছে।

ধর্ষনের শিকার কিশোরী ও স্থানীয়রা জানান, গ্রেপ্তারকৃত কালাম ফকির মোট চারটি বিয়ে করেছেন। তার এমন কুকির্তীর কারনে আগের দুই স্ত্রী তাকে ফেলে অন্যত্র চলে গেছেন। বর্তমানে তৃতীয় ও চতুর্থ স্ত্রী তার সংসারে রয়েছে। ধর্ষনের শিকার কিশোরী তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তান।

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার (৬ জুন) দিবাগত রাত ১২টার দিকে বাড়ির সাথে তাদের নিজস্ব মুদি দোকান বন্ধ করে কিশোরী ও তার সৎ মা খাবার খেয়ে একত্রে ঘুমিয়ে পড়ে। রাত পৌনে ১টার দিকে বিদ্যুৎ চলে গেলে কালাম ফকির তার ঘরে সবাইকে ঘুমাতে বলে। রাত শেষে বুধবার ভোররাত ৪টার দিকে কিশোরী কন্যার মুখ ও হাত চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষন করে। কোন কিছু বললে খুন করার ভয় দেখায় কালাম। ভোর ৬টার দিকে মায়ের ঘুম ভাঙলে কিশোরী মায়ের কাছে ঘটনাটি খুলে বলে। দুই মায়ের কাছে বাবার এমন কুকির্তীর কথা বললেও কর্ণপাত না করায় দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ স্থানীয় সদস্য জামাল মোল্লাসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের কাছে অভিযোগ করে। মেয়ের অভিযোগ পেয়ে ইউপি সদস্যসহ স্থানীয় লোকজন তাকে আটক করে পুলিশে খবর দিয়ে ধরিয়ে দেয়।

ওই কিশোরীর অভিযোগ, এর আগে তার বড় মায়ের বড় কন্যাকে তার বাবা একাধিকবার ধর্ষণ করে গর্ভপতি করে। পরে আমার ওই বড় মা ও বোন দেশের বাইরে চলে যান। এছাড়া বাবার এমন কুকির্তীর কারনে আমার নিজের আপন মাও তাকে ছেড়ে চলে যায়। আমি আমার বাবার কঠিন বিচার দাবী করছি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য জামাল মোল্লা বলেন, কালাম ফকিরের বিরুদ্ধে এর আগেও প্রথম স্ত্রীর বড় মেয়েকে ধর্ষণ করায়স গর্ভবতী হয়ে পড়ে। পরে তাকে জোরপূর্বক গর্ভপাত করানো হয়। লজ্জায় ওই মেয়ে এবং তার মা বিদেশে চলে যায়। দ্বিতীয় স্ত্রীর ঘরের এই কন্যাকে এর আগেও কয়েকবার ধর্ষন করেছে। এলাকার আরেকটি মেয়েকেও ধর্ষনের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। পরে মেয়ের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমরা এলাকাবাসী তাকে আটক করে পুলিশকে খবর দিয়ে ধরিয়ে দিয়েছি। এ ঘটনায় কঠিন শাস্তির দাবী জানাচ্ছি।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার জানান, বুধবার রাতে কিশোরী কন্যা বাদী হয়ে নিজের পিতার বিরুদ্ধে ধর্ষনের অভিযোগে মামলা করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে নিজের কন্যাকে ধর্ষনের অভিযোগ স্বীকার করেছে। আমরা তার জবানবন্দি নিতে আদালতে পাঠানোর প্রক্রিয়া করছি। একই সাথে কিশোরীর ডাক্তারি পরীক্ষা করাতে আদালতে পাঠানোর প্রস্তুতি নিচ্ছি।