১২:৪৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

গোয়ালন্দে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যাত্রীবাহি বাস ছিটকে পড়লো মুদিখানা ও ওষুধের দোকানের ওপর

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ শুক্রবার জুম্মার নামাজ চলাকালীন সময় পিরোজপুর থেকে আসা ঢাকাগামী দিগন্ত পরিবহনের একটি দূরপাল্লার যাত্রীবাহি বাস ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের জমিদারব্রীজ এলাকায় দুটি দোকানের ওপর ছিটকে পড়ে। দোকানসহ বাসটি খাদে দুমড়ে-মুচড়ে পড়লে চালক, সহকারীসহ ১০-১২জন আহত হন। নামাজের সময় দুর্ঘটনাটি ঘটায় দোকান দুটি বন্ধ ছিল। অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষাপান সকলে।

সরেজমিন দেখা যায়, গোয়ালন্দের জমিদারব্রীজ সংলগ্ন ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের পূর্ব পাশে খাদে দুটি দোকানের ওপর দুমড়ে মুচড়ে পড়ে আছে ঢাকাগামী দিগন্ত পরিবহনের বাস। বাসে থাকা যাত্রীদের অনেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন। অনেকে স্থানীয়ভাবে অটোরিক্সায় উঠে দৌলতদিয়া ঘাটের দিকে যাচ্ছেন।

পিরোজপুরের ইন্দুরকাদি উপজেলার বালিপাড়া থেকে ঢাকায় ছেলের কাছে যাচ্ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত মাধ্যমিক স্কুল শিক্ষক বাসযাত্রী এসকেন্দার আলী তালুকদার (৬৫)। আলাপকালে বলেন, সকাল ৭টার দিকে তিনি বালিপাড়া থেকে বাসে উঠেন। পথিমধ্যে পরিবহনটি যাত্রী তোলার সময় অনেক দেরি করে। গোয়ালন্দ মোড় পার হওয়ার পর বেপরোয়া গতিতে চালাতে থাকে। চোখের পলকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি দোকানের ওপর তুলে দেন। এতে ১০-১২জন যাত্রী আহত হন।

প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমরা কয়েকজন দূরে দাড়িয়ে ছিলাম। দেড়টার একটু পর চোখের পলকে ঢাকাগামী বাসটি বিকট শব্দে দোকানের ওপর আছড়ে পড়ে। দোকানের সামনে বসানো মাইল বোড ভেঙে স্থানীয় হালিম মোল্যার মুদিখানা ও আমিনুল ইসলামের ওষুধের দোকানের তুলে দেয়। জুম্মার নামাজ থাকায় দোকান দুটি বন্ধ ছিল। স্বাভাবিক সময় দোকান দুটি খোলা থাকে এবং সব সময় লোকজন সামনে বেঞ্চে বসা থাকে। দোকান খোলা থাকলে বসে থাকা সকলে মারা যেত।

মুদি দোকানী হালিম মোল্যা বলেন, নামাজের সময় হওয়ায় দোকান বন্ধ করে নামাজে যান। নামাজ শেষে মসজিদ থেকে বিকট শব্দ শুনতে পান। দৌড়ে এসে দেখেন রাস্তার ধারে থাকা দোকান নেই। মুদিখানার পাশাপাশি পেট্রোল, মবিল, অকটেন খুচরা বিক্রি, বিকাশে টাকা লেনদেন করেন। অন্তত ৬ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। দোকানঘরসহ বাসটি রাস্তা থেকে ২০ হাত দূরে গেছে। দোকান খোলা থাকলে বেঞ্চে লোকজন বসে থাকে।

ওষুধের দোকানী আমিনুল ইসলাম বলেন, তিনিও দোকান বন্ধ করে জুম্মার নামাজ পড়তে যান। নামাজ শেষে এসেই দেখেন তার দোকান আগের জায়গায় নেই। তার দোকান দুমড়ে মুচড়ে খাদে পড়ে আছে। তার ওপর পড়ে আছে যাত্রীবাহি বাস। দোকানের কোন কিছুই বের করতে পারেননি। তার অন্তত তিন লাখ টাকার ওষুধ সামগ্রী ছিল।

গোয়ালন্দ মোড় আহøাদিপুর হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আল মাহমুদ বলেন, খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে দেখি স্থানীয় লোকজন ও ফায়ার সার্ভিস যাত্রীদের উদ্ধার করছে। দুর্ঘটনায় কেউ নিহত না হলেও কয়েকজন আহত হয়েছে। চালক পলাতক, বাসটি জব্দ করেছি। বেপরোয়া গতিতে চালানোর কারনে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুর্ঘটনা ঘটে। শুক্রবার জুম্মার নামাজ চলাকালিন সময় দুর্ঘটনাটি ঘটায় অনেকে প্রাণে রক্ষা পান।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

গোয়ালন্দে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে যাত্রীবাহি বাস ছিটকে পড়লো মুদিখানা ও ওষুধের দোকানের ওপর

পোস্ট হয়েছেঃ ১১:০৪:৪৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ শুক্রবার জুম্মার নামাজ চলাকালীন সময় পিরোজপুর থেকে আসা ঢাকাগামী দিগন্ত পরিবহনের একটি দূরপাল্লার যাত্রীবাহি বাস ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের জমিদারব্রীজ এলাকায় দুটি দোকানের ওপর ছিটকে পড়ে। দোকানসহ বাসটি খাদে দুমড়ে-মুচড়ে পড়লে চালক, সহকারীসহ ১০-১২জন আহত হন। নামাজের সময় দুর্ঘটনাটি ঘটায় দোকান দুটি বন্ধ ছিল। অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষাপান সকলে।

সরেজমিন দেখা যায়, গোয়ালন্দের জমিদারব্রীজ সংলগ্ন ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের পূর্ব পাশে খাদে দুটি দোকানের ওপর দুমড়ে মুচড়ে পড়ে আছে ঢাকাগামী দিগন্ত পরিবহনের বাস। বাসে থাকা যাত্রীদের অনেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন। অনেকে স্থানীয়ভাবে অটোরিক্সায় উঠে দৌলতদিয়া ঘাটের দিকে যাচ্ছেন।

পিরোজপুরের ইন্দুরকাদি উপজেলার বালিপাড়া থেকে ঢাকায় ছেলের কাছে যাচ্ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত মাধ্যমিক স্কুল শিক্ষক বাসযাত্রী এসকেন্দার আলী তালুকদার (৬৫)। আলাপকালে বলেন, সকাল ৭টার দিকে তিনি বালিপাড়া থেকে বাসে উঠেন। পথিমধ্যে পরিবহনটি যাত্রী তোলার সময় অনেক দেরি করে। গোয়ালন্দ মোড় পার হওয়ার পর বেপরোয়া গতিতে চালাতে থাকে। চোখের পলকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি দোকানের ওপর তুলে দেন। এতে ১০-১২জন যাত্রী আহত হন।

প্রত্যক্ষদর্শী আব্দুর রাজ্জাক বলেন, আমরা কয়েকজন দূরে দাড়িয়ে ছিলাম। দেড়টার একটু পর চোখের পলকে ঢাকাগামী বাসটি বিকট শব্দে দোকানের ওপর আছড়ে পড়ে। দোকানের সামনে বসানো মাইল বোড ভেঙে স্থানীয় হালিম মোল্যার মুদিখানা ও আমিনুল ইসলামের ওষুধের দোকানের তুলে দেয়। জুম্মার নামাজ থাকায় দোকান দুটি বন্ধ ছিল। স্বাভাবিক সময় দোকান দুটি খোলা থাকে এবং সব সময় লোকজন সামনে বেঞ্চে বসা থাকে। দোকান খোলা থাকলে বসে থাকা সকলে মারা যেত।

মুদি দোকানী হালিম মোল্যা বলেন, নামাজের সময় হওয়ায় দোকান বন্ধ করে নামাজে যান। নামাজ শেষে মসজিদ থেকে বিকট শব্দ শুনতে পান। দৌড়ে এসে দেখেন রাস্তার ধারে থাকা দোকান নেই। মুদিখানার পাশাপাশি পেট্রোল, মবিল, অকটেন খুচরা বিক্রি, বিকাশে টাকা লেনদেন করেন। অন্তত ৬ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। দোকানঘরসহ বাসটি রাস্তা থেকে ২০ হাত দূরে গেছে। দোকান খোলা থাকলে বেঞ্চে লোকজন বসে থাকে।

ওষুধের দোকানী আমিনুল ইসলাম বলেন, তিনিও দোকান বন্ধ করে জুম্মার নামাজ পড়তে যান। নামাজ শেষে এসেই দেখেন তার দোকান আগের জায়গায় নেই। তার দোকান দুমড়ে মুচড়ে খাদে পড়ে আছে। তার ওপর পড়ে আছে যাত্রীবাহি বাস। দোকানের কোন কিছুই বের করতে পারেননি। তার অন্তত তিন লাখ টাকার ওষুধ সামগ্রী ছিল।

গোয়ালন্দ মোড় আহøাদিপুর হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আল মাহমুদ বলেন, খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে দেখি স্থানীয় লোকজন ও ফায়ার সার্ভিস যাত্রীদের উদ্ধার করছে। দুর্ঘটনায় কেউ নিহত না হলেও কয়েকজন আহত হয়েছে। চালক পলাতক, বাসটি জব্দ করেছি। বেপরোয়া গতিতে চালানোর কারনে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুর্ঘটনা ঘটে। শুক্রবার জুম্মার নামাজ চলাকালিন সময় দুর্ঘটনাটি ঘটায় অনেকে প্রাণে রক্ষা পান।