০১:৪৮ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রাজবাড়ীতে বাল্যবিবাহ, আত্নহত্যা প্রতিরোধে নারী শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সাইকেল র‍্যালী

মইনুল হক মৃধা, রাজবাড়ীঃ আমার জীবন আমার অধিকার, বাল্যবিয়ে রুখবো এবার, এসো মোরা শপথ করি, বাল্যবিয়ে রোধ করি এ প্রতিপাদ্যে রাজবাড়ীতে নারী সাইক্লিস্টদের অংশগ্রহণে বাল্যবিয়ে ও আত্মহত্যা বিরোধী ব্যাতিক্রম ধর্মী এক সাইকেল র‍্যালী অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (২ ডিসেম্বর) সকাল ১০ টার দিকে রাজবাড়ী জেলা পুলিশের আয়োজনে ও প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার সহযোগিতায় পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে নারীদের নিয়ে এই ব্যাতিক্রমধর্মী সাইকেল র‍্যালীর উদ্বোধন করেন জেলা পুলিশ সুপার জি.এম.আবুল কালাম আজাদ।

সাইকেল র‍্যালিতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শতাধিক নারী সাইকেল নিয়ে অংশগ্রহণ করে।এছাড়াও পায়ে হেঁটে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দুই শতাধিক নারী শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। র‍্যালিটি পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে বের হয়ে পৌর শহরের পান্না চত্বর ঘুরে বড়পুল হয়ে আবার পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এসে শেষ হয়।

তাসনুবা স্নেহা নামের শিক্ষার্থী বলেন, বর্তমান সমাজে বাল্য বিবাহ ও আত্মহত্যার প্রবণতা অনেক বেশি বেড়ে গেছে। আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ বাল্য বিবাহ। তাই আমাদের সকলের পরিবারের উচিত বাল্য বিবাহ না দেওয়া। আজকের এই র‍্যালীর মাধ্যমে আমরা বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবো। যাতে অল্প বয়সে আর কোন মেয়ের জীবন নষ্ট না হয়। তিনি আরও বলেন, আজকে যে ব্যাতিক্রমী সাইকেল র‍্যালী হয়েছে তার জন্য রাজবাড়ী জেলা পুলিশকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই।

র‍্যালীতে অংশ নেয়া আরো শিক্ষার্থীরা বলেন, আজকের এই সাইকেল র‍্যালীর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে পরিবারের বড়দেরকে ও মেয়েদেরকে সচেতন করা। যেনো পরিবারের প্রত্যেক মেয়েদেরকে ১৮ বছরের আগে বিয়ে দেওয়া না হয়।১৮ বছরের আগে তাদের বিয়ে দিলে মেয়েরা যেনো রুখে দাঁড়ায়। আজকের এই সাইকেল র‍্যালির মাধ্যমে আমাদের ম্যাসেজ এটাই যে ১৮ বছরের আগে কোন কন্যা সন্তানকে যেনো তাদের পরিবার বিয়ে না দেই। আমরা সমাজে অনেক পরিবার রয়েছে যারা তাদের মেয়েকে ১৮ বছরের আগেই ভালো কোন পাত্র পেলে বিয়ে দিয়ে দেন। ১৮ এর আগে পড়াশোনা করুক বা না করুক তাদের বিয়ে দেয়া ঠিকনা।

সাইকেল লাভার রাজবাড়ী গ্রুপের এডমিন আলামিন বিশ্বাস বলেন, মাদক, বাল্যবিবাহ, আত্মহত্যা বিরোধীতে আমরা সচেতনতা মূলক কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে সমাজের মানুষকে সচেতন করে তুলছি। পাশাপাশি নিজের দেহমন ঠিক রেখে পাড়াশোনা করছি। ভালো মানুষ হচ্ছি। এর মধ্য দিয়েই আমরা সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখি। এরই প্রেক্ষিতে জনগনের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধিতে আজ বিভিন্ন স্কুলের নারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে জেলা পুলিশের আয়োজনে সাইকেল র‌্যালী করেছি।

পুলিশ সুপার জি.এম. আবুল কালাম আজাদ বলেন, সাইকেল লাভার রাজবাড়ী ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থা সমাজে মাদক বিরোধী কর্মকান্ড ও বাল্যবিবাহ, আত্মহত্যা প্রতিরোধে কাজ করে থাকে। যেহেতু বাংলাদেশ আত্মহত্যার প্রবণতা অনেকটা বেড়েছে তাই আমরা যদি সমাজের মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে পারি তাহলে আত্মহত্যার প্রবণতা কমানো সম্ভব। এছাড়াও সমাজ থেকে মাদক নির্মূল করা সম্ভব। আমাদের এ ধরনের ভালো উদ্যোগের সাথে জেলা পুলিশ সবসময় পাশে থাকবো।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন ও অর্থ) মো. রেজাউল করিম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) মো. ইফতেখারুজ্জামান, ডিআইও-১ বিপ্লব দত্ত চৌধুরী, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মো. ইফতেখারুল আলম প্রধান, জেলা গোয়েন্দা সংস্থার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান, প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার প্রতিনিধি, সাইকেল লাভার রাজবাড়ী গ্রুপের প্রতিনিধি ও জেলা পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

রাজবাড়ীতে বাল্যবিবাহ, আত্নহত্যা প্রতিরোধে নারী শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সাইকেল র‍্যালী

পোস্ট হয়েছেঃ ০৫:৪৮:০১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২৩

মইনুল হক মৃধা, রাজবাড়ীঃ আমার জীবন আমার অধিকার, বাল্যবিয়ে রুখবো এবার, এসো মোরা শপথ করি, বাল্যবিয়ে রোধ করি এ প্রতিপাদ্যে রাজবাড়ীতে নারী সাইক্লিস্টদের অংশগ্রহণে বাল্যবিয়ে ও আত্মহত্যা বিরোধী ব্যাতিক্রম ধর্মী এক সাইকেল র‍্যালী অনুষ্ঠিত হয়েছে।

শনিবার (২ ডিসেম্বর) সকাল ১০ টার দিকে রাজবাড়ী জেলা পুলিশের আয়োজনে ও প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার সহযোগিতায় পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে নারীদের নিয়ে এই ব্যাতিক্রমধর্মী সাইকেল র‍্যালীর উদ্বোধন করেন জেলা পুলিশ সুপার জি.এম.আবুল কালাম আজাদ।

সাইকেল র‍্যালিতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শতাধিক নারী সাইকেল নিয়ে অংশগ্রহণ করে।এছাড়াও পায়ে হেঁটে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দুই শতাধিক নারী শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। র‍্যালিটি পুলিশ সুপার কার্যালয় থেকে বের হয়ে পৌর শহরের পান্না চত্বর ঘুরে বড়পুল হয়ে আবার পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এসে শেষ হয়।

তাসনুবা স্নেহা নামের শিক্ষার্থী বলেন, বর্তমান সমাজে বাল্য বিবাহ ও আত্মহত্যার প্রবণতা অনেক বেশি বেড়ে গেছে। আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ বাল্য বিবাহ। তাই আমাদের সকলের পরিবারের উচিত বাল্য বিবাহ না দেওয়া। আজকের এই র‍্যালীর মাধ্যমে আমরা বাল্যবিবাহের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবো। যাতে অল্প বয়সে আর কোন মেয়ের জীবন নষ্ট না হয়। তিনি আরও বলেন, আজকে যে ব্যাতিক্রমী সাইকেল র‍্যালী হয়েছে তার জন্য রাজবাড়ী জেলা পুলিশকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই।

র‍্যালীতে অংশ নেয়া আরো শিক্ষার্থীরা বলেন, আজকের এই সাইকেল র‍্যালীর মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে পরিবারের বড়দেরকে ও মেয়েদেরকে সচেতন করা। যেনো পরিবারের প্রত্যেক মেয়েদেরকে ১৮ বছরের আগে বিয়ে দেওয়া না হয়।১৮ বছরের আগে তাদের বিয়ে দিলে মেয়েরা যেনো রুখে দাঁড়ায়। আজকের এই সাইকেল র‍্যালির মাধ্যমে আমাদের ম্যাসেজ এটাই যে ১৮ বছরের আগে কোন কন্যা সন্তানকে যেনো তাদের পরিবার বিয়ে না দেই। আমরা সমাজে অনেক পরিবার রয়েছে যারা তাদের মেয়েকে ১৮ বছরের আগেই ভালো কোন পাত্র পেলে বিয়ে দিয়ে দেন। ১৮ এর আগে পড়াশোনা করুক বা না করুক তাদের বিয়ে দেয়া ঠিকনা।

সাইকেল লাভার রাজবাড়ী গ্রুপের এডমিন আলামিন বিশ্বাস বলেন, মাদক, বাল্যবিবাহ, আত্মহত্যা বিরোধীতে আমরা সচেতনতা মূলক কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে সমাজের মানুষকে সচেতন করে তুলছি। পাশাপাশি নিজের দেহমন ঠিক রেখে পাড়াশোনা করছি। ভালো মানুষ হচ্ছি। এর মধ্য দিয়েই আমরা সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখি। এরই প্রেক্ষিতে জনগনের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধিতে আজ বিভিন্ন স্কুলের নারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে জেলা পুলিশের আয়োজনে সাইকেল র‌্যালী করেছি।

পুলিশ সুপার জি.এম. আবুল কালাম আজাদ বলেন, সাইকেল লাভার রাজবাড়ী ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থা সমাজে মাদক বিরোধী কর্মকান্ড ও বাল্যবিবাহ, আত্মহত্যা প্রতিরোধে কাজ করে থাকে। যেহেতু বাংলাদেশ আত্মহত্যার প্রবণতা অনেকটা বেড়েছে তাই আমরা যদি সমাজের মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি করতে পারি তাহলে আত্মহত্যার প্রবণতা কমানো সম্ভব। এছাড়াও সমাজ থেকে মাদক নির্মূল করা সম্ভব। আমাদের এ ধরনের ভালো উদ্যোগের সাথে জেলা পুলিশ সবসময় পাশে থাকবো।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন ও অর্থ) মো. রেজাউল করিম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর সার্কেল) মো. ইফতেখারুজ্জামান, ডিআইও-১ বিপ্লব দত্ত চৌধুরী, সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মো. ইফতেখারুল আলম প্রধান, জেলা গোয়েন্দা সংস্থার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান, প্রান্তিক জনকল্যাণ সংস্থার প্রতিনিধি, সাইকেল লাভার রাজবাড়ী গ্রুপের প্রতিনিধি ও জেলা পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা।