০৬:০৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাংশায় ৪০ বছর বয়সী কিষাণীর একসঙ্গে তিন সন্তান প্রসব

নিজস্ব প্রতিবেদক, পাংশা, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীর পাংশায় ছকিনা বেগম নামের ৪০ বছর বয়সী এক নারী একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। সোমবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে পাংশা শহরের আধুনিক ক্লিনিকে অস্ত্রোপচার ছাড়াই নরমাল ডেলিভারিতে তিন শিশু জন্ম দেন এই নারী। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, নবজাতক ৩ ছেলে ও মা সখিনা বেগম ভালো আছেন। ছকিনা বেগম জেলার কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের হরিণাডাঙ্গি গ্রামের কৃষক বিল্লাল খানের স্ত্রী।

নবজাতকদের বাবা বিল্লাল খান জানান, তার ঘরে দুই স্ত্রী। প্রথম স্ত্রীর ঘরে এক ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে। দ্বিতীয় স্ত্রী সখিনা বেগমের আগে বিয়ে হয়েছিল। তার স্বামী মারা যাওয়ায় চার বছর আগে তিনি সখিনাকে বিয়ে করেন। এই ঘরে আগের পক্ষের দুই ছেলে ও এক মেয়ে সন্তান রয়েছে। সব মিলে তার দুই স্ত্রীর ঘরে চার মেয়ে ও তিন ছেলে সন্তান রয়েছে। সাত সন্তানের পর দ্বিতীয় স্ত্রী সখিনার ঘরে এবার একত্রে তিন ছেলে সন্তান জন্ম নেয়।

বিল্লাল খান জানান, তার স্ত্রী প্রায় এক মাস আগে পাংশার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের ধানচন্দ্রপুর গ্রামের বাবার বাড়িতে আসেন। গত সোমবার দিনগত রাত ১০টার দিকে তাঁর স্ত্রীর প্রসব ব্যাথা উঠলে দ্রুত পাংশা আধুনিক ক্লিনিকে ভর্তি করেন। রাত ১১টার দিকে কোন প্রকার অস্ত্রোপচার ছাড়া তার তিনটি ছেলে সন্তান নরমালি ডেলিভারি হয়। একসঙ্গে তিন ছেলে সন্তান হওয়ায় সে খুবই আনন্দিত এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ আত্মীয়-স্বজনরাও খুশি। তবে বিল্লাল খানের চোখে মুখে আনন্দের আড়ালে রয়েছে হতাশার ছাপ।

তিনি বলেন, সামান্য কৃষি কাজ করে সংসার চালাতে হয়। এরপর ঘরে রয়েছে দুই স্ত্রী। আগের সন্তানদের পাশাপাশি একত্রে শিশু সন্তান নিয়ে অনেকটা বিপাকে পড়েছেন। খাবারসহ চিকিৎসার খরচ চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন। সোমবার রাতে ভর্তির পর থেকে আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় ২৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। যদি কোন বিত্তবান ব্যক্তি আমার এই বিপদে খুশি মনে পাশে দাড়ার তাহলে অনেকটা খুশি হবো। তবে সবার কাছে শিশু সন্তান ও তার মায়ের জন্য দোয়া প্রার্থনা করেন তিনি।

সোমবার দুপুরে পাংশার ওই বেসরকারি হাসপাতালে দেখা যায়, দ্বিতীয় তলার খোলা কক্ষের মাঝের দিকে বেডে পাশাপাশি তিন শিশু সন্তানকে শুইয়ে রাখা হয়েছে। পাশের আরেক বেডে মা সখিনা বেগম ব্যাথায় কাতরাচ্ছেন। দেখভাল করছেন স্বামী বিল্লাল খান ও সখিনার ছোট বোন সালমা বেগম।

সালমা বেগম বলেন, তিন বাচ্চা জন্ম গ্রহণের পর থেকে এত মানুষ ভিড় করছে আমরা ঠিকমতো বাচ্চাদের যত্ন পর্যন্ত করতে পারছিনা। এমনকি শিশুদের মায়ের প্রতি একটু খেয়াল করা বা তার ঠিকমতো চিকিৎসাও করানো যাচ্ছে না। এখন এত মানুষের ভিড় আর প্রশ্নের উত্তর দিতে আমরা সকলেই বিরক্ত হয়ে যাচ্ছি। আপনার সবাই তাদের জন্য দোয়া করবেন।

পাংশা আধুনিক ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের গাইনী বিশেষজ্ঞ আকতিনা হানি সুমনা বলেন, সোমবার রাতে সখিনা ভর্তির পর তার স্বামীসহ পরিবারের সদস্যরা সিজার করাতে চাপ দিতে থাকেন। তখন আমার স্বামী গোপালগঞ্জ শেখ সায়রা খাতুন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক (সার্জারী) কেএম আবু জালাল এবং আমি প্রাথমিক পরীক্ষা করে দেখতে পাই নরমাল ডেলিভারি সম্ভব। সবার চাপ উপেক্ষা করে রাত ১১টার দিকে তিন ছেলে শিশুর নরমাল ডেলিভারি করায়। কোন অস্ত্রোপচার ছাড়া নরমাল ডেলিভারি করাতে পেরে অনেক খুশি। তিন নবজাতক ও তাদের মা সুস্থ আছেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

পাংশায় ৪০ বছর বয়সী কিষাণীর একসঙ্গে তিন সন্তান প্রসব

পোস্ট হয়েছেঃ ০৮:৫৬:৩৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৬ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, পাংশা, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীর পাংশায় ছকিনা বেগম নামের ৪০ বছর বয়সী এক নারী একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। সোমবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে পাংশা শহরের আধুনিক ক্লিনিকে অস্ত্রোপচার ছাড়াই নরমাল ডেলিভারিতে তিন শিশু জন্ম দেন এই নারী। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, নবজাতক ৩ ছেলে ও মা সখিনা বেগম ভালো আছেন। ছকিনা বেগম জেলার কালুখালী উপজেলার রতনদিয়া ইউনিয়নের হরিণাডাঙ্গি গ্রামের কৃষক বিল্লাল খানের স্ত্রী।

নবজাতকদের বাবা বিল্লাল খান জানান, তার ঘরে দুই স্ত্রী। প্রথম স্ত্রীর ঘরে এক ছেলে ও তিন মেয়ে রয়েছে। দ্বিতীয় স্ত্রী সখিনা বেগমের আগে বিয়ে হয়েছিল। তার স্বামী মারা যাওয়ায় চার বছর আগে তিনি সখিনাকে বিয়ে করেন। এই ঘরে আগের পক্ষের দুই ছেলে ও এক মেয়ে সন্তান রয়েছে। সব মিলে তার দুই স্ত্রীর ঘরে চার মেয়ে ও তিন ছেলে সন্তান রয়েছে। সাত সন্তানের পর দ্বিতীয় স্ত্রী সখিনার ঘরে এবার একত্রে তিন ছেলে সন্তান জন্ম নেয়।

বিল্লাল খান জানান, তার স্ত্রী প্রায় এক মাস আগে পাংশার বোয়ালিয়া ইউনিয়নের ধানচন্দ্রপুর গ্রামের বাবার বাড়িতে আসেন। গত সোমবার দিনগত রাত ১০টার দিকে তাঁর স্ত্রীর প্রসব ব্যাথা উঠলে দ্রুত পাংশা আধুনিক ক্লিনিকে ভর্তি করেন। রাত ১১টার দিকে কোন প্রকার অস্ত্রোপচার ছাড়া তার তিনটি ছেলে সন্তান নরমালি ডেলিভারি হয়। একসঙ্গে তিন ছেলে সন্তান হওয়ায় সে খুবই আনন্দিত এবং পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ আত্মীয়-স্বজনরাও খুশি। তবে বিল্লাল খানের চোখে মুখে আনন্দের আড়ালে রয়েছে হতাশার ছাপ।

তিনি বলেন, সামান্য কৃষি কাজ করে সংসার চালাতে হয়। এরপর ঘরে রয়েছে দুই স্ত্রী। আগের সন্তানদের পাশাপাশি একত্রে শিশু সন্তান নিয়ে অনেকটা বিপাকে পড়েছেন। খাবারসহ চিকিৎসার খরচ চালাতে হিমশিম খাচ্ছেন। সোমবার রাতে ভর্তির পর থেকে আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত প্রায় ২৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। যদি কোন বিত্তবান ব্যক্তি আমার এই বিপদে খুশি মনে পাশে দাড়ার তাহলে অনেকটা খুশি হবো। তবে সবার কাছে শিশু সন্তান ও তার মায়ের জন্য দোয়া প্রার্থনা করেন তিনি।

সোমবার দুপুরে পাংশার ওই বেসরকারি হাসপাতালে দেখা যায়, দ্বিতীয় তলার খোলা কক্ষের মাঝের দিকে বেডে পাশাপাশি তিন শিশু সন্তানকে শুইয়ে রাখা হয়েছে। পাশের আরেক বেডে মা সখিনা বেগম ব্যাথায় কাতরাচ্ছেন। দেখভাল করছেন স্বামী বিল্লাল খান ও সখিনার ছোট বোন সালমা বেগম।

সালমা বেগম বলেন, তিন বাচ্চা জন্ম গ্রহণের পর থেকে এত মানুষ ভিড় করছে আমরা ঠিকমতো বাচ্চাদের যত্ন পর্যন্ত করতে পারছিনা। এমনকি শিশুদের মায়ের প্রতি একটু খেয়াল করা বা তার ঠিকমতো চিকিৎসাও করানো যাচ্ছে না। এখন এত মানুষের ভিড় আর প্রশ্নের উত্তর দিতে আমরা সকলেই বিরক্ত হয়ে যাচ্ছি। আপনার সবাই তাদের জন্য দোয়া করবেন।

পাংশা আধুনিক ক্লিনিক এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারের গাইনী বিশেষজ্ঞ আকতিনা হানি সুমনা বলেন, সোমবার রাতে সখিনা ভর্তির পর তার স্বামীসহ পরিবারের সদস্যরা সিজার করাতে চাপ দিতে থাকেন। তখন আমার স্বামী গোপালগঞ্জ শেখ সায়রা খাতুন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী অধ্যাপক (সার্জারী) কেএম আবু জালাল এবং আমি প্রাথমিক পরীক্ষা করে দেখতে পাই নরমাল ডেলিভারি সম্ভব। সবার চাপ উপেক্ষা করে রাত ১১টার দিকে তিন ছেলে শিশুর নরমাল ডেলিভারি করায়। কোন অস্ত্রোপচার ছাড়া নরমাল ডেলিভারি করাতে পেরে অনেক খুশি। তিন নবজাতক ও তাদের মা সুস্থ আছেন।