০৭:৩৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দের চরাঞ্চলে রাসেলস ভাইপার আতঙ্ক, দেড় মাসে তিনজনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের চর মজলিশপুর, মহিদাপুর, দেবীপুর, চর করনেশনা ও আংকের শেখের পাড়াসহ পদ্মা তীরবর্তী চরাঞ্চলে ভয়ঙ্কর বিষধর সাপ রাসেলস ভাইপার উপদ্রপ বেড়েছে। স্থানীয়ভাবে চন্দ্রবোড়া বা উলুবোড়া নামে পরিচিত। গত দেড় মাসে ওই অঞ্চলে সাপে কাটা তিনজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার উপজেলার মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় দুর্গম চরাঞ্চলে রাসেলস ভাইপার আতঙ্কের বিষয়টি উঠে আসে। উপজেলা প্রশাসন থেকে কৃষকদের মাঝে গামবুট জুতা প্রদানের কথা জানানো হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্রের সভাপতিত্বে সভায় উজানচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন মৃধা বলেন, কৃষকরা মাঠে কাজ করতে গিয়ে রাসেলস ভাইপার সাপে কাটছে। ইতিমধ্যে তিনজন কৃষক এই সাপের কামড়ে মারা গেছেন। এখন ভয়ে সহজে কেউ খেতে যেতে পারছে না। খেত জুড়ে এখনো ধান, ভুট্টা পড়ে আছে। এ বিষয়ে কৃষকদের জন্য করনীয় নিয়ে তিনি দাবী জানান।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. খোকন উজ্জামান কৃষকদের ধান কাটার সময় পা দিয়ে যেন নড়াচড় না করে হাতে লাঠি নিয়ে প্রথমে ধান গাছগুলো নড়াচড়া দিয়ে নিশ্চিত হয়ে সতর্কতার সাথে যেন ধান কাটার পরামর্শ দেন। একইভাবে সতর্কতার সাথে বিশেষ ধরনের জুতা পড়ে কাজ করার কথা বলেন।

মজলিশপুর এলাকার মাতুব্বর আজিজুল মোল্যা জানান, সোমবার (২৭ মে) দুপুরে মজলিশপুরে মাঠে কাজ করার সময় শামীম শেখ (২২) সহ কয়েকজন পদ্মা নদী থেকে নৌকা তীরে টেনে তুলছিল। নৌকার নিচে থাকা রাসেলস ভাইপার তার পায়ে কামড় দেয়। লোকজন সাপটি মেরে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যায়। চিকিৎসা অবস্থায় পরদিন বিকেলে শামীম মারা যায়।

তিনি বলেন, বুধবার (২৯ মে) বাড়ির কাছে ধান কাটার সময় কৃষকরা প্রায় আড়াই হাত লম্বা একটি রাসেলস ভাইপার মারে। ২৭এপ্রিল নিজ খেত থেকে ভুট্টা তুলে বাড়ির উঠানে স্তুপ করেন। একদিন পর ভুট্টা সরানোর সময় দেখেন অনেকগুলো সাপের বাচ্চা। লাঠি দিয়ে পিটিয়ে ৪২টির মতো মারেন। ভয়ে এখন কেউ মাঠে নামতে চাচ্ছেনা, কাজের জন্য শ্রমিকও পাওয়া যাচ্ছেনা।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, ৮ এপ্রিল মজলিশপুর এলাকায় খেত থেকে ভুট্টা তোলার সময় সাঈদুল শেখ নামের এক কৃষককে সাপে কাটে। তাঁকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক সপ্তাহ পর মারা যান। ২৯ মার্চ উজানচর ইউপির চর দেবীপুর মাঠে কাজ করা অবস্থায় এক কিষানীকে সাপে কামড়ায়। তাকেও ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে প্রায় দুই সপ্তাহ পর নিজ বাড়িতে আনার পর মৃত্যু হয়।

চর করনেশনা এলাকার কৃষক টুটুল শেখ বলেন, চরাঞ্চল জুড়ে রাসেলস ভাইপার আতঙ্ক বিরাজ করছে। মাঝে মধ্যে কৃষকরা এমন সাপ মেরে মাটিতে পুতে ফেলছে। সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও বিষয়টি তুলে ধরছেন। প্রশাসনিকভাবে ব্যবস্থা না নিলে আরো ভয়াবহ হতে পারে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ফারসিম তারান্নুম হক বলেন, মার্চ মাসে একজন সাপে কাটা রোগী হাসপাতালে আসলে ফরিদপুর রেফার্ড করা হয়। এপ্রিল মাসে একজন এবং মে মাসে দুইজন সাপে কাটা রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়। তারা সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এখন পর্যন্ত হাসপাতালে সাপেকাটা রোগী মারা যায়নি। সাপেকাটা রোগী ওঝার কাছে না নিয়ে সরাসরি হাসপাতালে আনতে হবে। যথেষ্ট পরিমাণ অ্যান্টিভেনম ইনজেকশন রয়েছে। সাপেকাটার পর সময় মতো চিকিৎসা দিলে রোগী বেঁচে যাবে।

ইউএনও জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে রাসেলস ভাইপার মতো বিষধর সাপের উপদ্রুত বাড়ায় আমরা চিন্তিত। উপজেলা পরিষদ থেকে চরাঞ্চলের ১০০জন কৃষকের মাঝে বিশেষ ধরনের গামবুট জুতা দেয়া হবে। প্রয়োজনে শ্রমিকদের মাঝেও দেওয়া হবে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

গোয়ালন্দের চরাঞ্চলে রাসেলস ভাইপার আতঙ্ক, দেড় মাসে তিনজনের মৃত্যু

পোস্ট হয়েছেঃ ১১:২১:৩৬ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ মে ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের চর মজলিশপুর, মহিদাপুর, দেবীপুর, চর করনেশনা ও আংকের শেখের পাড়াসহ পদ্মা তীরবর্তী চরাঞ্চলে ভয়ঙ্কর বিষধর সাপ রাসেলস ভাইপার উপদ্রপ বেড়েছে। স্থানীয়ভাবে চন্দ্রবোড়া বা উলুবোড়া নামে পরিচিত। গত দেড় মাসে ওই অঞ্চলে সাপে কাটা তিনজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার উপজেলার মাসিক আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় দুর্গম চরাঞ্চলে রাসেলস ভাইপার আতঙ্কের বিষয়টি উঠে আসে। উপজেলা প্রশাসন থেকে কৃষকদের মাঝে গামবুট জুতা প্রদানের কথা জানানো হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্রের সভাপতিত্বে সভায় উজানচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন মৃধা বলেন, কৃষকরা মাঠে কাজ করতে গিয়ে রাসেলস ভাইপার সাপে কাটছে। ইতিমধ্যে তিনজন কৃষক এই সাপের কামড়ে মারা গেছেন। এখন ভয়ে সহজে কেউ খেতে যেতে পারছে না। খেত জুড়ে এখনো ধান, ভুট্টা পড়ে আছে। এ বিষয়ে কৃষকদের জন্য করনীয় নিয়ে তিনি দাবী জানান।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. খোকন উজ্জামান কৃষকদের ধান কাটার সময় পা দিয়ে যেন নড়াচড় না করে হাতে লাঠি নিয়ে প্রথমে ধান গাছগুলো নড়াচড়া দিয়ে নিশ্চিত হয়ে সতর্কতার সাথে যেন ধান কাটার পরামর্শ দেন। একইভাবে সতর্কতার সাথে বিশেষ ধরনের জুতা পড়ে কাজ করার কথা বলেন।

মজলিশপুর এলাকার মাতুব্বর আজিজুল মোল্যা জানান, সোমবার (২৭ মে) দুপুরে মজলিশপুরে মাঠে কাজ করার সময় শামীম শেখ (২২) সহ কয়েকজন পদ্মা নদী থেকে নৌকা তীরে টেনে তুলছিল। নৌকার নিচে থাকা রাসেলস ভাইপার তার পায়ে কামড় দেয়। লোকজন সাপটি মেরে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যায়। চিকিৎসা অবস্থায় পরদিন বিকেলে শামীম মারা যায়।

তিনি বলেন, বুধবার (২৯ মে) বাড়ির কাছে ধান কাটার সময় কৃষকরা প্রায় আড়াই হাত লম্বা একটি রাসেলস ভাইপার মারে। ২৭এপ্রিল নিজ খেত থেকে ভুট্টা তুলে বাড়ির উঠানে স্তুপ করেন। একদিন পর ভুট্টা সরানোর সময় দেখেন অনেকগুলো সাপের বাচ্চা। লাঠি দিয়ে পিটিয়ে ৪২টির মতো মারেন। ভয়ে এখন কেউ মাঠে নামতে চাচ্ছেনা, কাজের জন্য শ্রমিকও পাওয়া যাচ্ছেনা।

স্থানীয় কয়েকজন জানান, ৮ এপ্রিল মজলিশপুর এলাকায় খেত থেকে ভুট্টা তোলার সময় সাঈদুল শেখ নামের এক কৃষককে সাপে কাটে। তাঁকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক সপ্তাহ পর মারা যান। ২৯ মার্চ উজানচর ইউপির চর দেবীপুর মাঠে কাজ করা অবস্থায় এক কিষানীকে সাপে কামড়ায়। তাকেও ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে প্রায় দুই সপ্তাহ পর নিজ বাড়িতে আনার পর মৃত্যু হয়।

চর করনেশনা এলাকার কৃষক টুটুল শেখ বলেন, চরাঞ্চল জুড়ে রাসেলস ভাইপার আতঙ্ক বিরাজ করছে। মাঝে মধ্যে কৃষকরা এমন সাপ মেরে মাটিতে পুতে ফেলছে। সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও বিষয়টি তুলে ধরছেন। প্রশাসনিকভাবে ব্যবস্থা না নিলে আরো ভয়াবহ হতে পারে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ফারসিম তারান্নুম হক বলেন, মার্চ মাসে একজন সাপে কাটা রোগী হাসপাতালে আসলে ফরিদপুর রেফার্ড করা হয়। এপ্রিল মাসে একজন এবং মে মাসে দুইজন সাপে কাটা রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়। তারা সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এখন পর্যন্ত হাসপাতালে সাপেকাটা রোগী মারা যায়নি। সাপেকাটা রোগী ওঝার কাছে না নিয়ে সরাসরি হাসপাতালে আনতে হবে। যথেষ্ট পরিমাণ অ্যান্টিভেনম ইনজেকশন রয়েছে। সাপেকাটার পর সময় মতো চিকিৎসা দিলে রোগী বেঁচে যাবে।

ইউএনও জ্যোতি বিকাশ চন্দ্র বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে রাসেলস ভাইপার মতো বিষধর সাপের উপদ্রুত বাড়ায় আমরা চিন্তিত। উপজেলা পরিষদ থেকে চরাঞ্চলের ১০০জন কৃষকের মাঝে বিশেষ ধরনের গামবুট জুতা দেয়া হবে। প্রয়োজনে শ্রমিকদের মাঝেও দেওয়া হবে।