০৯:১৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে শিক্ষার্থীদের বীরত্বগাঁথা গল্প শোনালেন মুক্তিযোদ্ধারা

oplus_0

মইনুল হক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধকরণে বীর মুক্তিযোদ্ধারা স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের শোনালেন যুদ্ধকালীন বীরত্বগাঁথা গল্প।  গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের হলরুমে স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের নিয়ে ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন প্রকল্প’ জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) দুপুরে আয়োজিত অনুষ্ঠানের শুরুতে অতিথিদের ফুলের পাপড়ী ছিটিয়ে বরণ করে নেয় শিক্ষার্থীরা। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিথিদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা ও উত্তরীয় পড়িয়ে দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের যুদ্ধকালীন বীরত্বগাঁথা গল্প শোনান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল জব্বার, গোয়ালন্দ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আব্দুস সামাদ মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ওমর আলী শেখ ও আব্দুর রাজ্জাক।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্রের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন প্রকল্প পরিচালক (পিডি) নূরুল আমিন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মাসুদুর রহমান।

এসময় মুক্তিযোদ্ধারা তাদের বক্তব্যে বলেন, শিক্ষার্থীদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসচর্চা বৃদ্ধি ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নতুন প্রজন্ম গড়ে তোলার লক্ষ্যে এ অনুষ্ঠান সময়োপযোগী। ‘দৃঢ় আদর্শ ও চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে আমরা মহান মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলাম। মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা এ দেশ স্বাধীন করেছি। এখন নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে এবং এ চেতনা ধারণ করতে হবে। তাই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নতুন প্রজন্মকে জানান দিতে হবে।

শিক্ষার্থীরা বলেন, দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান বীরমুক্তিযোদ্ধাদের সংস্পর্শে আসতে পেরে এবং তাদের মুখে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। কিভাবে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি সেই গল্প আমরা আজকে শুনেছি। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে অনেক অজানা কিছু জানতে পেরেছি। অনেক ভাল লাগছে আজকে। পরে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক কুইজে অংশগ্রহণকারী বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে উপহার ও সনদপত্র তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

গোয়ালন্দে শিক্ষার্থীদের বীরত্বগাঁথা গল্প শোনালেন মুক্তিযোদ্ধারা

পোস্ট হয়েছেঃ ১০:৩৬:১৩ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

মইনুল হক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধকরণে বীর মুক্তিযোদ্ধারা স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের শোনালেন যুদ্ধকালীন বীরত্বগাঁথা গল্প।  গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের হলরুমে স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের নিয়ে ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন প্রকল্প’ জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) দুপুরে আয়োজিত অনুষ্ঠানের শুরুতে অতিথিদের ফুলের পাপড়ী ছিটিয়ে বরণ করে নেয় শিক্ষার্থীরা। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিথিদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা ও উত্তরীয় পড়িয়ে দেয়া হয়।

অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের যুদ্ধকালীন বীরত্বগাঁথা গল্প শোনান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ফকির আব্দুল জব্বার, গোয়ালন্দ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আব্দুস সামাদ মোল্লা, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ওমর আলী শেখ ও আব্দুর রাজ্জাক।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জ্যোতি বিকাশ চন্দ্রের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন প্রকল্প পরিচালক (পিডি) নূরুল আমিন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মাসুদুর রহমান।

এসময় মুক্তিযোদ্ধারা তাদের বক্তব্যে বলেন, শিক্ষার্থীদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসচর্চা বৃদ্ধি ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নতুন প্রজন্ম গড়ে তোলার লক্ষ্যে এ অনুষ্ঠান সময়োপযোগী। ‘দৃঢ় আদর্শ ও চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে আমরা মহান মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলাম। মুক্তিযোদ্ধাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে আমরা এ দেশ স্বাধীন করেছি। এখন নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানতে এবং এ চেতনা ধারণ করতে হবে। তাই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস নতুন প্রজন্মকে জানান দিতে হবে।

শিক্ষার্থীরা বলেন, দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তান বীরমুক্তিযোদ্ধাদের সংস্পর্শে আসতে পেরে এবং তাদের মুখে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানতে পেরে আমরা খুবই আনন্দিত। কিভাবে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি সেই গল্প আমরা আজকে শুনেছি। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে অনেক অজানা কিছু জানতে পেরেছি। অনেক ভাল লাগছে আজকে। পরে মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক কুইজে অংশগ্রহণকারী বিজয়ী শিক্ষার্থীদের মাঝে উপহার ও সনদপত্র তুলে দেন অতিথিবৃন্দ।