January 20, 2022, 5:34 pm

৯৯৯ এর ফোন পেয়ে এক শিশুকে উদ্ধার করলো গোয়ালন্দ থানা পুলিশ, নারী আটক

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ডিসেম্বর ৩, ২০২১
  • 77 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ পুলিশের হটলাইন সেবা ৯৯৯ এর ফোন পেয়ে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাট এলাকা থেকে ঢাকাগামী এক নারীর কাছ থেকে ১১ মাস বয়সী একটি দুধের শিশুকে উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। এ ঘটনায় শিশু পাচারকারী চক্রের সাথে জড়িত সন্দেহে ওই নারীকে পুলিশ আটক করেছে।

এছাড়া শিশুটির মা দাবীদার আরেক নারী থানায় আসলে পুলিশ বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) দুপুরে উদ্ধার হওয়া শিশুসহ আটককৃত নারী এবং মা দাবীদার নারী উভয়কে রাজবাড়ীর আদালতে প্রেরণ করেছে। এর আগে বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাট ফেরির জন্য অপেক্ষমান ঢাকাগামী দূরপাল্লার বাস থেকে শিশুটি উদ্ধার করে।

থানা পুলিশ জানায়, গত বুধবার (১ ডিসেম্বর) দিবাগত রাতে ঝিনাইদহর মহেশপুর থেকে ঢাকাগামী জে লাইন পরিবহন দর্শনা ডিলাক্স (ঢাকা মেট্রো ব-১৪-৭৮৫৩) এর একটি বাসে এক নারীর কোলে দুধের শিশু বাচ্চা অনবরত কান্না করতে থাকে। বাসটি রাত সাড়ে ১১টার দিকে দৌলতদিয়া ফেরি ঘাট থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার পিছনে মহাসড়কের বাংলাদেশ হ্যাচারীর কাছে পৌছলে বাসের কোন এক যাত্রী বিষয়টি পুলিশের হটলাইন সেবা ৯৯৯-এ ফোন করে জানায়। ৯৯৯-এ থেকে বিষয়টি গোয়ালন্দ ঘাট থানাকে অবগত করা হয়। খবর পেয়ে রাতে বাংলাদেশ হ্যাচারীর কাছ থেকে যানজটে অপেক্ষমান ঢাকাগামী ওই দূরপাল্লার বাস থেকে একজন নারীর কোলে কান্নারত অবস্থায় ১১ মাস বয়সী শিশুটিকে উদ্ধার করে। এসময় পুলিশ উপস্থিত যাত্রীদের সামনে বাচ্চার সাথে তার সর্ম্পক জানতে চাইলে তিনি দাবী করেন, শিশুটির মা তার পাতানো খালা হন। তবে এসময় সে অনেক অসংলগ্ন কথাবার্তা বলতে থাকেন। তার নাম শান্তি বেগম (৫০)। তিনি নারায়ণগঞ্জ সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার বাগানবাড়ি এলাকার মেছের আলীর বাড়ির ভাড়াটিয়া মৃত লোকমানের স্ত্রী। বিষয়টি পুলিশের সন্দেহ হলে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদেও এলোমেলো কথাবার্তা বলে।

এসময় শান্তি বেগম আবারও দাবী করেন, সে শিশুটির মায়ের পাতানো খালা। শিশুটির মা শিমু আক্তার ভারতে যাবেন বলে তার বাচ্চাটিকে লালন পালনের জন্য তার কাছে রেখে দিয়েছেন। বাচ্চার প্রকৃত মার সন্ধান জানতে চাইলে খবর পেয়ে বৃহস্পতিবার সকালে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় এসে উপস্থিত হন শিমু আক্তার (১৮)। তিনি সাভার সোভাপুর গ্রামের নিবাস ঘোষের স্ত্রী।

শিমু আক্তার শিশুটির প্রকৃত মা দাবী করে এবং শিশুটিকে তার পাতানো খালা শান্তি বেগমের কাছে রেখে ভারতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে দাবী করেন। শিশুটির নাম আশিক (১১ মাস)। ভারতে যাবেন বলে তার পাতানো খালা শান্তি বেগমের কাছে তার শিশুটিকে রেখে যাচ্ছেন। এরপরও বিষয়টি পুলিশের সন্দেহ হয়। পরবর্তীতে বৃহস্পতিবার দুপুরে দুধের শিশুটি সহ মা দাবীদার শিমু আক্তার এবং শান্তি বেগমকে রাজবাড়ীর মূখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতে প্রেরণ করে।

এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে শিশুটিকে ভারতে পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। একটি সংঘবদ্ধ পাচার চক্রের কাজ হতে পারে। এছাড়া শিশুটির অভিভাবক শনাক্ত করাও সম্ভব হয়নি। একটি দুধের শিশুকে লালন পালনের জন্য আরেকজনের কাছে রেখে যাবে বিষয়টি যথেষ্ট সন্দেহের অবকাশ রয়েছে। তাই প্রকৃত অভিভাবক নির্নয় করে তার পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। সেই সাথে বুধবার রাতে শিশুটির সাথে প্রাথমিকভাবে আটক শান্তি বেগম ও মা দাবীদার শিমু আক্তারকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102