০৫:১৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

১২ জেলার আবৃত্তি শিল্পীদের নিয়ে গোয়ালন্দে আয়োজন হলো ‘একজ আবৃত্তি উৎসব’

সরোয়ার আহমেদ, গোয়ালন্দঃ মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বাংলা ভাষার সঠিক চর্চার প্রয়াসে বাংলা কবিতার ডালি নিয়ে সামাজিক সংগঠন ‘একজ জাগরণ’ তার ১৫ তম বর্ষে পর্দাপন উপলক্ষে ১২ জেলার আবৃত্তি শিল্পীদের অংশগ্রহণে, আয়োজন হয়েছে ১২তম একজ আবৃত্তি উৎসব।

‘উচ্চারিত পঙ্ক্তিমালায় উজ্জীবিত হোক মানবতা’ এই স্লোগান কে সামনে রেখে বাংলা ভাষার সঠিক চর্চার প্রয়াসে প্রতিবছরের মতো এবারও রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে সামাজিক সংগঠন একজ জাগরণে আয়োজন করেছে ‘একজ আবৃত্তি উৎসব’। বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ফকির মহিউদ্দিন আনসার ক্লাব চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়েছে ১২ জেলা নিয়ে ১২তম এই আবৃত্তি উৎসব। উৎসবের শুরুতে স্থানীয় সাংস্কৃতিক সংগঠন অঙ্গন ও সব আবৃত্তি সংগঠনের প্রতিনিধি, আমন্ত্রিত অতিথি এবং দর্শকদের সঙ্গে নিয়ে জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়।

এ আবৃত্তি উৎসবে বাংলাদেশের যে সকল গুনি আবৃত্তি শিল্পী একক আবৃত্তি পরিবেশন করেছে তাদের মধ্যে রয়েছেন, দেশ বরেন্য আবৃত্তি শিল্পী মাহিদুল ইসলাম, আবৃত্তি শিল্পী মাসকুর-এ-সাত্তার কল্লোল, আলম আরা জুঁই, ইকবাল আহমেদ, ইমরান সাগর, কুমার লাভলু, আঞ্জুমান জুলিয়া, প্রদ্যোত রায়, মেহেদী হাসান, এইচ এম ফাহিম, মো. মুজাহিদুল ইসলাম, মো. শহিদুল ইসলাম এবং মারুফ।

এছাড়াও যে সকল আবৃত্তি সংগঠন দলীয়ভাবে আবৃত্তি পরিবেশন করেছেন তারা হলো, কুষ্টিয়া আবৃত্তি পরিষদ কুষ্টিয়া, ধৈবত আবৃত্তি ভূমি মাদারীপুর, উদ্ভাস আবৃত্তি সংগঠন মাদারীপুর, অনুনাদ গোপালগঞ্জ, ওঙ্কার আবৃত্তি কেন্দ্র সিরাজগঞ্জ, সঙ থিয়েটার ফরিদপুর এবং একজ আবৃত্তি পরিবার, গোয়ালন্দ রাজবাড়ী।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকির আব্দুল জব্বার, গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা মুন্সী, গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র মো. নজরুল ইসলাম মন্ডল, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব ঘোষ, গোয়ালন্দ বাজার ব্যবসায়ী পরিষদের সভাপতি মো. ছিদ্দিক মিয়া সহ স্থাণীয় গণমান্য ব্যক্তিবর্গ।

কথা হয় উৎসবে আসা বেশ কয়েক জনের সাথে তারা দেশ জানান, গোয়ালন্দে অনেক অনুষ্ঠান হয় অনেক উৎসব হয় কিন্তু আমাদের এই গোয়ালন্দে এই রকম আবৃত্তি উৎসব শুধু মাত্র এই সামাজিক সংগঠনটি আয়োজন করে থাকে। সংগঠনটি আবৃত্তি সংগঠন না হলেও তারা প্রতি বছর এই আয়োজন করছে। এই রকম সুস্থ ধারার আয়োজনে আমরা সব সময় চাই।

গোয়ালন্দ লোটাস কলেজিয়েট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. মামুন-অর রশিদ বলেন, বাংলা একাডেমীর পর এ ধরনের অনুষ্ঠান শুধু গোয়ালন্দে অনুষ্ঠিত হয়। শুরু থেকে গভীর রাত পর্যন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত অনুষ্ঠান উপভোগ করেছি। আমার কাছে অসাধারণ লেগেছে। প্রতি বছর ২২ ফেব্রুয়ারী কবিতা আবৃত্তি উৎসবের জন্য অপেক্ষা করি।

সংগঠনের আহ্বায়ক সুজন সারওয়ার বলেন, আমাদের এ বারের আয়োজন ১২ জেলার আবৃত্তি শিল্পী ও সংগঠন অংশ নিয়ে। আমরা ২০১০ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি শুদ্ধ উচ্চারণে স্মরণোৎসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে সামাজিক সংগঠন একজের যাত্রা শুরু করেছিলাম এরপর থেকে প্রতিবছর ২২ ফেব্রুয়ারি আমাদের সংগঠনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আবৃত্তি উৎসবের আয়োজন করে থাকি। আমরা করোনার জন্য ৩বছর এই আয়োজন করতে পারিনি, তবে এই বার আমরা এই আয়োজন করেছি।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত, কমিটি ঘোষণা হবে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে

১২ জেলার আবৃত্তি শিল্পীদের নিয়ে গোয়ালন্দে আয়োজন হলো ‘একজ আবৃত্তি উৎসব’

পোস্ট হয়েছেঃ ১১:০৩:৩৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

সরোয়ার আহমেদ, গোয়ালন্দঃ মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে বাংলা ভাষার সঠিক চর্চার প্রয়াসে বাংলা কবিতার ডালি নিয়ে সামাজিক সংগঠন ‘একজ জাগরণ’ তার ১৫ তম বর্ষে পর্দাপন উপলক্ষে ১২ জেলার আবৃত্তি শিল্পীদের অংশগ্রহণে, আয়োজন হয়েছে ১২তম একজ আবৃত্তি উৎসব।

‘উচ্চারিত পঙ্ক্তিমালায় উজ্জীবিত হোক মানবতা’ এই স্লোগান কে সামনে রেখে বাংলা ভাষার সঠিক চর্চার প্রয়াসে প্রতিবছরের মতো এবারও রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে সামাজিক সংগঠন একজ জাগরণে আয়োজন করেছে ‘একজ আবৃত্তি উৎসব’। বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় শহীদ মুক্তিযোদ্ধা ফকির মহিউদ্দিন আনসার ক্লাব চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়েছে ১২ জেলা নিয়ে ১২তম এই আবৃত্তি উৎসব। উৎসবের শুরুতে স্থানীয় সাংস্কৃতিক সংগঠন অঙ্গন ও সব আবৃত্তি সংগঠনের প্রতিনিধি, আমন্ত্রিত অতিথি এবং দর্শকদের সঙ্গে নিয়ে জাতীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু হয়।

এ আবৃত্তি উৎসবে বাংলাদেশের যে সকল গুনি আবৃত্তি শিল্পী একক আবৃত্তি পরিবেশন করেছে তাদের মধ্যে রয়েছেন, দেশ বরেন্য আবৃত্তি শিল্পী মাহিদুল ইসলাম, আবৃত্তি শিল্পী মাসকুর-এ-সাত্তার কল্লোল, আলম আরা জুঁই, ইকবাল আহমেদ, ইমরান সাগর, কুমার লাভলু, আঞ্জুমান জুলিয়া, প্রদ্যোত রায়, মেহেদী হাসান, এইচ এম ফাহিম, মো. মুজাহিদুল ইসলাম, মো. শহিদুল ইসলাম এবং মারুফ।

এছাড়াও যে সকল আবৃত্তি সংগঠন দলীয়ভাবে আবৃত্তি পরিবেশন করেছেন তারা হলো, কুষ্টিয়া আবৃত্তি পরিষদ কুষ্টিয়া, ধৈবত আবৃত্তি ভূমি মাদারীপুর, উদ্ভাস আবৃত্তি সংগঠন মাদারীপুর, অনুনাদ গোপালগঞ্জ, ওঙ্কার আবৃত্তি কেন্দ্র সিরাজগঞ্জ, সঙ থিয়েটার ফরিদপুর এবং একজ আবৃত্তি পরিবার, গোয়ালন্দ রাজবাড়ী।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, রাজবাড়ী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফকির আব্দুল জব্বার, গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. মোস্তফা মুন্সী, গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র মো. নজরুল ইসলাম মন্ডল, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব ঘোষ, গোয়ালন্দ বাজার ব্যবসায়ী পরিষদের সভাপতি মো. ছিদ্দিক মিয়া সহ স্থাণীয় গণমান্য ব্যক্তিবর্গ।

কথা হয় উৎসবে আসা বেশ কয়েক জনের সাথে তারা দেশ জানান, গোয়ালন্দে অনেক অনুষ্ঠান হয় অনেক উৎসব হয় কিন্তু আমাদের এই গোয়ালন্দে এই রকম আবৃত্তি উৎসব শুধু মাত্র এই সামাজিক সংগঠনটি আয়োজন করে থাকে। সংগঠনটি আবৃত্তি সংগঠন না হলেও তারা প্রতি বছর এই আয়োজন করছে। এই রকম সুস্থ ধারার আয়োজনে আমরা সব সময় চাই।

গোয়ালন্দ লোটাস কলেজিয়েট স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. মামুন-অর রশিদ বলেন, বাংলা একাডেমীর পর এ ধরনের অনুষ্ঠান শুধু গোয়ালন্দে অনুষ্ঠিত হয়। শুরু থেকে গভীর রাত পর্যন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত অনুষ্ঠান উপভোগ করেছি। আমার কাছে অসাধারণ লেগেছে। প্রতি বছর ২২ ফেব্রুয়ারী কবিতা আবৃত্তি উৎসবের জন্য অপেক্ষা করি।

সংগঠনের আহ্বায়ক সুজন সারওয়ার বলেন, আমাদের এ বারের আয়োজন ১২ জেলার আবৃত্তি শিল্পী ও সংগঠন অংশ নিয়ে। আমরা ২০১০ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি শুদ্ধ উচ্চারণে স্মরণোৎসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে সামাজিক সংগঠন একজের যাত্রা শুরু করেছিলাম এরপর থেকে প্রতিবছর ২২ ফেব্রুয়ারি আমাদের সংগঠনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আবৃত্তি উৎসবের আয়োজন করে থাকি। আমরা করোনার জন্য ৩বছর এই আয়োজন করতে পারিনি, তবে এই বার আমরা এই আয়োজন করেছি।