October 25, 2021, 9:44 am
Title :
টুঙ্গিপাড়ায় রাজবাড়ী জেলা আ.লীগের নেতৃবৃন্দের শ্রদ্ধা নিবেদন রাজবাড়ীর বিভিন্ন স্থানে ইলিশ শিকারের অপরাধে ২০জেলের জেল জরিমানা দৌলতদিয়ায় হেরোইন সহ গ্রেপ্তার ১ রাজবাড়ীতে শান্তি ও সম্প্রীতির পদযাত্রা গোয়ালন্দের পদ্মায় মা ইলিশ শিকারে ৫ জেলের কারাদন্ড পাংশায় অভিযানে ৭ জেলে আটক, ২০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল জব্দ হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার প্রতিবাদে রাজবাড়ীতে গন-অনশন ও বিক্ষোভ সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ওপর হামলা ও ভাংচুরের প্রতিবাদে বালিয়াকান্দিতে প্রতিবাদ সভা এক ঘন্টার জন্য প্রতিকী ইউএনও হলেন দশম শ্রেনীর স্কুল ছাত্রী বাবলী রাজবাড়ীতে চলন্ত ট্রেনে দুর্বৃত্তদের ছোড়া ঢিলে যুবক আহত

পদ্মা নদীতে অবৈধভাবে মাটি খনন করায় ঝুঁকিতে রাস্তা-বসতভিটা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২১
  • 53 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ক্যানালঘাট সংলগ্ন পদ্মা নদীতে দীর্ঘদিন ধরে স্যালো ইঞ্জিন চালিত খননযন্ত্রের সাহায্যে মাটি খনন করছেন স্থানীয় প্রভাবশালীরা। এতে গভীর গর্ত হওয়ায় স্থানীয় চলাচলের রাস্তা এবং বসতবাড়ি ভাঙন ঝুঁকিতে রয়েছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।

সরেজমিন দেখা যায়, ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ক্যানালঘাট সংলগ্ন নুরু চেয়ারম্যানের গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে গেছে পদ্মার ক্যানাল বা শাখা নদী। তার বিপরিতে রয়েছে ইদ্রিস মিয়ার পাড়া। দুই গ্রামের মাঝে বহমান নদীতে প্রায় দুই মাস ধরে বালু ব্যবসায়ী আফজাল মোল্লা ও লোকমান মন্ডল স্যালো ইঞ্জিন চালিত যন্ত্রের সাহায্যে মাটি উত্তোলন করে বিক্রি করছেন। দীর্ঘদিন মাটি উত্তোলন করায় গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে আশপাশের মাটি ধ্বসে পড়তে শুরু করেছে।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, দীর্ঘদিন মাটি উত্তোলনে গভীর গর্ত হয়েছে। খননযন্ত্র থেকে প্রায় ২০০ গজ দূরে নুরু চেয়ারম্যানের গ্রাম ও উত্তরে ইদ্রিস মিয়ার পাড়া যাতায়াতের রাস্তা। নুরু চেয়ারম্যান গ্রাম থেকে দেবগ্রাম ইউনিয়নের পশ্চিমে যাতায়াতের জন্য নদীর পাড় ধরে রয়েছে আরেকটি রাস্তা। দৌলতদিয়া এবং দেবগ্রাম ইউপির নদী ভাঙনের শিকার দুই শতাধিক পরিবার রাস্তার পাড় ধরে বসতি তুলেছে। গভীর গর্ত করায় ইদ্রিস মিয়ার পাড়ার রাস্তা ও দেবগ্রাম রাস্তার পাশ থেকে মাটি ধ্বসে পড়ছে। এলাকাবাসীর শঙ্কা গভীর গর্ত হওয়ায় মাটি তলদেশের সাথে রাস্তার পাড়ও ধ্বসে পড়তে পারে। এতে এলাকার বসত বাড়িও ভাঙন ঝুঁকিতে ফেলছে। মাটি উত্তোলন কারবারীদের সাথে সরকার দলীয় স্থানীয়দের অনেকে জড়িত থাকায় ভয়ে কেউ প্রতিবাদ করতে সাহস পায়না।

স্থানীয় ষাটার্ধ্বো বয়স্ক এক ব্যক্তি বলেন, “কে কার খবর নেই। প্রায় দুই মাস ধইরা মাটি কাটছে। কেউ এর প্রতিবাদ করছে না। অথচ পাশে রয়েছে ইদ্রিস মিয়ার গ্রামে যাতায়াতের রাস্তা। রাস্তার পাড় ধ্বসতে শুরু করেছে। রাস্তা ভেঙে গেলে চলাচল বন্ধ হয়ে যাবে। সাথে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সরকার দলের লোকজনও জড়িত। যে কারনে কেউ কিছু বলেনা।

দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান মন্ডল বলেন, কিছুদিন আগে সরকারি বরাদ্দকৃত ঘরের জন্য লোকমান মন্ডল নামের একজন মাটি তুলছিল বলে জানি। পরে জেনেছি লোকমানের কাটা শেষ হয়ে যাওয়ায় নতুন করে আফজাল মোল্লা মাটি কাটছে। অনেক দিন ধরে মাটি কাটায় সেখানে গভীর গর্ত হয়ে রাস্তা ও পাশের বসতভিটা ভাঙন ঝুঁকিতে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

অভিযুক্ত আফজাল মোল্লা বলেন, এক মাসের বেশি মাটি কাটছি। নদী ভাঙনের শিকার মানুষজন দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের পিছনে গ্রামের মতো করছে। নুরু চেয়ারম্যানের পাড়া নামক গ্রামেও বেশ কয়েকজন ভাঙনের শিকার হয়ে আসা বসতভিটায় মাটি ফেলা হচ্ছে। উপজেলা প্রশাসনের ভূমি অফিসের অনুমোতি নিয়ে মাটি কাটা হচ্ছে। আগামী সপ্তাহে মাটি কাটা শেষ হবে। এতে গভীর গর্ত হলেও তেমন কোন সমস্যা হবে না বলে তিনি দাবী করেন।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ওই এলাকায় সরকারি কোন ঘর বরাদ্দ নেই। সরকারি ঘরে মাটি ফেলার কথা সম্পূর্ণ মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন। বিষয়টি আমাদের জানা নেই। খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102