১২:০১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

দৌলতদিয়ায় কাজী কেরামত আলীকে সংবর্ধনা, নৌকার সাথে বেঈমানী না করার অনুরোধ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে ৭ম বারের মতো দলীয় মনোনয়ন পেলেন রাজবাড়ী-১ (রাজবাড়ী সদর ও গোয়ালন্দ) আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী। এর আগে তিনি আরো ৬বার দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করে পাঁচবার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

দলীয়ভাবে মনোনয়ন পাওয়ার পর সোমবার (২৭ নভেম্বর) বিকেলে নিজ এলাকা রাজবাড়ীতে আসেন রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী। সোমবার বিকেল ৫টার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার ৪ নম্বর ঘাটে কেটাইপ ‘ঢাকা’য় ফেরিতে পৌছেন। ফেরি ঘাটে স্থাপিত সংবর্ধনা মঞ্চে নেতাকর্মীরা তাঁকে সংবর্ধনা দেন। এসময় তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের নৌকার সাথে বেঈমানী না করতে অনুরোধ করেন।

ফেরির পন্টুনসহ সড়কে কয়েক হাজার নেতাকর্মী শ্লোগানে মুখরিত করে তোলে। গলায় মালা পড়িয়ে, কেউ ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে বরণ করেন। “কেরামত ভাইয়ের আগমন, শুভেচ্ছা স্বাগতম। কেরামত ভাইয়ের সালাম নিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন, শেখ হাসিনার সালাম নিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন, শেখ হাসিনার মার্কা, নৌকা মার্কা, কেরামত ভাইয়ের মার্কা, নৌকা মার্কা” এভাবে নানাভাবে শ্লোগান দিতে থাকেন।

মঞ্চে কাজী কেরামত আলী সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, “এই নৌকা শেখ হাসিনার নৌকা। শেখ হাসিনা আপনাদের ভালোবেসে নৌকা দিয়েছেন। নৌকার সাথে কেউ বেঈমানি করবেননা। আমি আপনাদের ভাই, আপনাদের সন্তান। আমার ভুল ভ্রান্তি থাকতে পারে। ভুল ভ্রান্তি থাকলে ক্ষমা করে দিবেন। সকল ভেদাভেদ ভুলে নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে। আমি আপনাদের কাছে অনুরোধ করি, আপনাদের ভাই হিসেবে সবকিছু ভুলে নৌকা জিতানোর জন্য যা করনীয় সকলে তাই করবেন।”

জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক ও গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরীর সঞ্চালনায় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হেদায়েত হোসেন সোহরাব, আ.লীগ নেতা এ্যাড. রফিকুল ইসলাম, গোয়ালন্দ উপজেলা আ.লীগের সহসভাপতি মামুন-অর রশিদ, জেলা কৃষকলীগের আহ্বায়ক আবু বক্কার খান, জেলা আ.লীগের সদস্য, গোয়ালন্দ পৌরসভার সাবেক মেয়র শেখ মো. নিজাম, জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ইউনুস মোল্যা, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম মাহাবুব রাব্বানী প্রমূখ।

তবে অনুষ্ঠানে রাজবাড়ী জেলা এবং গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেননা। কাজী কেরামত আলী সমর্থিত বা তাঁর অনুসারী নেতাকর্মীরা জড়ো হন।

বক্তব্য শেষে মঞ্চে উপস্থিত দলীয় নেতাকর্মীরা তাঁকে ফুলের তোড়া এবং মালা দিয়ে বরণ করে নেন। প্রথম দিকে দুই-তিনজন ফুলের তোড়া দিতে পারলেও পরবর্তীতে ভিড়ের কারনে মঞ্চে কেউ উঠতে না পারায় আর কেউ ফুলের তোড়া দিতে পারেননি। সন্ধ্যা ঘনিয়ে যাওয়ায় উপস্থিত রাজবাড়ী সদর উপজেলার নেতাকর্মীদের তিনি রাজবাড়ী গিয়ে ফুলের তোড়া দেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে মঞ্চ থেকে দ্রুত নেমে পড়ে রাজবাড়ীর উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেন।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদীয় আসন-২০৯ থেকে কাজী কেরামত আলী, তাঁর আপন ভাই জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীসহ ৬জন দলীয় মনোনয়নপত্র জমা দেন। রাজবাড়ী-১ আসন থেকে কাজী কেরামত আলী নৌকা প্রতিক নিয়ে ১৯৯৩ সালের উপনির্বাচনে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৯৬, ২০০৮, ২০১৪ এবং ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হন। ২০০১ সালের নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ামের কাজে পরাজিত হন। পাঁচবারের নির্বাচিত সাংসদ কাজী কেরামত আলী ২০১৮ সালের শুরুর দিকে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী (মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা বিভাগ) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

দৌলতদিয়ায় কাজী কেরামত আলীকে সংবর্ধনা, নৌকার সাথে বেঈমানী না করার অনুরোধ

পোস্ট হয়েছেঃ ১০:২০:৩৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ নভেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে ৭ম বারের মতো দলীয় মনোনয়ন পেলেন রাজবাড়ী-১ (রাজবাড়ী সদর ও গোয়ালন্দ) আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী। এর আগে তিনি আরো ৬বার দলীয় মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করে পাঁচবার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

দলীয়ভাবে মনোনয়ন পাওয়ার পর সোমবার (২৭ নভেম্বর) বিকেলে নিজ এলাকা রাজবাড়ীতে আসেন রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী কাজী কেরামত আলী। সোমবার বিকেল ৫টার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার ৪ নম্বর ঘাটে কেটাইপ ‘ঢাকা’য় ফেরিতে পৌছেন। ফেরি ঘাটে স্থাপিত সংবর্ধনা মঞ্চে নেতাকর্মীরা তাঁকে সংবর্ধনা দেন। এসময় তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের নৌকার সাথে বেঈমানী না করতে অনুরোধ করেন।

ফেরির পন্টুনসহ সড়কে কয়েক হাজার নেতাকর্মী শ্লোগানে মুখরিত করে তোলে। গলায় মালা পড়িয়ে, কেউ ফুলের পাপড়ি ছিটিয়ে বরণ করেন। “কেরামত ভাইয়ের আগমন, শুভেচ্ছা স্বাগতম। কেরামত ভাইয়ের সালাম নিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন, শেখ হাসিনার সালাম নিন, নৌকা মার্কায় ভোট দিন, শেখ হাসিনার মার্কা, নৌকা মার্কা, কেরামত ভাইয়ের মার্কা, নৌকা মার্কা” এভাবে নানাভাবে শ্লোগান দিতে থাকেন।

মঞ্চে কাজী কেরামত আলী সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বলেন, “এই নৌকা শেখ হাসিনার নৌকা। শেখ হাসিনা আপনাদের ভালোবেসে নৌকা দিয়েছেন। নৌকার সাথে কেউ বেঈমানি করবেননা। আমি আপনাদের ভাই, আপনাদের সন্তান। আমার ভুল ভ্রান্তি থাকতে পারে। ভুল ভ্রান্তি থাকলে ক্ষমা করে দিবেন। সকল ভেদাভেদ ভুলে নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে। আমি আপনাদের কাছে অনুরোধ করি, আপনাদের ভাই হিসেবে সবকিছু ভুলে নৌকা জিতানোর জন্য যা করনীয় সকলে তাই করবেন।”

জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক ও গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান চৌধুরীর সঞ্চালনায় মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হেদায়েত হোসেন সোহরাব, আ.লীগ নেতা এ্যাড. রফিকুল ইসলাম, গোয়ালন্দ উপজেলা আ.লীগের সহসভাপতি মামুন-অর রশিদ, জেলা কৃষকলীগের আহ্বায়ক আবু বক্কার খান, জেলা আ.লীগের সদস্য, গোয়ালন্দ পৌরসভার সাবেক মেয়র শেখ মো. নিজাম, জেলা পরিষদ সদস্য ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি ইউনুস মোল্যা, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম, গোয়ালন্দ উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম মাহাবুব রাব্বানী প্রমূখ।

তবে অনুষ্ঠানে রাজবাড়ী জেলা এবং গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেননা। কাজী কেরামত আলী সমর্থিত বা তাঁর অনুসারী নেতাকর্মীরা জড়ো হন।

বক্তব্য শেষে মঞ্চে উপস্থিত দলীয় নেতাকর্মীরা তাঁকে ফুলের তোড়া এবং মালা দিয়ে বরণ করে নেন। প্রথম দিকে দুই-তিনজন ফুলের তোড়া দিতে পারলেও পরবর্তীতে ভিড়ের কারনে মঞ্চে কেউ উঠতে না পারায় আর কেউ ফুলের তোড়া দিতে পারেননি। সন্ধ্যা ঘনিয়ে যাওয়ায় উপস্থিত রাজবাড়ী সদর উপজেলার নেতাকর্মীদের তিনি রাজবাড়ী গিয়ে ফুলের তোড়া দেওয়ার অনুরোধ জানিয়ে মঞ্চ থেকে দ্রুত নেমে পড়ে রাজবাড়ীর উদ্দেশ্যে রওয়ানা করেন।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংসদীয় আসন-২০৯ থেকে কাজী কেরামত আলী, তাঁর আপন ভাই জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলীসহ ৬জন দলীয় মনোনয়নপত্র জমা দেন। রাজবাড়ী-১ আসন থেকে কাজী কেরামত আলী নৌকা প্রতিক নিয়ে ১৯৯৩ সালের উপনির্বাচনে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৯৬, ২০০৮, ২০১৪ এবং ২০১৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত হন। ২০০১ সালের নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়ামের কাজে পরাজিত হন। পাঁচবারের নির্বাচিত সাংসদ কাজী কেরামত আলী ২০১৮ সালের শুরুর দিকে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী (মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা বিভাগ) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।