০৪:৫৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে সাপের কামড়ে নারীর মৃত্যু, অভিযোগ চিকিৎসায় অবহেলা

module:1facing:0; hw-remosaic: 0; touch: (-1.0, -1.0); modeInfo: ; sceneMode: Auto; cct_value: 4461; AI_Scene: (-1, -1); aec_lux: 410.04437; hist255: 0.0; hist252~255: 0.0; hist0~15: 0.0;

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীতে বিষধর সাপের কামড়ে সুবিতা রানী দাস (৬০) নামের এক গৃহবধুর মুত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই নারীর মৃত্যু হয়। তিনি জেলার কালুখালী উপজেলার মদাপুর ইউনিয়নের ধুবারিয়া গ্রামের ধিরেন্দ্রনাথ দাস ভৌণদের সহধর্মীনি। পরিবারের অভিযোগ, দ্রুত হাসপাতালে আনা হলেও চিকিৎসকদের অবহেলায় ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে।

মৃত সুবিতা রানী দাসের নাতি অন্তর কুমার দাস বলেন, মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে বাড়ির টিউবওয়েলে বাসন পরিস্কারের কাজ করছিলেন সুবিতা রানী দাস। ওই সময় হঠাৎ করে একটি গোখড়া সাপ তার ডান হাতে কামড় বসিয়ে দেয়। পরিবারের সদস্যরা দ্রুত ওই সময় তার হাতে বাঁধন দিয়ে সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিটের দিকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। হাসপাতালে আনার পর পরই চিকিৎসকরা এ্যান্টিভেনম না দিয়ে রোগীর অবস্থা দেখার জন্য হাতের বাঁধন খুলে দেয়। আমরা জরুরিভাবে এন্টিভেনম দিতে অনুরোধ করি। তারা আমাকে ভর্তি করাতে বলে মহিলা ওয়ার্ডে নিতে বলেন। চিকিৎসকের কথা মতো আমরা মহিলা ওয়ার্ডে নিয়ে যাই। তারা নানাভাবে সময় ক্ষেপন করতে থাকেন। প্রায় এক ঘন্টা পর সোয়া ৭টার দিকে মারা যান।

সুবিতা রানীর প্রতিবেশী রাজবাড়ী সদর উপজেলা সিপিবির সভাপতি ধীরেন্দ্র নাথ দাস বলেন, সাপে কামড় দেয়ার পর দ্রুত সুবিতা রানীকে সদর হাসপাতালে আনা হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসক শামীম আহসানকে জরুরিভাবে এন্টিভেনম দিতে অনুরোধ করি। তিনি রোগী ভর্তি করতে বলে অন্যান্য রোগী নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। ভর্তির পর তারা তেমন কেয়ার করছিলনা। দীর্ঘক্ষণ পর চিকিৎসক জানান, ফরিদপুর নিতে। ফরিদপুর নেয়ার প্রস্তুতিকালে হাসপাতালে মারা যান। বিষধর সাপে কামড়ানোর রোগী হাসপাতালে আনার এক ঘন্টা পরও চিকিৎসা না দেয়ায় মনে করি চিকিৎসকদের অবহেলায় মৃত্যু হয়েছে।

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা শামীম আহসান বলেন, বিষাক্ত সাপে কামড় দিয়েছে নিশ্চিত হতে হাতের বাধন খুলে পর্যবেক্ষণ করতে থাকি। ওই নারী সাপটি দেখেননি, পরিবারের লোকজন নিশ্চিত করতে পারছিলনা। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ভর্তি করতে বললে প্রায় ৪০মিনিট পর ভর্তির কাগজপত্র দেয়, তখন রোগী আরো অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। এমন সময় বিষাক্ত সাপটি তারা মেরে নিশ্চিত করেন গোখরা ছিল। রোগীর অবস্থা খারাপ হওয়ায় দ্রুত ফরিদপুর রেফার্ড করি। এ ধরনের রোগী আইসিইউতে রেখে চিকিৎসা দিতে হয়। নিশ্চিত না হয়ে এন্টিভেনম দেয়া যায়না। দুর্ভাগ্যবশত রোগীকে ফরিদপুর নেয়ার প্রস্তুতিকালেই মারা যান।

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক শেখ মো. আব্দুল হান্নান বলেন, রোগীর পরিবারের অভিযোগ শুনার পর জিজ্ঞাসা করলে ওই চিকিৎসক জানান, কালুখালী থেকে আসার পর পরিস্থিতি বুঝতে কিছুক্ষণ পর্যবেক্ষণে রাখেন। পরিস্থিতি বেশি খারাপ হওয়ায় পরিবারের সিদ্ধান্তে তাকে দ্রুত ফরিদপুরে রেফার্ড করেন। এর কিছুক্ষণ পরই রোগী মারা যান। তবে যে সময় পেয়েছিলেন তাতে এন্টিভেনম দেয়া যেত।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

বালিয়াকান্দি উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি সোহেল ও সম্পাদক কামরুল পুনরায় নির্বাচিত

রাজবাড়ীতে সাপের কামড়ে নারীর মৃত্যু, অভিযোগ চিকিৎসায় অবহেলা

পোস্ট হয়েছেঃ ০৭:১০:২৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দ, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীতে বিষধর সাপের কামড়ে সুবিতা রানী দাস (৬০) নামের এক গৃহবধুর মুত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ওই নারীর মৃত্যু হয়। তিনি জেলার কালুখালী উপজেলার মদাপুর ইউনিয়নের ধুবারিয়া গ্রামের ধিরেন্দ্রনাথ দাস ভৌণদের সহধর্মীনি। পরিবারের অভিযোগ, দ্রুত হাসপাতালে আনা হলেও চিকিৎসকদের অবহেলায় ওই নারীর মৃত্যু হয়েছে।

মৃত সুবিতা রানী দাসের নাতি অন্তর কুমার দাস বলেন, মঙ্গলবার বিকেল ৫টার দিকে বাড়ির টিউবওয়েলে বাসন পরিস্কারের কাজ করছিলেন সুবিতা রানী দাস। ওই সময় হঠাৎ করে একটি গোখড়া সাপ তার ডান হাতে কামড় বসিয়ে দেয়। পরিবারের সদস্যরা দ্রুত ওই সময় তার হাতে বাঁধন দিয়ে সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিটের দিকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। হাসপাতালে আনার পর পরই চিকিৎসকরা এ্যান্টিভেনম না দিয়ে রোগীর অবস্থা দেখার জন্য হাতের বাঁধন খুলে দেয়। আমরা জরুরিভাবে এন্টিভেনম দিতে অনুরোধ করি। তারা আমাকে ভর্তি করাতে বলে মহিলা ওয়ার্ডে নিতে বলেন। চিকিৎসকের কথা মতো আমরা মহিলা ওয়ার্ডে নিয়ে যাই। তারা নানাভাবে সময় ক্ষেপন করতে থাকেন। প্রায় এক ঘন্টা পর সোয়া ৭টার দিকে মারা যান।

সুবিতা রানীর প্রতিবেশী রাজবাড়ী সদর উপজেলা সিপিবির সভাপতি ধীরেন্দ্র নাথ দাস বলেন, সাপে কামড় দেয়ার পর দ্রুত সুবিতা রানীকে সদর হাসপাতালে আনা হয়। কর্তব্যরত চিকিৎসক শামীম আহসানকে জরুরিভাবে এন্টিভেনম দিতে অনুরোধ করি। তিনি রোগী ভর্তি করতে বলে অন্যান্য রোগী নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। ভর্তির পর তারা তেমন কেয়ার করছিলনা। দীর্ঘক্ষণ পর চিকিৎসক জানান, ফরিদপুর নিতে। ফরিদপুর নেয়ার প্রস্তুতিকালে হাসপাতালে মারা যান। বিষধর সাপে কামড়ানোর রোগী হাসপাতালে আনার এক ঘন্টা পরও চিকিৎসা না দেয়ায় মনে করি চিকিৎসকদের অবহেলায় মৃত্যু হয়েছে।

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা শামীম আহসান বলেন, বিষাক্ত সাপে কামড় দিয়েছে নিশ্চিত হতে হাতের বাধন খুলে পর্যবেক্ষণ করতে থাকি। ওই নারী সাপটি দেখেননি, পরিবারের লোকজন নিশ্চিত করতে পারছিলনা। প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ভর্তি করতে বললে প্রায় ৪০মিনিট পর ভর্তির কাগজপত্র দেয়, তখন রোগী আরো অসুস্থ্য হয়ে পড়ে। এমন সময় বিষাক্ত সাপটি তারা মেরে নিশ্চিত করেন গোখরা ছিল। রোগীর অবস্থা খারাপ হওয়ায় দ্রুত ফরিদপুর রেফার্ড করি। এ ধরনের রোগী আইসিইউতে রেখে চিকিৎসা দিতে হয়। নিশ্চিত না হয়ে এন্টিভেনম দেয়া যায়না। দুর্ভাগ্যবশত রোগীকে ফরিদপুর নেয়ার প্রস্তুতিকালেই মারা যান।

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক শেখ মো. আব্দুল হান্নান বলেন, রোগীর পরিবারের অভিযোগ শুনার পর জিজ্ঞাসা করলে ওই চিকিৎসক জানান, কালুখালী থেকে আসার পর পরিস্থিতি বুঝতে কিছুক্ষণ পর্যবেক্ষণে রাখেন। পরিস্থিতি বেশি খারাপ হওয়ায় পরিবারের সিদ্ধান্তে তাকে দ্রুত ফরিদপুরে রেফার্ড করেন। এর কিছুক্ষণ পরই রোগী মারা যান। তবে যে সময় পেয়েছিলেন তাতে এন্টিভেনম দেয়া যেত।