১২:২১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দ আইডিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ঃ বেতনবিল স্বাক্ষরে প্রধান শিক্ষকের ঘুষ দাবি, দায় চাপালেন কর্মকর্তাদের ওপর

শামীম শেখ ও মইনুল হক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ আইডিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফকীর আব্দুল কাদের তার বিরুদ্ধে ওঠা বিদ্যালয়ের চলতি নভেম্বর মাস পর্যন্ত প্রায় পাঁচ মাসের বেতন বিল স্বাক্ষরে এক মাসের সমপরিমান প্রায় ৬ লক্ষ টাকা ঘুষ দাবির কথা অকপটে স্বীকার করেছেন।সাংবাদিকদের একটি দল তাঁর কার্যালয়ে সাক্ষাৎকার নিতে গেলে তিনি তাদের সামনে এ বিষয়ে স্বীকারোক্তি মূলক বক্তব্য দেন।

এ ক্ষেত্রে ফকীর আব্দুল কাদের বলেন, প্রতি বছর শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে অডিট কর্মকর্তারা সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অডিট করতে আসেন। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অডিটে এসে তারা এক মাসের সমপরিমান টাকা দাবি করেন। শিক্ষক নেতৃবৃন্দ যারা আছেন তাদের কাছ থেকে তারা এক মাসের সম পরিমান টাকা নিয়ে থাকেন। আমি সেই টাকার জন্যই আমার শিক্ষকদের কাছে টাকা দাবি করেছিলাম।

তিনি আরো বলেন, আমার আইডিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ে এর আগে আরো তিনবার অডিট হয়েছে। আর এই তিনবার অডিটে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের থেকে সবচেয়ে কম টাকা দিয়ে ভালো ব্যাবহার করে অডিট শেষ করেছি।

শিক্ষকদের গায়ে হাত তোলা ও জাতপাত তুলে গালাগালির বিষয়ে তিনি বলেন, আমি যদি কাওকে শারিরীক ভাবে আঘাত করি তাহলে তারা ডাক্তারি রিপোর্ট দেখাক। কোথায় সে ভর্তি হয়েছিলো দেখাক। প্রধান শিক্ষকের চেয়ারটা একটা কমান্ডিং চেয়ার। এই চেয়ারে বসে প্রতিষ্ঠান নিয়ন্ত্রণ করতে হলে অনেক কৌশল অবলম্বন করতে হয়। অনেক সময় রাগান্বিত হয়ে মুখ দিয়ে বেফাঁস কথা চলে আসে। এটাই সত্য, এটাই বাস্তব। একজন শিক্ষক ক্লাস নাই বলে টিফিনে বাসায় গিয়ে আর আসবে না, তখন তো আমি ক্ষিপ্ত হতেই পারি। আমি ব্যাক্তিগত কারনে শিক্ষকদের প্রতি রাগান্বিত বা ক্ষিপ্ত হইনা। প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে, প্রতিষ্ঠান সুন্দর ও ভালো ভাবে চলুক এবং যার যার দ্বায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করুক এটাই আমার প্রত্যাশা।

ভুক্তভোগী কয়েকজন শিক্ষক-কর্মচারি প্রধান শিক্ষকের এমন বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে বলেন, প্রধান শিক্ষক নিজের অপরাধ আড়াল করতে মিথ্যা কথা বলেছেন। তিনি সরাসরি আমাদের কাছে এক মাসের বেতনের সমপরিমান টাকা প্রায় ৬ লক্ষ দাবি করেন। তার বক্তব্যের অডিও ক্লিপ আমাদের সবার কাছে আছে। তাছাড়া শিক্ষকরা কেউ কর্তব্যে ফাঁকি দেন না। তারপরও যেনতেন কারনে আমাদের অকথ্য ভাষায় জাতপাত তুলে গালিগালাজ করেন। তিনি একজন বদমেজাজি ও উগ্র স্বভাবের লোক বলে তারা অভিহিত করেন।

গোয়ালন্দ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান বলেন, প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারিতার কারনে জুলাই থেকে চলতি নভেম্বর মাস পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানের ২৫ জন শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ রয়েছে। ওই বেতন ছাড়তে এক মাসের সম-পরিমান প্রায় ৬ লক্ষ টাকা দাবির অভিযোগে ভুক্তভোগীরা প্রতিকার চেয়ে ২০ নভেম্বর গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং জেলা ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনায় ইউএনও আমাকে এবং সমাজসেবা কর্মকর্তা মিলে দুই সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছেন। তদন্ত কাজ চলমান রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন বলেন, শিক্ষক-কর্মচারীদের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে সম্প্রতি দুই সদস্য বিশিস্ট তদন্ত কমিটি করে দেওয়া হয়েছে। প্রধান শিক্ষক তাদের অসহযোগিতা করছেন। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর এবং বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের আলোকে আমরা তাঁর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে জানাবো।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

গোয়ালন্দ আইডিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ঃ বেতনবিল স্বাক্ষরে প্রধান শিক্ষকের ঘুষ দাবি, দায় চাপালেন কর্মকর্তাদের ওপর

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:১৫:০৩ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ নভেম্বর ২০২৩

শামীম শেখ ও মইনুল হক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ আইডিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফকীর আব্দুল কাদের তার বিরুদ্ধে ওঠা বিদ্যালয়ের চলতি নভেম্বর মাস পর্যন্ত প্রায় পাঁচ মাসের বেতন বিল স্বাক্ষরে এক মাসের সমপরিমান প্রায় ৬ লক্ষ টাকা ঘুষ দাবির কথা অকপটে স্বীকার করেছেন।সাংবাদিকদের একটি দল তাঁর কার্যালয়ে সাক্ষাৎকার নিতে গেলে তিনি তাদের সামনে এ বিষয়ে স্বীকারোক্তি মূলক বক্তব্য দেন।

এ ক্ষেত্রে ফকীর আব্দুল কাদের বলেন, প্রতি বছর শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে অডিট কর্মকর্তারা সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অডিট করতে আসেন। সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অডিটে এসে তারা এক মাসের সমপরিমান টাকা দাবি করেন। শিক্ষক নেতৃবৃন্দ যারা আছেন তাদের কাছ থেকে তারা এক মাসের সম পরিমান টাকা নিয়ে থাকেন। আমি সেই টাকার জন্যই আমার শিক্ষকদের কাছে টাকা দাবি করেছিলাম।

তিনি আরো বলেন, আমার আইডিয়াল উচ্চবিদ্যালয়ে এর আগে আরো তিনবার অডিট হয়েছে। আর এই তিনবার অডিটে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের থেকে সবচেয়ে কম টাকা দিয়ে ভালো ব্যাবহার করে অডিট শেষ করেছি।

শিক্ষকদের গায়ে হাত তোলা ও জাতপাত তুলে গালাগালির বিষয়ে তিনি বলেন, আমি যদি কাওকে শারিরীক ভাবে আঘাত করি তাহলে তারা ডাক্তারি রিপোর্ট দেখাক। কোথায় সে ভর্তি হয়েছিলো দেখাক। প্রধান শিক্ষকের চেয়ারটা একটা কমান্ডিং চেয়ার। এই চেয়ারে বসে প্রতিষ্ঠান নিয়ন্ত্রণ করতে হলে অনেক কৌশল অবলম্বন করতে হয়। অনেক সময় রাগান্বিত হয়ে মুখ দিয়ে বেফাঁস কথা চলে আসে। এটাই সত্য, এটাই বাস্তব। একজন শিক্ষক ক্লাস নাই বলে টিফিনে বাসায় গিয়ে আর আসবে না, তখন তো আমি ক্ষিপ্ত হতেই পারি। আমি ব্যাক্তিগত কারনে শিক্ষকদের প্রতি রাগান্বিত বা ক্ষিপ্ত হইনা। প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে, প্রতিষ্ঠান সুন্দর ও ভালো ভাবে চলুক এবং যার যার দ্বায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করুক এটাই আমার প্রত্যাশা।

ভুক্তভোগী কয়েকজন শিক্ষক-কর্মচারি প্রধান শিক্ষকের এমন বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে বলেন, প্রধান শিক্ষক নিজের অপরাধ আড়াল করতে মিথ্যা কথা বলেছেন। তিনি সরাসরি আমাদের কাছে এক মাসের বেতনের সমপরিমান টাকা প্রায় ৬ লক্ষ দাবি করেন। তার বক্তব্যের অডিও ক্লিপ আমাদের সবার কাছে আছে। তাছাড়া শিক্ষকরা কেউ কর্তব্যে ফাঁকি দেন না। তারপরও যেনতেন কারনে আমাদের অকথ্য ভাষায় জাতপাত তুলে গালিগালাজ করেন। তিনি একজন বদমেজাজি ও উগ্র স্বভাবের লোক বলে তারা অভিহিত করেন।

গোয়ালন্দ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান বলেন, প্রধান শিক্ষকের স্বেচ্ছাচারিতার কারনে জুলাই থেকে চলতি নভেম্বর মাস পর্যন্ত প্রতিষ্ঠানের ২৫ জন শিক্ষক-কর্মচারীর বেতন বন্ধ রয়েছে। ওই বেতন ছাড়তে এক মাসের সম-পরিমান প্রায় ৬ লক্ষ টাকা দাবির অভিযোগে ভুক্তভোগীরা প্রতিকার চেয়ে ২০ নভেম্বর গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং জেলা ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা বরাবর একটি অভিযোগ দায়ের করেন। এ ঘটনায় ইউএনও আমাকে এবং সমাজসেবা কর্মকর্তা মিলে দুই সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছেন। তদন্ত কাজ চলমান রয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন বলেন, শিক্ষক-কর্মচারীদের লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে সম্প্রতি দুই সদস্য বিশিস্ট তদন্ত কমিটি করে দেওয়া হয়েছে। প্রধান শিক্ষক তাদের অসহযোগিতা করছেন। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর এবং বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের আলোকে আমরা তাঁর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে জানাবো।