May 20, 2022, 10:26 pm
শিরোনামঃ
গোয়ালন্দে পদ্মার ভাঙনঃ থেমে আছে ঘাট আধুনিকায়ন কাজ রাজবাড়ীতে টিকা সপ্তাহ উপলক্ষে প্রশিক্ষণ কর্মশালা কালুখালীতে ভর্তুকি মূল্যে কৃষি যন্ত্রাংশ ক্রয়ে অনিয়মের অভিযোগ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় শ্রেনীর শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষন, ধর্ষক গ্রেপ্তার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথঃ তিন ফেরি বিকল, ঘাট এলাকায় পণ্যবাহী গাড়ির চাপ গোয়ালন্দে হেরোইনসহ তরুণ গ্রেপ্তার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল রাজবাড়ীতে শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রনে সচেতনতামূলক সভা রাজবাড়ীর পুলিশ পরিদর্শক অধীর চন্দ্র রায়ের বদলি জনিত বিদায় সংবর্ধনা রাজবাড়ীতে পেঁয়াজের দাম বাড়লেও লোকসানে চাষিরা

বসন্তপুরে একজনের ভিজিডি কার্ডের চাল আরেকজন তুলে নেয়ার অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৭, ২০২১
  • 102 Time View
শেয়ার করুনঃ

ইমরান মনিম, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নের মহারাজপুর গ্রামের হত দরিদ্র মঞ্জুরুল ইসলামের স্ত্রী রুনা বেগম। গত চার থেকে পাঁচ মাস আগে দুই বছর মেয়াদী তিনি ভিজিডির একটি কার্ড করতে ছবি ও জাতীয় পরিচয় পত্রের ফটোকপি দিয়েছিলেন ইউনিয়ন পরিষদে। কিন্তু জানেননা ভিজিডি’র দুই বছর মেয়াদী কার্ডটি তার নামে হয়েছে কিনা। সম্প্রতি জানতে পারেন কার্ডটি ইউনিয়ন পরিষদ তার নামে সম্পন্ন করেছে। তবে এখনও তার হাতে তুলে দেওয়া হয়নি।

রুনা বেগমে নামে কার্ডটির চাল উত্তোলন করেন একই গ্রামের ইসমাইল শেখের স্ত্রী কমেলা বেগম নামে একজন মহিলা। গত জানুয়ারী থেকে মার্চ পর্যন্ত এই তিন মাসের চাল এই কমেলা বেগম উত্তোলন করে নিয়ে গেছেন। কার্ডের মালিক রুনা বেগম হলেও বসন্তপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান মিয়ার সহযোগীতায় কার্ডটি প্রভাব খাটিয়ে কমলাকে দিয়ে চাল উত্তোলন করেন তিনি। অথচ কার্ডের প্রকৃত দাবিদার রুনা বেগম আজ তিন মাস ধরে কোন চাল উত্তোলন করতে পারছেন না। এতে অসহায় দরিদ্র রুনা বেগম তার সরকারী সহযোগীতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

রুনা বেগমের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, তিনি অসুস্থ হয়ে বিছানায় শুয়ে আছেন। বাড়িতে তার দুটি ছোট সন্তান ও স্বামী নিয়ে কোন রকম জনাকীর্ণ পরিবেশে একটি ছোট ছাপড়া ঘরে দরজা বিহীন ঘরে বসবাস করছেন। স্বামী মঞ্জুরুল ইসলাম দিন মজুর ও কৃষি কাজ করে দিনাতিপাত করেন। আমাদের কথা রশুনে তিনি অসুস্থ্য অবস্থায় ঘর থেকে বেড়িয়ে আসেন। অসহায়ের শেষ পর্যায়ে পৌছেছে এই রুনা বেগমের দারিদ্রতা। প্রভাবশালীদের প্রভাবের কারনে অসহায়দের সরকারী দান অনুদান সঠিকভাবে বন্টন সম্ভব হচ্ছেনা দরিদ্র অসহায় মানুষের মাঝে।

রুনা বেগম বলেন, তার নামে কার্ড হয়েছে শুনেছেন এবং পরিষদে গিয়ে জনতে পারেন তার নামও তালিকায় রয়েছে। অথচ তিনি কার্ড ও চাল কিছুই পাননা। তার নামে যদি কার্ডটি হয়ে থাকে তাহলে তিনি কার্ডটি ফেরত চান। এই কার্ডটি পেলে তিনি তার কষ্টের সংসারে একটু সহযোগীতা হত বলে জানান।

বসন্তপুর ইউপি সচিব মো. শোয়েবুর রহমা রাজিব বলেন, এই কার্ডটি রুনা বেগমের নামে রয়েছে। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মান্নান মিয়া চেয়ারম্যানের সাথে যোগাযোগ করে কার্ডটি কমেলা বেগম নামে একজনকে দিয়েছেন। বর্তমানে প্রকৃত কার্ডের মালিক রুনা বেগমের কার্ডটি দিয়ে কমেলা বেগম নামে এক মহিলা চাল তুলে নিচ্ছেন। এ পর্যন্ত তিনি তিন মাসের ৩০ কেজি হারে চাল উত্তোলন করেছেন। রুনা বেগমের কার্ডটির নম্বর-১৩৪।

বসন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যন মীর্জা বদিউজ্জামান বাবু বলেন, কার্ডের বিষয়টি নিয়ে তাকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খতিয়ে দেখে প্রকৃত কার্ডের মালিকের কাছে পৌছে দেওয়ার কথা বলেছেন। তিনি দু’একদিনের মধ্যে কার্ডটি রুনা বেগমের নামে রয়েছে কিনা চেক করে তার হাতে তুলে দেওয়ার ব্যবস্থা করবেন।

এ প্রসঙ্গে রাজবাড়ী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফাহমি মো. সায়েফ জানান, একজনের কার্ডের চাল অন্যজন তুলে খাবে এটা সম্পূন্য নিয়ম বহির্ভূত। প্রকৃত ভিজিডির কার্ডটি রুনার নামে হয়ে থাকলে অবশ্যই আগামীকালের মধ্যে তার কার্ড তার হাতে তুলে দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102