August 12, 2022, 11:26 am
শিরোনামঃ
গোয়ালন্দে ‘গ্রামীণ উন্নয়নে পর্যটন’ শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত রাজবাড়ীতে ধর্ষনকালে এলাকাবাসি হাতেনাতে আটক করে পুলিশে দিল ধর্ষককে রাজবাড়ীতে মান ভেদে প্রতি কেজি চালের বাজার দর বেড়েছে ৬ থেকে ৮ টাকা রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দির পদ্মবিলের অপার সৌন্দর্যে মুগ্ধ দর্শনার্থীরা রাজবাড়ীর চর চাঁদপুর ও রামনগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিদায় সংবর্ধনা যৌনপল্লীর মা ও শিশুদের দিনব্যাপী বিনামূল্যে চিকিৎসাবসেবা দিল উত্তোরণ ফাউন্ডেশন রাজবাড়ীতে কৃষি ব্যাংকে ঋণ জালিয়াতি, মৃত ব্যক্তির নামেও ঋণ গোয়ালন্দে বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে সেলাই মেশিন ও অনুদানের চেক বিতরণ ফরিদপুর জেলা আওয়মীলীগ কার্যালয়ে ‘‘বঙ্গবন্ধু কর্নার” স্থাপন গোয়ালন্দে নবম শ্রেনীর স্কুল ছাত্রী অপহরণের চার মাস পর উদ্ধার, গ্রেপ্তার ১

তারা জানেন না হটলাইন নাম্বার ৩৩৩ এর সেবা কি?

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, জুলাই ১২, ২০২১
  • 216 Time View
শেয়ার করুনঃ

শামিম রেজা, রাজবাড়ীঃ চলমান লকডাউনে কাজ না থাকায় বিপাকে দিনমজুর ও নির্মাণ শ্রমিকরা। লকডাউন প্রভাবে সংকুচিত হয়েছে শ্রমজীবী মানুষের কাজের সুযোগ। লঞ্চ ঘাট, ফেরি ঘাট,বাস টার্মিনাল, রেলস্টেশন ও নিকটস্থ বাজারে নেই মানুষের আনাগোনা। কাজকর্ম ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কষ্টে রয়েছে অনেক পরিবার। অনেকেরই সংসার চলছে অর্ধাহারে।

সরকার থেকে বলা হচ্ছে যদি কোন পরিবার খাবারের কষ্টে থাকে এবং সেই পরিবারের লোকজন ৩৩৩ ফোন দিয়ে খাদ্য চাইলে তাদের বাড়িতে খাবার পৌছে দেওয়া হবে। এই বিষয়টা অক্ষর জ্ঞান জানা মানুষেরা বুঝলেও যাদের অক্ষর জ্ঞান নেই তারা সেটা জানেন না। জানেন না ৩৩৩ নম্বরের সেবা কি?

রোববার সকাল সাড়ে দশটার দিকে রাজবাড়ী রেলগেটে গিয়ে দেখা যায় কয়েকজন শ্রমিক একটি গাছের নিচে বসে আছে। এসব শ্রমিক উত্তর বঙ্গ থেকে এসেছে। লকডাউনের কারণে বাড়িতে ফিরতে পারছেন না। আবার কাজও পাচ্ছে না। থাকার জায়গা না থাকায় থাকতে হচ্ছে রেল স্টেশনে। প্রতিদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা পযন্ত এই গাছ তলাতেই বসে থাকে।

সেখানে সিরাজগঞ্জ থেকে আসা আব্দুল গফুরের সাথে কথা হয়। তিনি জানায়, রোজার ঈদের পরে রাজবাড়ীতে এসেছি।কাজ না থাকার কারণে আমরা খুবই কষ্টে আছি। এক বেলা খেয়ে না খেয়ে রেলস্টেশনে ঘুমাতে হয়। আমার মত অনেকই একই অবস্থায় আছে।

শহরের আজাদি ময়দান চত্ত্বরে কথা হয় পবিত্র কুমার চৌধুরী ও নিশিকান্ত চৌধুরীর সাথে। তারা দুজনেই একটি খাবার হোটেলের রান্নার জ্বালানি খড়ি কাটেন। লকডাউনের কারণে হোটেলে কাস্টমার কম তাই এখন তাদের কাজ নেই। তবুও তারা প্রতিদিন আসেন যদি কোন কাজ পাওয়া যায়। আয় রোজগার না থাকায় খুবই কষ্টে পরিবার নিয়ে দিন পার করছেন। তাদের কাছে এই প্রতিবেদক ৩৩৩ নাম্বারে কথা জিজ্ঞেস করলে তারা জানান তাদের কোন ফোন নেই। তাছাড়া ৩৩৩ কি? এটা থেকে কিভাবে খাবার আসে? এই নাম্বারে ফোন দিলে সরকার খাবার দেয় সেটাও তাদের কেউ জানায় নি। আব্দুল গফুর,পবিত্র কুমার চৌধুরী ও নিশিকান্ত চৌধুরীর মত অনেকেই রয়েছে যারা জানেন না ৩৩৩ কি? এই ৩৩৩ থেকে কিভাবে খাবার আসে ?

রাজবাড়ী রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির সাধারন সম্পাদক শামিমা মুনমুনের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন ৩৩৩ নাম্বারটি অধিক সহজ সরাসরি হট নাম্বার চালু করা যেতে পারে যেহেতু এই নাম্বারের সুবিধা ভোগী রা তৃনমুল পর্যায়ের সে জন্য ব্যাপক প্রচার এবং সহজলভ্য করা প্রয়োজন।

এ প্রসঙ্গে রাজবাড়ী সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফাহমি মো. সায়েফ জানান, গত ১০ দিনে আমরা ৩৩৩ নাম্বারে সরকারের সুবিধার আওতায় মোট ২৯ জনের সাহায্য দিয়েছি। যদি কোন পরিবারে খাদ্য সংকট থাকে এবং সেই পরিবার থেকে ৩৩৩ ফোন দিয়ে খাদ্য সহায়তা চাইলেই তাদের ঘরে খাদ্য পৌছে দেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
DeveloperAsif
themesba-lates1749691102