০৯:২৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঘটনার ১০দিন পর স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের অভিযোগে থানায় মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীকে (১৪) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।  অভিযুক্ত সিরাজ খা (৬০) গোয়ালন্দ বাজারের একজন ব্যবসায়ী। তিনি আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দিতে স্হানীয় প্রভাবশালীদের মাধ্যমে চেষ্টা চালিয়ে ব্যার্থ হন। পরে ভুক্তভোগী পরিবার ঘটনার ১০দিন পর থানায় এজাহার দিলে মামলা রেকর্ড হয়।

ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রী ও তার পরিবারের সদস্যরা জানান, গত ১১ জুন মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে গোয়ালন্দ পৌরসভার বালিয়াডাঙ্গা বাড়ির পাশের পাটক্ষেতের পাশ দিয়ে ওই ছাত্রী স্হানীয় পুকুরে কাপড়-চোপর ধুতে যায়। এ সময় সিরাজ খাঁ ঘাস কাটাতেছিল। সে সুযোগ বুঝে শিশুটির গলার ঘাস কাটার কাঁচি ঠেকিয়ে পাট ক্ষেতের ভিতরে নিয়ে ধর্ষন করে।

শিশুটির মার দাবী, তার মেয়ে এলোমেলো অবস্থায় বাড়ি ফিরলে ভয়ে প্রথমে কিছু না বললেও পরে ঘটনা খুলে বলে। বিষয়টি পৌরসভার স্হানীয় কাউন্সিলর আলাউদ্দিন মৃধাসহ কয়েকজনকে জানাই। তারা বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বস্ত করেন। ওইদিন সন্ধ্যায় অভিযুক্ত সিরাজ খার সাথে দেখা হলে ক্ষতিপূরণ বাবদ আমাকে টাকা দিতে চান। রাতে কাউন্সিলরসহ অন্যান্যরা আমাকে বুঝায়, মামলা করলে মেয়েকে বিয়ে দিতে পারবেনা। তারচেয়ে আমরা ক্ষতিপূরণ আদায় করে দেই। মূলত তারা সবাই আমার সাথে তালবাহানা করে সময় পার করে। এরমধ্যে মেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ১৩ জুন সকালে গোয়ালন্দ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে নারী চিকিৎসক পরিক্ষা করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে যাওয়ার কথা বলে এবং থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ তাদেরকে হাসপাতাল হতে থানায় নিয়ে যায়। সেখানে ওসি, কাউন্সিলরসহ অনেকে ছিলেন। ওসি তাদের কাছ থেকে  ঘটনা শুনে অভিযোগ দিতে বললে আমরা বাড়ি ফিরে আসি।

শিশুটির মা জানান, সন্ধ্যায় আসামি ধরতে এলাকায় পুলিশ গিয়েছিল। কিন্তু আমার ভাই, কাউন্সিলরসহ কয়েকজন আমাকে বোঝায়, “এ নিয়ে  থানা পুলিশ করলে মেয়েকে বিয়ে দিতে পারবানা। লোক-লজ্জায় মেয়েটা আত্মহত্যা করতে পারে। তাই আমরাই পুলিশকে ফিরে যেতে বলি।”

শিশুটির বড় বোন জানান, আমরা লোক লজ্জার ভয় এবং ছোট বোনের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে অনেকটা চুপচাপ ছিলাম। কিন্তু সিরাজ খা ও তার লোকজন আমাদের সাথে ছলনা করেছে।

শনিবার(২২ জুন) অভিযুক্ত সিরাজ খার বাড়ি গিয়ে পাওয়া যায়নি। তার স্ত্রী কহিনুর বেগম বলেন, ঘাস কাটতে গেলে মেয়েটি যায়। এসময় মেয়েটিকে তারিয়ে দেয়। অথচ আমার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিচ্ছে। ওই পরিবারের মেয়েদের একাধিক বিয়ে দিয়ে নানাভাবে টাকা নিয়ে ছাড়িয়ে রাখে। তারা মেয়েদের দিয়ে অবৈধ ব্যবসা করেন সবাই জানেন। আমার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে প্রথমে এক লাখ পরে ৫ লাখ টাকা দাবী করেছিল।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি প্রানবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়ে আসামিকে গ্রেপ্তার করতে গেলে মেয়েটির পরিবার আপোষের কথা বলে আমাদের বাঁধা দেয়া হয়। তারা মামলা রুজু করায় আগ্রহী ছিলনা। শুনেছি তারা  ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরন দাবি করে। অভিযুক্ত সিরাজ ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে চেয়েছিল। শুক্রবার(২১ জুন) রাতে লিখিত অভিযোগ দিলে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা রেকর্ড করা হয় এবং শিশুটিকে শনিবার মেডিকেল পরীক্ষা করানো হয়েছে। আসামী গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

ঘটনার ১০দিন পর স্কুল ছাত্রী ধর্ষনের অভিযোগে থানায় মামলা

পোস্ট হয়েছেঃ ০৭:০৭:৪৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে ৬ষ্ঠ শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীকে (১৪) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।  অভিযুক্ত সিরাজ খা (৬০) গোয়ালন্দ বাজারের একজন ব্যবসায়ী। তিনি আর্থিক ক্ষতিপূরণ দিয়ে ঘটনা ধামাচাপা দিতে স্হানীয় প্রভাবশালীদের মাধ্যমে চেষ্টা চালিয়ে ব্যার্থ হন। পরে ভুক্তভোগী পরিবার ঘটনার ১০দিন পর থানায় এজাহার দিলে মামলা রেকর্ড হয়।

ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রী ও তার পরিবারের সদস্যরা জানান, গত ১১ জুন মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে গোয়ালন্দ পৌরসভার বালিয়াডাঙ্গা বাড়ির পাশের পাটক্ষেতের পাশ দিয়ে ওই ছাত্রী স্হানীয় পুকুরে কাপড়-চোপর ধুতে যায়। এ সময় সিরাজ খাঁ ঘাস কাটাতেছিল। সে সুযোগ বুঝে শিশুটির গলার ঘাস কাটার কাঁচি ঠেকিয়ে পাট ক্ষেতের ভিতরে নিয়ে ধর্ষন করে।

শিশুটির মার দাবী, তার মেয়ে এলোমেলো অবস্থায় বাড়ি ফিরলে ভয়ে প্রথমে কিছু না বললেও পরে ঘটনা খুলে বলে। বিষয়টি পৌরসভার স্হানীয় কাউন্সিলর আলাউদ্দিন মৃধাসহ কয়েকজনকে জানাই। তারা বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বস্ত করেন। ওইদিন সন্ধ্যায় অভিযুক্ত সিরাজ খার সাথে দেখা হলে ক্ষতিপূরণ বাবদ আমাকে টাকা দিতে চান। রাতে কাউন্সিলরসহ অন্যান্যরা আমাকে বুঝায়, মামলা করলে মেয়েকে বিয়ে দিতে পারবেনা। তারচেয়ে আমরা ক্ষতিপূরণ আদায় করে দেই। মূলত তারা সবাই আমার সাথে তালবাহানা করে সময় পার করে। এরমধ্যে মেয়ে অসুস্থ্য হয়ে পড়লে ১৩ জুন সকালে গোয়ালন্দ হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে নারী চিকিৎসক পরিক্ষা করে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে যাওয়ার কথা বলে এবং থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ তাদেরকে হাসপাতাল হতে থানায় নিয়ে যায়। সেখানে ওসি, কাউন্সিলরসহ অনেকে ছিলেন। ওসি তাদের কাছ থেকে  ঘটনা শুনে অভিযোগ দিতে বললে আমরা বাড়ি ফিরে আসি।

শিশুটির মা জানান, সন্ধ্যায় আসামি ধরতে এলাকায় পুলিশ গিয়েছিল। কিন্তু আমার ভাই, কাউন্সিলরসহ কয়েকজন আমাকে বোঝায়, “এ নিয়ে  থানা পুলিশ করলে মেয়েকে বিয়ে দিতে পারবানা। লোক-লজ্জায় মেয়েটা আত্মহত্যা করতে পারে। তাই আমরাই পুলিশকে ফিরে যেতে বলি।”

শিশুটির বড় বোন জানান, আমরা লোক লজ্জার ভয় এবং ছোট বোনের ভবিষ্যৎ চিন্তা করে অনেকটা চুপচাপ ছিলাম। কিন্তু সিরাজ খা ও তার লোকজন আমাদের সাথে ছলনা করেছে।

শনিবার(২২ জুন) অভিযুক্ত সিরাজ খার বাড়ি গিয়ে পাওয়া যায়নি। তার স্ত্রী কহিনুর বেগম বলেন, ঘাস কাটতে গেলে মেয়েটি যায়। এসময় মেয়েটিকে তারিয়ে দেয়। অথচ আমার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিচ্ছে। ওই পরিবারের মেয়েদের একাধিক বিয়ে দিয়ে নানাভাবে টাকা নিয়ে ছাড়িয়ে রাখে। তারা মেয়েদের দিয়ে অবৈধ ব্যবসা করেন সবাই জানেন। আমার স্বামীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে প্রথমে এক লাখ পরে ৫ লাখ টাকা দাবী করেছিল।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি প্রানবন্ধু চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, আমরা অভিযোগ পেয়ে আসামিকে গ্রেপ্তার করতে গেলে মেয়েটির পরিবার আপোষের কথা বলে আমাদের বাঁধা দেয়া হয়। তারা মামলা রুজু করায় আগ্রহী ছিলনা। শুনেছি তারা  ৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরন দাবি করে। অভিযুক্ত সিরাজ ৭০ হাজার টাকা পর্যন্ত দিতে চেয়েছিল। শুক্রবার(২১ জুন) রাতে লিখিত অভিযোগ দিলে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা রেকর্ড করা হয় এবং শিশুটিকে শনিবার মেডিকেল পরীক্ষা করানো হয়েছে। আসামী গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।