February 1, 2023, 3:13 am
শিরোনামঃ
রাজবাড়ী সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দুইদিন ব্যাপি বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতার উদ্বোধন গোয়ালন্দে পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কর্মসূচির উদ্বুদ্ধকরণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত ফরিদপুরের টেপাখোলা কাদরিয়া চিশতীয়া পাক দরবার শরীফের উরস সম্পন্ন গোয়ালন্দে পুকুর সেচের পানিতে কৃষকের ফসল প্লাবিত, ক্ষতিপূরণ দাবি গোয়ালন্দে দৈনিক গণমুক্তি পত্রিকার ৫০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন কুয়াশায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে সাড়ে ১১ ঘন্টা পর ফেরি চলাচল শুরু চট্রগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রকৌশলীর উপর হামলার প্রতিবাদে রাজবাড়ীতে মানববন্ধন ফরিদপুরে চিশ্‌তি মঞ্জিল দরবার শরীফের বাৎসরিক ওরশ অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে কৃষকদের নিয়ে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত রাজবাড়ীতে মায়ের সাথে অভিমানে বিষ পানে ছেলে জিদ্দি’র মৃত্যু

চার গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র ভরসা নড়বড়ে বাশের সাঁকো

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ডিসেম্বর ৪, ২০২২
  • 95 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার জৈনদ্দিন সরদার পাড়া ও সাহাজদ্দিন মাতুব্বর পাড়ার পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া দুদুখান পাড়া খালের একপার থেকে আরেকপারে যাতায়াতের একমাত্র ভরসা বাঁশের সাকো। ব্রীজ না থাকায় ৬০ বছর ধরে স্থানীয়দের তৈরী বাশের সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন চার গ্রামের প্রায় ৪-৫ হাজার মানুষ নিয়মিত আসা যাওয়া করেন।

পাশের ফরিদপুর সদর উপজেলার ঈশান গোপালপুর ইউনিয়নের গঞ্জুর মাতুব্বর পাড়া ও দুর্গাপুর গ্রামের মানুষজনের খাল পাড়াপাড়ের একমাত্র ভরাস এই নড়বড়ে সাকো। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, সীমানা জটিলতা সহ জনপ্রতিনিধিদের অনাগ্রহের কারনে খালের ওপর কোন ব্রীজ নির্মিত হচ্ছেনা।

স্থানীয়রা জানান, গোয়ালন্দের উজানচর ইউনিয়নের দুদুখানপাড়া দিয়ে ফরিদপুরগামী বয়ে গেছে খাল। সারা বছর এই খালে পানি থাকে। জৈনদ্দিন সরদার পাড়া ও সাহাজদ্দিন মাতুব্বর পাড়া দিয়ে বহমান খালটি স্থানীয় চারটি গ্রামকে পূর্ব ও পশ্চিম পাড়ায় ভাগ করেছে। কৃষিনির্ভর এসব পরিবারের যাতায়াতের বড় সমস্যা খাল। ব্রীজ না হওয়ায় স্থানীয়দের বাশের সাঁকো ব্যবহার করতে হয়। ৬০ বছরের বেশি ধরে তারা নিজ উদ্যোগে সাকো তৈরী করে চলাচল করছেন। সাকোটির পূর্ব পাশে রয়েছে জৈনদ্দিন সরদার পাড়ার অংশ, পশ্চিমে জৈনদ্দিন সরদার পাড়ার বাকি অংশ ও সাহাজদ্দিন মাতুব্বর পাড়া। সাঁকোর দক্ষিণে খালের পূর্বে ফরিদপুর সদর গঞ্জুর মাতুব্বর পাড়া একাংশ এবং পশ্চিমে গঞ্জুর মাতুব্বর পাড়া বাকি অংশ ও দুর্গাপুর গ্রাম।

খালের পূর্বপাশে সাকো সংলগ্ন অবস্থিত উসমান জমুদ্দার বলেন, প্রায় ৬০ বছর ধরে এখানে বাপ-চাচার বাড়ি। দেশ স্বাধীনের আগ থেকে দেখছি বাঁশের সাকো। সীমানা নিয়ে দুই ইউনিয়ন পরিষদ থেকে মাপঝোকের পর দক্ষিণে আমি পড়েছি ফরিদপুরের ঈশান গোপালপুর ইউপির গঞ্জুর মাতুব্বর পাড়ার মধ্যে। আমার আরেক ভাই পড়েছে গোয়ালন্দর উজানচর ইউপির জৈনদ্দিন সরদার পাড়ার মধ্যে। আলাদা ইউপির বাসিন্দা হলেও চার গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র ভরসা এই সাকো।

জৈনদ্দিন সরদার পাড়ার হাসেম মন্ডল বলেন, প্রায় ৭০ বছর ধরে বাঁশের সাকো ব্যবহার করছি। ছোটবেলা থেকে বাপ-চাচাদের সাকো তৈরী করে চলতে দেখেছি। দুই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগন এ অঞ্চলে বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠানে আসলেও সীমান্তবর্তী হওয়ায় কেউ ব্রীজ নির্মাণের ব্যাপারে আগ্রহ দেখায়না। ব্রীজ না থাকায় এখানকার ছেলেমেয়েদের বিয়ে দিতেও বেগ পোহাতে হয়।

স্থানীয় সাহাজদ্দিন মাতুব্বর পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বেলায়েত হোসেন বলেন, যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো না থাকায় শিক্ষার্থীরা ঠিকমতো আসতে পারেনা। শিক্ষার্থীসহ চার গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ ভোগান্তিতে আছেন। কোন অনুষ্ঠান, প্রয়োজনে রিক্সা-ভ্যান বা গাড়ি খাল পার রাস্তায় রাখতে হয়।

উজানচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন মৃধা বলেন, এলাকার চারটি গ্রামের কয়েকশ পরিবারের প্রায় ৪-৫ হাজার মানুষ নিয়মিত চলাচল করে। এলাকাবাসীর যাতায়াতের সুবিদার্থে উপজেলা পরিষদ থেকে ইটের রাস্তা করে দিয়েছি। ওই খালের ওপর ব্রীজ নির্মাণের জন্য ইতিমধ্যে স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী অধিদপ্তরের মাধ্যমে প্রস্তাবনা পাঠিয়েছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102