০৫:২৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে মায়ের মৃত্যুর ৪ দিন পর স্ট্রোকে সন্তানের মৃত্যু

ফিরোজ আহম্মেদ, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের চর বালিয়াকান্দি গ্রামের মো. হাসান শেখ (৪৫) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি স্থানীয় মৃত আবু বক্কার সিদ্দিক শেখের বড় ছেলে। রোববার (২১ এপ্রিল) সকাল ১০ টার দিকে নিজ বাড়িতেই স্ট্রোক করে মৃত্যুর কোলে ঢ’লে পরেন হাসান শেখ। এ দুর্ঘটনার ৪ দিন আগে বার্ধক্যজনিত কারনে তাঁর মায়ের মৃত্যু হয়।

মৃতের ছোট ভাই নাহিদুল ইসলাম জানান,  প্রতিদিনের মতো রোববার সকালে কাজের উদ্দেশ্যে বের হচ্ছিলো বড় ভাই হাসান। মায়ের মৃত্যুতে ঢাকা  থেকে ছোট বোন আসছিলো। সে শ্বশুর বাড়ি যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে রওয়ানা করে। বোনকে বিদায় দিয়ে ভাই হাসানও দোকানের কাজে বের হচ্ছিলেন। ভাতের ক্যারিয়ার (খাবার ভর্তি টিফিন বক্স) হাতে নিয়ে দোকানের উদ্দেশ্যে বের হবে, এমন সময় সেখানেই বুকে হাত দিয়ে বসে পরে তিনি। সবাই ধরাধরি করে হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করি। হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা  করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও এক শিশু সন্তান রেখে গিয়েছেন। ভাইয়ের মৃত্যুতে পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পরে বিকেলে চর বালিয়াকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে জানাযা নামাজ শেষে স্থানীয় কবর স্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

গোয়ালন্দে মায়ের মৃত্যুর ৪ দিন পর স্ট্রোকে সন্তানের মৃত্যু

পোস্ট হয়েছেঃ ১০:৫৮:৩০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪

ফিরোজ আহম্মেদ, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের চর বালিয়াকান্দি গ্রামের মো. হাসান শেখ (৪৫) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি স্থানীয় মৃত আবু বক্কার সিদ্দিক শেখের বড় ছেলে। রোববার (২১ এপ্রিল) সকাল ১০ টার দিকে নিজ বাড়িতেই স্ট্রোক করে মৃত্যুর কোলে ঢ’লে পরেন হাসান শেখ। এ দুর্ঘটনার ৪ দিন আগে বার্ধক্যজনিত কারনে তাঁর মায়ের মৃত্যু হয়।

মৃতের ছোট ভাই নাহিদুল ইসলাম জানান,  প্রতিদিনের মতো রোববার সকালে কাজের উদ্দেশ্যে বের হচ্ছিলো বড় ভাই হাসান। মায়ের মৃত্যুতে ঢাকা  থেকে ছোট বোন আসছিলো। সে শ্বশুর বাড়ি যাওয়ার জন্য বাড়ি থেকে রওয়ানা করে। বোনকে বিদায় দিয়ে ভাই হাসানও দোকানের কাজে বের হচ্ছিলেন। ভাতের ক্যারিয়ার (খাবার ভর্তি টিফিন বক্স) হাতে নিয়ে দোকানের উদ্দেশ্যে বের হবে, এমন সময় সেখানেই বুকে হাত দিয়ে বসে পরে তিনি। সবাই ধরাধরি করে হাসপাতালের উদ্দেশ্যে রওয়ানা করি। হাসপাতালে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা  করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও এক শিশু সন্তান রেখে গিয়েছেন। ভাইয়ের মৃত্যুতে পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। পরে বিকেলে চর বালিয়াকান্দি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে জানাযা নামাজ শেষে স্থানীয় কবর স্থানে দাফন সম্পন্ন করা হয়।