০৫:৫৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

“এনাফ ইজ এনাফ, দয়া করে এসব বন্ধ করুন” পশুবাহি গাড়িতে চাঁদাবাজি সর্ম্পকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ কোরবানীর পশুবাহি গাড়ি থেকে কোন চাঁদাবাজি হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। তাদের উদ্দেশ্যে একটা কথাই বলবো এনাফ ইজ এনাফ, অনেক হয়েছে। দয়া করে এসব বন্ধ করুন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে জিরো টলারেন্স নীতিতে রয়েছে। পশুবাহি গাড়িতে চাঁদাবাজি হলে বা কেউ বাড়াবাড়ি করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। স্থানীয় প্রশাসনসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কঠোর নির্দেশনা দেয়া আছে।

কথাগুলো বলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও ফরিদপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান। তিনি ফরিদপুর থেকে সাভার যাওয়ার পথে রোববার বেলা ১১টার দিকে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে নদী পাড়ি দেয়ার সময় সাংবাদিকদের সাথে মতবনিমিয়কালে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে পৌছলে গোয়ালন্দ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা মুন্সী, পৌরসভার মেয়র মো. নজরুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. শফিকুল ইসলাম ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। উপজেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ ও মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তারাও মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

কে-টাইপ ফেরিতে মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, কোরবানীর পশু বিক্রির হাটে নজরদারির জন্য একটি বিশেষ টিম থাকবে। প্রাণিসম্পদ বিভাগের নেতৃত্বে এখানে কোন জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজন হলে তারা ব্যবস্থা করবে। এছাড়া বাজার ব্যবস্থাপনার জন্য এখানে স্থানীয় প্রশাসন, জেলা প্রশাসনের সার্বক্ষনিক নজরদারি থাকবে। যতে কোন ধরনের অপ্রতিকর ঘটনা এড়ানো যায়। এছাড়া কোরবানী উপযোগী প্রায় ১ কোটি ৩০ লাখ গরু ও ছাগল প্রস্তুত রয়েছে। চাহিদার থেকে প্রায় ২২ লাখ ৭৭ হাজার পশু বেশি রয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

পদ্মা নদীতে অভয়াশ্রম গড়ে তোলার ব্যাপারে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী আব্দুর রহমান বলেন, গোয়ালন্দে অভয়াশ্রম গড়ে তোলার বিষয়টি আমাদের বিবেচনায় রয়েছে। সময় হলেই আপনারা দেখতে পারবেন।

মন্ত্রী পদ্মা নদী পাড়ি দেয়ার সময় পদ্মা সেতু সর্ম্পকে বলেন, মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর দূরদর্শি নেতৃত্ব এবং মানুষের জন্য কিছু করার চিন্তার কারনে পদ্মা সেতুর সুফল আজ সারা দেশের মানুষ পাচ্ছেন। পদ্মা সেতুর জন্য বহু ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করতে হয়েছে। পদ্মাসেতুর কারনে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে আগের মতো ভোগান্তি নেই। আগের মতোই যদি থাকতো তাহলে ভোগান্তিই রয়ে যেত।

পদ্মার ভাঙনে গৃহহারা হচ্ছে বহু পরিবার নদী শাসনের ব্যাপারে মন্ত্রী বলেন, নদীর পাড় ভাঙে যখন নদীর গভীরতা কমে যায়। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সর্বত্রই পড়েছে। মাইলের পর মাইল নদী শাসন করে কার্যকর তেমন কিছু করতে পারবেন না। প্রথমতো এখানে নদীর গভীরতা ফিরিয়ে আনা দরকার। এ জন্য এখানে ড্রেজিং ব্যবস্থা করে নদীর গভীরতা ফিরিয়ে আনতে হবে। তারপর নদী শাসন করতে হবে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরশেন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক সালাহ উদ্দিন বলেন, দৌলতদিয়ায় সচল ৩, ৪ ও ৭নম্বর তিনটি ঘাট দিয়েই পশুবাহি গাড়ি পার হতে পারছে। তবে ৩নম্বর ঘাটটি কাছে হওয়ায় সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে এই ঘাট দিয়ে পার করা হচ্ছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

“এনাফ ইজ এনাফ, দয়া করে এসব বন্ধ করুন” পশুবাহি গাড়িতে চাঁদাবাজি সর্ম্পকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

পোস্ট হয়েছেঃ ০৯:১৮:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ কোরবানীর পশুবাহি গাড়ি থেকে কোন চাঁদাবাজি হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। তাদের উদ্দেশ্যে একটা কথাই বলবো এনাফ ইজ এনাফ, অনেক হয়েছে। দয়া করে এসব বন্ধ করুন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে জিরো টলারেন্স নীতিতে রয়েছে। পশুবাহি গাড়িতে চাঁদাবাজি হলে বা কেউ বাড়াবাড়ি করলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। স্থানীয় প্রশাসনসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কঠোর নির্দেশনা দেয়া আছে।

কথাগুলো বলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও ফরিদপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান। তিনি ফরিদপুর থেকে সাভার যাওয়ার পথে রোববার বেলা ১১টার দিকে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে নদী পাড়ি দেয়ার সময় সাংবাদিকদের সাথে মতবনিমিয়কালে এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে পৌছলে গোয়ালন্দ উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা মুন্সী, পৌরসভার মেয়র মো. নজরুল ইসলাম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. শফিকুল ইসলাম ফুলের তোড়া দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। উপজেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ ও মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তারাও মন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান।

কে-টাইপ ফেরিতে মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, কোরবানীর পশু বিক্রির হাটে নজরদারির জন্য একটি বিশেষ টিম থাকবে। প্রাণিসম্পদ বিভাগের নেতৃত্বে এখানে কোন জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজন হলে তারা ব্যবস্থা করবে। এছাড়া বাজার ব্যবস্থাপনার জন্য এখানে স্থানীয় প্রশাসন, জেলা প্রশাসনের সার্বক্ষনিক নজরদারি থাকবে। যতে কোন ধরনের অপ্রতিকর ঘটনা এড়ানো যায়। এছাড়া কোরবানী উপযোগী প্রায় ১ কোটি ৩০ লাখ গরু ও ছাগল প্রস্তুত রয়েছে। চাহিদার থেকে প্রায় ২২ লাখ ৭৭ হাজার পশু বেশি রয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

পদ্মা নদীতে অভয়াশ্রম গড়ে তোলার ব্যাপারে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী আব্দুর রহমান বলেন, গোয়ালন্দে অভয়াশ্রম গড়ে তোলার বিষয়টি আমাদের বিবেচনায় রয়েছে। সময় হলেই আপনারা দেখতে পারবেন।

মন্ত্রী পদ্মা নদী পাড়ি দেয়ার সময় পদ্মা সেতু সর্ম্পকে বলেন, মাননীয় প্রধান মন্ত্রীর দূরদর্শি নেতৃত্ব এবং মানুষের জন্য কিছু করার চিন্তার কারনে পদ্মা সেতুর সুফল আজ সারা দেশের মানুষ পাচ্ছেন। পদ্মা সেতুর জন্য বহু ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করতে হয়েছে। পদ্মাসেতুর কারনে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে আগের মতো ভোগান্তি নেই। আগের মতোই যদি থাকতো তাহলে ভোগান্তিই রয়ে যেত।

পদ্মার ভাঙনে গৃহহারা হচ্ছে বহু পরিবার নদী শাসনের ব্যাপারে মন্ত্রী বলেন, নদীর পাড় ভাঙে যখন নদীর গভীরতা কমে যায়। জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব সর্বত্রই পড়েছে। মাইলের পর মাইল নদী শাসন করে কার্যকর তেমন কিছু করতে পারবেন না। প্রথমতো এখানে নদীর গভীরতা ফিরিয়ে আনা দরকার। এ জন্য এখানে ড্রেজিং ব্যবস্থা করে নদীর গভীরতা ফিরিয়ে আনতে হবে। তারপর নদী শাসন করতে হবে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন করপোরশেন (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক সালাহ উদ্দিন বলেন, দৌলতদিয়ায় সচল ৩, ৪ ও ৭নম্বর তিনটি ঘাট দিয়েই পশুবাহি গাড়ি পার হতে পারছে। তবে ৩নম্বর ঘাটটি কাছে হওয়ায় সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে এই ঘাট দিয়ে পার করা হচ্ছে।