December 7, 2021, 8:22 pm
Title :
গোয়ালন্দে চার ভিক্ষুককে পুনর্বাসনে নগদ অর্থ সহায়তা প্রদান গোয়ালন্দে পালানোর সময় জনতার হাতে মোটরসাইকেলসহ চোর আটক পাঁচুরিয়া ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভাতিজাকে অপহরন, ৯৯৯-এ নম্বরে ফোন করে উদ্ধার ঘূূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবঃ বৃষ্টিতে গোয়ালন্দে জনজীবন বিপর্যস্ত পাংশার দশ ইউপিতে নৌকা পেলেন যারা রাজবাড়ীতে বোমাসহ নৌকা প্রার্থীর ছেলেসহ আটক দুই রাজবাড়ীতে মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে তরুণ গ্রেপ্তার রাজবাড়ীতে ইলিশ সম্পদ উন্নয়নের লক্ষে অবহিতকরণ কর্মশালা গোয়ালন্দে দরিদ্র পরিবারের ঘরে জমজ তিন সন্তান “ঘর জুড়ে আলো, মন জুড়ে আধার” গোয়ালন্দে হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের নির্মল সভাপতি ও কোমল সম্পাদক

৫০ বছর ধরে প্রতিমা তৈরী করছেন রাজবাড়ীর বাবলু পাল

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ৭, ২০২১
  • 82 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাশেদ রায়হানঃ রাজবাড়ীর খানখানাপুর কুন্ডুবাড়ির মৃৎশিল্পী মনিন্দ্র পালের ছেলে বাবলু পাল (৬৫)। বাবা ছিলেন প্রতিমা তৈরীর নিপুন কারিগর। বাবা যেখানে যেতেন সেখানেই পিছু নিতেন। ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীনের পর বাবার হাত ধরে ১৪ বছর বয়স থেকে মৃৎশিল্পের কাজ শুরু করেন। দেখতে দেখতে ৫০টি বছর কেটে গেছে। বাবা মারা যাওয়ায় এখন সবকিছু নিজেই করেন। এখন তিনিও বাবার মতোই একজন জনপ্রিয় মৃৎশিল্পী।

গত ৩ অক্টোবর দেখা যায়, বাবলু পাল সহকর্মী প্রদীপ দাস ও সুনিল রায়কে নিয়ে গোয়ালন্দ শহরের হরিজন রামকৃষ্ণ শারদিয়া দুর্গা মন্দিরে প্রতিমার রঙের কাজ করছেন। শেষ মুহুর্তে প্রতিমায় রঙের তুলির আঁচর দিতে ব্যাস্ত সময় পার করছেন। উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের আড়াকাটি পাড়া মন্দিরেও কাজ চলছে। গোয়ালন্দ ছাড়া ফরিদপুর বারোখাদায় ১টি, রাজবাড়ী শহরের মাছ বাজারে ১টি এবং খানখানাপুরে ২টি মন্ডবে তিনি কাজ করছেন।

বাবলু পাল বলেন, সংসারে তাঁর মা, স্ত্রী ও চার মেয়ে রয়েছে। ইতোমধ্যে মেয়েদের অন্যত্র বিয়ে দিয়েছেন। পরিবারে এখন তিনি তাঁর মা ও স্ত্রী রয়েছেন। বাবা ছিলেন একজন প্রতিষ্ঠিত মৃৎশিল্পী। তাঁর হাতেই জেলার বহু মন্দিরের প্রতিমা তৈরী হতো। স্বাধীনতার সময় পাকবাহিনীর তান্ডবে এলাকা ছেড়ে পালায়। তখন ৫ম শ্রেণীতে পড়াশুনা করতাম। স্বাধীনের পর দেখি বাড়ি-ঘর জ্বালিয়ে শেষ করেছে। নতুন করে বসতি গড়েন বাবা। সংসারের চাহিদা মেটাতে পড়াশুনা করতে পারিনি। বাবার সাথে ঘুরে ঘুরে প্রতিমা তৈরীর কাজ শিখতে থাকি। ওই সময় ছোট দুই ভাই রতন পাল ও অমল পালও ছিলো। পরবর্তীতে তারা ভারতে চলে যায়। ৫ বছর আগে বাবা মারা যান।

তিনি বলেন, সারা বছর কম-বেশি প্রতিমা তৈরীর কাজ থাকে। গত বছর করোনার কারনে পুজা তেমন হয়নি। দুর্গা পূজার সময় একা প্রতিমা তৈরী করলে ২-৩টি করতে পারেন। দুই-তিনজন সহকারী থাকলে ৫-৬টি করতে পারেন। মন্ডপ সাজাতে প্রকার ভেদে ১৫ থেকে ২৫ হাজার টাকা পর্যন্ত মজুরি নেন। ছোট মন্দির ১৮ থেকে ২২ হাজার টাকা পর্যন্ত নেন। প্রতি মন্ডপের প্রতিমার কাজ সম্পন্ন করতে ৩জনে করলে ১০-১২ দিন লাগে। যে আয় হয় তা দিয়ে চলেন সারা বছর। দুই বছর তাদেরকে অনেক কষ্টে দিন পার করতে হচ্ছে।

ক্ষোভের সাথে বলেন, গত বছর করোনাকালে সারা দেশে সব ধরনের ধর্মীয় অনুষ্ঠান বন্ধ থাকে। যে কারনে প্রতিমা তৈরী বন্ধ ছিল।  ওই সময় সরকারিভাবে বিভিন্ন ব্যক্তি, সংগঠন সহযোগিতা পেয়েছে। অথচ মৃৎশিল্পিরা কোন সহযোগিতা পাননি। অনেক কষ্টে দিন পার করতে হয়েছে। এ পর্যন্ত তিনি প্রায় ৩০০টির মতো পূজা মন্ডব তৈরী করেছেন বলে জানান।

হরিজন রামকৃষ্ণ শারদিয়া দুর্গা মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক শ্যাম কুমার ভক্ত বলেন, বাবলু পাল আমাদের মন্দিরে মন্ডব তৈরী করে থাকেন। করোনাকালীন বিভিন্ন সংগঠন, গোষ্ঠিকে সহযোগিতা করা হলেও তাঁরা সহযোগিতা পাননি। প্রতি বছর জাকজমকভাবে মন্ডব সাজানো হয়। আর্থিক সংকটের কারনে এ বছর তেমন জাকজমক করতে পারছিনা। স্থানীয়দের সহযোগিতা নিয়ে আমরা মন্ডব করছি। আমাদের মন্ডব সম্পন্ন করতে লাখ টাকা খরচ হয়ে যায়। আনুসাঙ্গিক অন্যান্য খরচ তো আছেই।

গোয়ালন্দ উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি ও উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব কুমার ঘোষ বলেন, বাবলু পাল বাবার মতো প্রতিষ্ঠিত মৃৎশিল্পী। এ বছর গোয়ালন্দে ২৩টি পূজা মন্ডব তৈরী হয়েছে। গোয়ালন্দ পৌরসভায় ১৬টি মন্ডপ রয়েছে। এছাড়া উজানচর ইউনিয়নে ৩টি, ছোটভাকলায় ৩টি ও দৌলতদিয়ায় ১টি মন্ডব রয়েছে। দেবগ্রাম ইউপিতে কোন মন্ডপ নেই। সাধারণ একটি মন্ডপ সম্পন্ন করতে প্রকার ভেদে ১ থেকে দেড়-দুই লাখ টাকা পর্যন্ত খরচ হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102