০৮:৩৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ছোট গল্প (পর্ব-১) ———————-

জীবন চক্রবর্তী, গোয়ালন্দঃ রতনকে খুব জোড়ে একটা থাপ্পড় দিয়ে গালে পাঁচ আঙুলের দাগ বসিয়ে দিল সৌরভ। থাপ্পড় খেয়ে কিছুক্ষণ ঝিম মেরে দাঁড়িয়ে থেকে ভৌ দৌড় দিলো রতন।

গতরাতে রতন সৌরভদের বাগান থেকে একব্যাগ আম চুরি করেছে, সকালে আমবাগানে গিয়েই সৌরভ বুঝতে পারলো যে বাগানে চোর ঢুকেছিলো।খোঁজ করে শেষ পর্যন্ত রতনদের ঘর থেকেই তাদের বাগানের আমগুলো বের করেছে সৌরভ। এ রকম হরহামেশাই পাড়ার লোকদের কারো জাংলার ধুন্দল, শশা, লাউ, ডাব এগুলো চুরি করে বাজারে বিক্রি করার স্বভাব আছে রতনের। আর চুরি করে এ রকম চড় থাপ্পড় খাবার ঘটনাও রতনের নিত্ত নৈমিত্তিক ব্যাপার।

রতনের বাবা গ্রামের একজন খেটে খাওয়া গরিব মানুষ। বড় মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন, জামাই গড়াই নদীতে মাঝিগিরি করে। তাদেরও টানা পোড়নের সংসার। গত বছর রতনের বড় ভাই মাঠে পাট কাটতে গিয়ে সাপে কেটে মারা যায়। তাই ৯/১০ বছরের ছোট ছেলে রতনের অনেক অবাধ্যতা এবং লোকের গালমন্দ বাবা-মা নীরবে সহ্য করেন। কিন্তু আজ যখন ছেলের গালের পাঁচ আঙুলদের থাপ্পড়ের দাগ দেখতে পেল। মা তা সহ্য করতে পারলো না। ছেলেকে নিয়ে গ্রামের জোতদার নগেনবাবুর কাছে গিয়ে বিচার দিলেন।

জেতদার মশায় দেখলেন, পাঁচ আঙুলের থাপ্পড়ে গালটা কেমন লাল হয়ে গেছে। বিচারে নগেনবাবু সৌরভকে ডেকে রতনের মার দেবার জন্য গালমন্দ করলেন এবং তার কাছে বিচার না দিয়ে কেন রতনের গায়ে হাত তুললো এরজন্য সৌরভকে দু’শো টাকাও জরিমানা করলেন। এছাড়া আম চুরি করার জন্য রতনকে দশবার কানধরে লোকের মধ্যে উঠবস করালেন নগেনবাবু। চলবে…..
জীবন চক্রবর্তীঃ সহকারী শিক্ষক, গোয়ালন্দ প্রপার হাইস্কুল ও প্রথম আলো গোয়ালন্দ বন্ধুসভার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

ছোট গল্প (পর্ব-১) ———————-

পোস্ট হয়েছেঃ ১০:৩৪:২৭ অপরাহ্ন, শনিবার, ১২ জুন ২০২১

জীবন চক্রবর্তী, গোয়ালন্দঃ রতনকে খুব জোড়ে একটা থাপ্পড় দিয়ে গালে পাঁচ আঙুলের দাগ বসিয়ে দিল সৌরভ। থাপ্পড় খেয়ে কিছুক্ষণ ঝিম মেরে দাঁড়িয়ে থেকে ভৌ দৌড় দিলো রতন।

গতরাতে রতন সৌরভদের বাগান থেকে একব্যাগ আম চুরি করেছে, সকালে আমবাগানে গিয়েই সৌরভ বুঝতে পারলো যে বাগানে চোর ঢুকেছিলো।খোঁজ করে শেষ পর্যন্ত রতনদের ঘর থেকেই তাদের বাগানের আমগুলো বের করেছে সৌরভ। এ রকম হরহামেশাই পাড়ার লোকদের কারো জাংলার ধুন্দল, শশা, লাউ, ডাব এগুলো চুরি করে বাজারে বিক্রি করার স্বভাব আছে রতনের। আর চুরি করে এ রকম চড় থাপ্পড় খাবার ঘটনাও রতনের নিত্ত নৈমিত্তিক ব্যাপার।

রতনের বাবা গ্রামের একজন খেটে খাওয়া গরিব মানুষ। বড় মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন, জামাই গড়াই নদীতে মাঝিগিরি করে। তাদেরও টানা পোড়নের সংসার। গত বছর রতনের বড় ভাই মাঠে পাট কাটতে গিয়ে সাপে কেটে মারা যায়। তাই ৯/১০ বছরের ছোট ছেলে রতনের অনেক অবাধ্যতা এবং লোকের গালমন্দ বাবা-মা নীরবে সহ্য করেন। কিন্তু আজ যখন ছেলের গালের পাঁচ আঙুলদের থাপ্পড়ের দাগ দেখতে পেল। মা তা সহ্য করতে পারলো না। ছেলেকে নিয়ে গ্রামের জোতদার নগেনবাবুর কাছে গিয়ে বিচার দিলেন।

জেতদার মশায় দেখলেন, পাঁচ আঙুলের থাপ্পড়ে গালটা কেমন লাল হয়ে গেছে। বিচারে নগেনবাবু সৌরভকে ডেকে রতনের মার দেবার জন্য গালমন্দ করলেন এবং তার কাছে বিচার না দিয়ে কেন রতনের গায়ে হাত তুললো এরজন্য সৌরভকে দু’শো টাকাও জরিমানা করলেন। এছাড়া আম চুরি করার জন্য রতনকে দশবার কানধরে লোকের মধ্যে উঠবস করালেন নগেনবাবু। চলবে…..
জীবন চক্রবর্তীঃ সহকারী শিক্ষক, গোয়ালন্দ প্রপার হাইস্কুল ও প্রথম আলো গোয়ালন্দ বন্ধুসভার যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক