January 20, 2022, 4:16 pm

পাঁচুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাতিজাকে অপহরন, ৯৯৯-এ নম্বরে ফোন করে উদ্ধার

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ৭, ২০২১
  • 60 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ী সদর থানার পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. আলাল খান এর ভাতিজাকে অপহরন করা হয়েছে। পরে ৯৯৯ নম্বরে অভিযোগ করে সদর থানা পুলিশের মাধ্যমে অপহরনের দুই ঘন্টার পর তাকে উদ্ধার করা হয়েছে।

পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের আড়পারা গ্রামের জালাল খান এর ছেলে রবিউল খান জানান, সোমবার সকাল ১১টার দিকে দুটি প্রাইভেটকারে ৭জন লোক আসে তাদের বাড়িতে। এসময় স্থানীয় পাঁচুরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের শালা সমন কাজী, মিরাজ, প্রিন্স, ইয়াছিন, সোহাগ ও ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল ইসলামসহ সবাই তাকে তার বাবা বাড়িতে আছে কিনা জানতে চায়। রবিউল তখন তার বাবা বাড়িতে নাই বলে জানায়। এসময় চেয়ারম্যানের শালা সুমন কাজী তার মাকে বলে, “জালালকে বল, আলাল যেন আজকের মধ্যে মনোনয়ন পত্র উঠিয়ে নেয়। তা না হলে আমরা এখন তোর ছেলেকে নিয়ে যাবো”।

এসময় তাদের অস্ত্র দেখিয়ে রবিউলকে গাড়িতে করে গোয়ালন্দ মোড় নিয়ে যায়। সেখান থেকে আলীপুর সহ বিভিন্ন স্থানে নেয় এবং তাকে মারধর করে। যাবার সময় তার মায়ের গায়েও আঘাত করে তারা। পরে তাদের বাড়ি থেকে জাতীয় সেবার হটলাইন নাম্বার ৯৯৯-এ ফোন করে প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বেলা ১টার দিকে মুকুন্দিয়া বাজারে এনে সদর থানা পুলিশের কাছে হাজির করা হয়। পুলিশ রবিউলের জবানবন্দি লিখে নেয়। পরে তার পরিবারকে ডেকে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

জালাল খানের স্ত্রী ও অপহরন হওয়া রবিউলের মা রিনা বেগম জানান, সকালে তাদের বাড়িকে ৭ জন লোক আসে দুটি গাড়ি নিয়ে। এসময় তাকে তার স্বামী জালাল বাড়িতে আছে কিনা জিজ্ঞেস করে। তিনি বাড়িতে নাই বল্লে তাদের অস্ত্র দেখিয়ে হুমকি দেওয়া হয় এবং তার ছেলে রবিউলকে অস্ত্র দেখিয়ে তুলে নিয়ে যায়। যাবার সময় বলে তোর স্বামী বাড়িতে আসলে আমাদের কাছে পাঠাবি, তোর ছেলেকে ফেরত দেব। পরে বাড়ির সবাইকে জানালে ফোন করে জানানো হয় প্রশাসনকে।

এ ঘটনা জানতে রবিউলের বাবা জালাল খান ফোনে জানান, ঘটনার কথা ৯৯৯-এ জানোনো হলে পুলিশ তার ছেলেকে উদ্ধার করে মুকুন্দিয়ায় এনে তাদের হাতে তুলে দেয় এবং পুলিশ তাদের সব ঘটনা শুনে লিখে নিয়ে যায়। তবে এখনও তিনি থানায় মামলা দায়ের করেননি। বাড়িতে আলোচনা স্বাপেক্ষে ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।

এ ঘটনার বিষয়ে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কাজী আলমগীর হোসেনকে বার বার ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

এ প্রসঙ্গে রাজবাড়ী সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সোহেল রানা জানান, অপহরনের ঘটনা ঘটেনি। তবে কথা বলার জন্যে তাকে নিয়ে গিয়েছিল শুনেছি। নির্বাচনের কারনে একটু ঝামেলা হচ্ছে।

তবে এ বিষয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাৎ হোসেনকে ফোন করা হলে তিনি অপহরনের ঘটনা ঘটেনি বলে দাবী করে বলেন, ছেলেটিকে কথা বলার জন্যে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে এ বিষয়ে তিনি কোন ধরনের অভিযোগ পাননি, অভিযোগ পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন বলে জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102