০১:৪২ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে ভাইকে নিয়ে মনোয়নপত্র জমা দিলেন কাজী কেরামত, সকল ভেদাভেদ ভুলে এক সাথে কাজ করার অঙ্গিকার

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ দীর্ঘদিনের মান অভিমান, সকল ভেদাভেদ ভুলে ভাইকে নিয়ে বৃহস্পতিবার রাজবাড়ী-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনিত নৌকার প্রার্থী সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। প্রথমে দুপুর ১২টার দিকে রাজবাড়ী জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে পরে দুপুর পৌনে দুইটার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন। এসময় দলের কয়েকশ নেতাকর্মী সঙ্গে ছিলেন।

দুপুর পৌনে দুইটার দিকে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী ছোট ভাই রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীকে সঙ্গে নিয়ে গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়ের সামনে উপস্থিত হন। এ সময় তাঁর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন ইরাদত আলীর পুত্র জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক কাজী রাকিুল ইসলাম শান্তনু, কাজী কেরামতের কন্যা জেলা যুব মহিলালীগের সভাপতি কানিজ ফাতিমা চৈতি, গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ.লীগের সভাপতি মো. মোস্তফা মুন্সী, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব ঘোষ, গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র ও পৌর আ.লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম, রাজবাড়ী পৌরসভার মেয়র আলমগীর শেখ তিতু, গোয়ালন্দ পৌরসভার সাবেক মেয়র শেখ মো. নিজাম সহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

কাজী কেরামত আলী উপজেলা পরিষদ চত্বরে পৌছানোর আগেই দলীয় কয়েকশ নেতাকর্মী উপস্থিত হন। তাদের উপস্থিতি মাত্রই নেতাকর্মীরা দলীয় শ্লোগানে মুখরিত করে তোলে। মিছিল সহকারে তারা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের বারান্দায় পৌছান। পরবর্তীতে আচরণবিধির কথা ভেবে অধিকাংশ নেতাকর্মী নিচে অবস্থান করেন এবং বাকিদের নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান। মনোনয়নপত্র গ্রহণ করেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন। এসময় দলীয় নেতাকর্মী ও জনপ্রতিনিধিগন পর্যায়ক্রমে কাজী কেরামত আলীর সাথে মনোনয়নপত্র ধরে ফটোশেসন করে। মনোনয়নপত্র জমা শেষে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে জড়ো হন গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে।

এসময় কাজী কেরামত আলী ছোট ভাই কাজী ইরাদত আলীকে পাশে বসিয়ে সাংবাদিকসহ সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, আজ থেকে আমাদের মাঝে কোন ভেদাভেদ নেই। সকল ভেদাভেদ, মানঅভিমান ভুলে আমরা একত্রিত হয়েছি। এখন থেকে নিজেদের মধ্যে এমনকি দলের মধ্যে কোন ভেদাভেদ নেই। সকলে মিলে শেখ হাসিনার নির্দেশ মতো নৌকাকে বিজয়ী করতে কাজ করে যাব। নৌকার মনোনয়ন নিতে আমাদের মধ্যে প্রতিযোগিতা ছিল। যেহেতু নৌকা আমাদের দিয়েছে। এখন থেকে আমার ভাই (কাজী ইরাদত আলী) আগের মতো নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করবেন। আপনারা নৌকাকে বিজয়ী করতে এবং ব্যাপক সংখ্যক ভোটারের উপস্থিতির বিষয়ে কাজ করবেন। কোন ভুলভ্রান্তি থাকলে ক্ষমা করে দিয়ে একত্রে কাজ করার অনুরোধ জানান।

কাজী কেরামত আলী আরও বলেন, বরাবরই আমি গোয়ালন্দের ভোটে এমপি নির্বাচিত হই। আবার যদি আমি এমপি নির্বাচিত হই এবং আ.লীগ সরকার গঠন করে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে দ্বিতীয় পদ্মাসেতু অথবা টানেল নির্মিত হবে। দৌলতদিয়া ও দেবগ্রামবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী নদী শাসন। সেই কাজ অনেকদূর এগিয়েছে। নির্বাচনের পর বাকি কাজ দ্রুত সম্পন্ন হবে।

তাঁর বক্তব্য শেষে কাজী ইরাদত আলী বলেন, আমার বড় ভাই নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন। এখন আর আমাদের মাঝে কোন ভেদাভেদ নেই। দলের নির্দেশে আমরা সকলে মিলেমিশে একত্রে কাজ করে যাবো। আমার বড় ভাই গোয়ালন্দবাসীর কাছে যে ওয়াদা করেছেন তিনি মেনে চলবেন। আমার ভাই তাঁর ওয়াদা রক্ষা করবেন এবং সকলের জন্য কাজ করবেন। পরে দুই ভাই একে ওপরকে মিষ্টি খাইয়ে দেন এবং দুইভাই একত্রিত হয়ে দুইহাত উচুঁ করে মেলে ধরে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। পরবর্তীতে গোয়ালন্দ পৌরসভা কার্যালয়ে গিয়ে নেতাকর্মীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে মিষ্টিমুখ করেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

রাজবাড়ীতে ভাইকে নিয়ে মনোয়নপত্র জমা দিলেন কাজী কেরামত, সকল ভেদাভেদ ভুলে এক সাথে কাজ করার অঙ্গিকার

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:১৪:৪৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১ ডিসেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ দীর্ঘদিনের মান অভিমান, সকল ভেদাভেদ ভুলে ভাইকে নিয়ে বৃহস্পতিবার রাজবাড়ী-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনিত নৌকার প্রার্থী সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। প্রথমে দুপুর ১২টার দিকে রাজবাড়ী জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে পরে দুপুর পৌনে দুইটার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন। এসময় দলের কয়েকশ নেতাকর্মী সঙ্গে ছিলেন।

দুপুর পৌনে দুইটার দিকে রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী ছোট ভাই রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীকে সঙ্গে নিয়ে গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার (ইউএনও) কার্যালয়ের সামনে উপস্থিত হন। এ সময় তাঁর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন ইরাদত আলীর পুত্র জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক কাজী রাকিুল ইসলাম শান্তনু, কাজী কেরামতের কন্যা জেলা যুব মহিলালীগের সভাপতি কানিজ ফাতিমা চৈতি, গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ.লীগের সভাপতি মো. মোস্তফা মুন্সী, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব ঘোষ, গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র ও পৌর আ.লীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম মন্ডল, সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম, রাজবাড়ী পৌরসভার মেয়র আলমগীর শেখ তিতু, গোয়ালন্দ পৌরসভার সাবেক মেয়র শেখ মো. নিজাম সহ আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

কাজী কেরামত আলী উপজেলা পরিষদ চত্বরে পৌছানোর আগেই দলীয় কয়েকশ নেতাকর্মী উপস্থিত হন। তাদের উপস্থিতি মাত্রই নেতাকর্মীরা দলীয় শ্লোগানে মুখরিত করে তোলে। মিছিল সহকারে তারা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের বারান্দায় পৌছান। পরবর্তীতে আচরণবিধির কথা ভেবে অধিকাংশ নেতাকর্মী নিচে অবস্থান করেন এবং বাকিদের নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যান। মনোনয়নপত্র গ্রহণ করেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. জাকির হোসেন। এসময় দলীয় নেতাকর্মী ও জনপ্রতিনিধিগন পর্যায়ক্রমে কাজী কেরামত আলীর সাথে মনোনয়নপত্র ধরে ফটোশেসন করে। মনোনয়নপত্র জমা শেষে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে জড়ো হন গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে।

এসময় কাজী কেরামত আলী ছোট ভাই কাজী ইরাদত আলীকে পাশে বসিয়ে সাংবাদিকসহ সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, আজ থেকে আমাদের মাঝে কোন ভেদাভেদ নেই। সকল ভেদাভেদ, মানঅভিমান ভুলে আমরা একত্রিত হয়েছি। এখন থেকে নিজেদের মধ্যে এমনকি দলের মধ্যে কোন ভেদাভেদ নেই। সকলে মিলে শেখ হাসিনার নির্দেশ মতো নৌকাকে বিজয়ী করতে কাজ করে যাব। নৌকার মনোনয়ন নিতে আমাদের মধ্যে প্রতিযোগিতা ছিল। যেহেতু নৌকা আমাদের দিয়েছে। এখন থেকে আমার ভাই (কাজী ইরাদত আলী) আগের মতো নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করবেন। আপনারা নৌকাকে বিজয়ী করতে এবং ব্যাপক সংখ্যক ভোটারের উপস্থিতির বিষয়ে কাজ করবেন। কোন ভুলভ্রান্তি থাকলে ক্ষমা করে দিয়ে একত্রে কাজ করার অনুরোধ জানান।

কাজী কেরামত আলী আরও বলেন, বরাবরই আমি গোয়ালন্দের ভোটে এমপি নির্বাচিত হই। আবার যদি আমি এমপি নির্বাচিত হই এবং আ.লীগ সরকার গঠন করে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে দ্বিতীয় পদ্মাসেতু অথবা টানেল নির্মিত হবে। দৌলতদিয়া ও দেবগ্রামবাসীর দীর্ঘদিনের দাবী নদী শাসন। সেই কাজ অনেকদূর এগিয়েছে। নির্বাচনের পর বাকি কাজ দ্রুত সম্পন্ন হবে।

তাঁর বক্তব্য শেষে কাজী ইরাদত আলী বলেন, আমার বড় ভাই নৌকার মনোনয়ন পেয়েছেন। এখন আর আমাদের মাঝে কোন ভেদাভেদ নেই। দলের নির্দেশে আমরা সকলে মিলেমিশে একত্রে কাজ করে যাবো। আমার বড় ভাই গোয়ালন্দবাসীর কাছে যে ওয়াদা করেছেন তিনি মেনে চলবেন। আমার ভাই তাঁর ওয়াদা রক্ষা করবেন এবং সকলের জন্য কাজ করবেন। পরে দুই ভাই একে ওপরকে মিষ্টি খাইয়ে দেন এবং দুইভাই একত্রিত হয়ে দুইহাত উচুঁ করে মেলে ধরে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। পরবর্তীতে গোয়ালন্দ পৌরসভা কার্যালয়ে গিয়ে নেতাকর্মীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করে মিষ্টিমুখ করেন।