May 20, 2022, 11:35 pm
শিরোনামঃ
রাজবাড়ীতে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তর সরবরাহকারী চক্রের ১৩ সদস্য আটক গোয়ালন্দে পদ্মার ভাঙনঃ থেমে আছে ঘাট আধুনিকায়ন কাজ রাজবাড়ীতে টিকা সপ্তাহ উপলক্ষে প্রশিক্ষণ কর্মশালা কালুখালীতে ভর্তুকি মূল্যে কৃষি যন্ত্রাংশ ক্রয়ে অনিয়মের অভিযোগ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় শ্রেনীর শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষন, ধর্ষক গ্রেপ্তার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথঃ তিন ফেরি বিকল, ঘাট এলাকায় পণ্যবাহী গাড়ির চাপ গোয়ালন্দে হেরোইনসহ তরুণ গ্রেপ্তার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল রাজবাড়ীতে শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রনে সচেতনতামূলক সভা রাজবাড়ীর পুলিশ পরিদর্শক অধীর চন্দ্র রায়ের বদলি জনিত বিদায় সংবর্ধনা

‘পদ্মাকন্যা’ খ্যাত উন্নত রাজবাড়ী

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, জুলাই ১, ২০২১
  • 296 Time View
শেয়ার করুনঃ

জীবন চক্রবর্তী, রাজবাড়ীঃ রাজা সূর্য কুমারের স্মৃতি বিজড়িত স্মৃতিচিহ্ন এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপার মহিমায় উজ্জ্বল নক্ষত্র আমাদের রাজবাড়ী জেলা। ঢাকা বিভাগের অর্ন্তগত রাজবাড়ি জেলাটি বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চলে অবস্থিত। আয়তনে জেলাটি প্রায় ১১১৮.৮০ বর্গ কি.মি.।

রাজবাড়ি জেলার পশ্চিমে রয়েছে কুষ্টিয়া জেলা, পূর্বে ফরিদপুর জেলা,উত্তরে পদ্মা নদী এবং দক্ষিণে রয়েছে গড়াই নদী,তারপর ঝিনাইদহ ও মাগুরা জেলা। মোট ৫টি উপজেলা নিয়ে বিস্তৃত একটি অঞ্চল। এখানে পদ্মানদী ছাড়াও হড়াই, গড়াই, চন্দনা, কুমার আর চিত্রা নদীর পলি বাহিত উর্বর মাটি রাজবাড়ী জেলাকে প্রতি বছরই পূর্ণ্যস্নানে সিক্ত করে। দক্ষিণবঙ্গের ২১টি জেলার প্রবেশদ্বার এই রাজবাড়ী জেলা।

১৯৮৪ সালে ১লা মার্চ গোয়ালন্দ মহকুমা রাজবাড়ী জেলায় রূপান্তরিত হয়। ৫টি উপজেলা ৩টি পৌরসভা এবং ৪২টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত রাজবাড়ী জেলা। ২০০৯ সালে পাংশার অংশ বিশেষ এলাকা নিয়ে কালুখালী আরেকটি উপজেলার সৃষ্টি হয়। ১৮৯৯ সালে ফরিদপুর জেলা সৃষ্টি হলে নাটরের রাজা রাজবাড়ীকে এর অন্তর্ভূক্ত করে দেন।উল্লেখ থাকে যে,১৭৯৩ সালে চিরস্থায়ী বন্দোবস্তকালে রাজবাড়ী যশোর জেলার অন্তর্ভুক্ত ছিল। বেলগাছি গোয়ালন্দ মহুকুমার আলাদা থানা ছিল এবং রাজবাড়ী নামে কোন কিছুই ছিলো না।  লক্ষীকোলের রাজা সূর্যকুমার এবং বানীবহ জমিদার গিরিজা শংকর মজুমদার বর্তমান রাজবাড়ী পৌর এলাকার সীমানায় নানা স্থাপনা গড়ে তুলে উন্নত জনপদে পরিনত করেন। রাজবাড়ী রেল স্টেশনটি ১৮৯০ সালে স্থাপিত হয় বলে এল এন মিশ্র একটি পুস্তকে তা উল্লেখ করেন। ভৌগোলিক রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে রাজবাড়ী জেলার রয়েছে ফকির সন্ন্যাসী আন্দোলন, স্বদেশী আন্দোলন, ফরায়েজী আন্দোলন, সিপাহী বিদ্রোহ ব্রিটিশ বিরোধী বহু আন্দোলন হয়েছে। উনসত্তরের গণ আন্দোলন, ভাষা আন্দোলন, সর্বোপরি মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে রাজবাড়ীর ভূমিকা উল্লেখযোগ্য। সাংস্কৃতিক অঙ্গনে উপমহাদেশ খ্যাত জল তরঙ্গ বাদক বামন দাস গুহের জন্মস্থান এই রাজবাড়ীতেই। বিশ্ববিখ্যাত শিল্পী রশিদ চৌধুরীর জন্ম এই জেলাতেই। কথা সাহিত্যিক বিষাদ সিন্ধুর রচয়িতা মীর মোশাররফ হোসেনের সমাধিও এ জেলার বালিয়াকান্দি উপজেলার পদমদীর ছায়া সুনিবিড় পরিবেশে অবস্থিত।

রাজবাড়ীতে পূর্বাপেক্ষা অনেক উন্নয়ন সাধন হয়েছে। জেলার বৃহৎ শিল্পের মধ্যে গোয়ালন্দ টেক্সটাইল মিল নামে একটি সুতাকল, রাজবাড়ী জুট মিলস লিমিটেড, গোল্ড এশিয়া জুট মিলস লিমিটেড, সাগর অটো রাইস মিলস লিমিটেড , এর মধ্যে দৌলতদিয়া রেকটিফাইড স্পিরিট প্রস্তুত কারখানা অন্যতম। এছাড়া বিভিন্ন ট্রেডে কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহ গড়ে উঠেছে। পূর্বাপেক্ষা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিল্প কলকারখানা বেড়েছে অনেক।

রাজবাড়ী জেলার উল্লেখযোগ্য পর্যটন সমূহের মধ্যে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এঁর আবক্ষ ভাষ্কর্। গোয়ালন্দ মোড়ে অবস্থিত মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্য “বিজয় একাত্তর'”। কালুখালি চাঁদপুর মোড়ে অবস্থিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য। রাজবাড়ী জেলা সদরে “লোকোশেড বধ্যভূমি”। রাজবাড়ী রেলগেট চত্বরে অবস্থিত “শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ফলক” রাজবাড়ী কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল সংলগ্ন “শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ফলক” গোয়ালন্দ উপজেলা কাশিমা গ্রামে “মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি সংরক্ষণ জাদুঘর” প্রভৃতি।

রাজবাড়ী জেলার পদ্মা নদীর আকর্ষণসমূহঃ রাজবাড়ী জেলার পদ্মা নদী কেন্দ্রিক পর্যটন কেন্দ্রের এক অপার বিস্ময়। এখানে রয়েছে জল সম্পদের এক বিপুল সমাহার। পদ্মার নৈসর্গিক দৃশ্য এবং এখানে বিদ্যমান ঐতিহাসিক স্থান ও প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন সমূহ সব ধরনের পর্যটকদের মুগ্ধ করেছে। নদী ভ্রমণ পিপাসুদের জন্য পদ্মা নদী পর্যটন আকর্ষণের অনন্য কেন্দ্রবিন্দু। রাজবাড়ির উত্তর দিকের পুরো অংশ জুড়েই পদ্মা নদীর অবস্থান, ফলে রাজবাড়ীতে আগত পর্যটকবৃন্দ সহজেই পদ্মায় ভ্রমণের সুযোগ পায়, এতে করে গবেষণা কাজে দেশি-বিদেশি মানুষ ও সাংবাদিক ভাইদের তথ্য সংগ্রহ করতে সুবিধা হয়। রাজবাড়ী শহরের উপকণ্ঠে পদ্মার তীরবর্তী গেদার বাজার।এই স্থানটি সার্বক্ষণিক পদ্মার মৃদুমন্দ বাতাস প্রবাহিত হয়, ফলে প্রত্যাহিক ভ্রমণে এটি একটি মনোমুগ্ধকর জায়গা। প্রতিদিন সকাল-বিকাল এবং সাপ্তাহিক ছুটির দিন সহ বিভিন্ন উৎসবের দিনগুলোতে এখানে ব্যাপক লোকসমাগম হয় গ্রামীণ মেলা বসে।

গোয়ালন্দ ঘাটঃ দক্ষিণাঞ্চলের ২১টি জেলার প্রবেশদ্বার এই গোয়ালন্দ ঘাট। এখানকার ফেরিঘাট একটি ব্যস্ত ও কর্মচঞ্চল এলাকা। বাংলাদেশের দক্ষিণ অঞ্চল যেমনঃ ফরিদপুর, যশোর, খুলনা, কুষ্টিয়া বরিশাল। পদ্মা নদী দ্বারা বিভক্ত ঢাকা হতে দক্ষিণাঞ্চলের এসব জেলায় পৌঁছতে হলে দৌলতদিয়া ঘাট অতিক্রম করতে হয়। তদানীন্তন ব্রিটিশ ভারতে পশ্চিম আর পূর্বের সেতুবন্ধন হিসেবে বাংলার প্রবেশদ্বার নামে পরিচিত এই গোয়ালন্দ ঘাট। পদ্মার ইলিশ ভোজন রসিকদের কাছে পরম লোভনীয়।

প্রস্তাবিত পদ্মা সেতুঃ গোয়ালন্দে দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মাণ হলে এ সেতু কেন্দ্রিক ইকো ট্যুরিজম গড়ে তোলা সম্ভব হবে। অন্যান্য স্থাপত্যকীর্তিঃ মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতিকেন্দ্র, গায়েবি মসজিদ,শাহ পালোয়ানের মাজার, পাঁচুরিয়া আরব সাহেবের মাজার, দ্বাদশী মাজার শরীফ, জামাই পাগলের মাজার, সমাধিনগর মঠ, বেলগাছির স্নানঘাট,দোলমঞ্চ, নীলকুঠি, রাজ রাজেশ্বর গাছের মন্দির প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বঃ রাজবাড়ী জেলার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ যারা শিল্প-সাহিত্য এবং সংস্কৃতিতে দেশ ও দেশের বাইরে বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছেন। তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কয়েকজন হচ্ছেন,কবি মীর মোশাররফ হোসেন, মোহাম্মদ এয়াকুব আলী চৌধুরী, কাজী আবদুল ওদুদ, কাজী মোতাহার হোসেন, রাস সুন্দরী দেবী, রোকনুজ্জামান খান দাদাভাই,চিত্রশিল্পী কাজী আবুল কাশেম, রশিদ চৌধুরী, ড.আবুল হোসেন, কাঙালিনী সুফিয়া প্রমুখ ব্যাক্তিবর্গ।

পরিশেষঃ সেদিন বেশি দূরে নয় পদ্মাকন্যা খ্যত রাজবাড়ী জেলা একদিন সামাজিক, রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক দিক দিয়ে দেশের অন্যান্য জেলাকে ছারিয়ে যাবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102