০১:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

এইডস ঝুঁকিতে দৌলতদিয়া যৌনপল্লির প্রায় চার মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে এইচআইভি এইডস আক্রান্তের হার কম হলেও কিছু জনগোষ্ঠীর মধ্যে ক্রমে বেড়ে চলছে। এরমধ্যে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে দেশের সর্ববৃহৎ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লির যৌনকর্মী, খদ্দেরসহ পল্লি সংশ্লিষ্টরা। এ পর্যন্ত এখানে পাঁচজন এইচআইভি পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছে। অথচ ১ ডিসেম্বর ছিল বিশ্ব এইডস দিবস। ওই দিন বিশেষ কোন উদ্যোগ ছিলনা।

যৌনপল্লী সংশ্লিষ্ট বেসরকারি একাধিক সংগঠন জরিপ চালিয়েছে। এরমধ্যে মুক্তি মহিলা সমিতির সম্প্রতির জরিপ অনুযায়ী এখানে ১ হাজার ৫০ জনের মতো যৌনকর্মী, যৌনজীবীদের বাবু রয়েছে প্রায় ৯৫০ জনের মতো, বাড়িওয়ালী আছেন বাড়ীওয়ালী ২৮১, মাসি রয়েছেন ২৫০ জনের মতো এবং তাদের শিশু রয়েছে ৫০০ জনের মতো। এর বাইরেও বয়স্ক নারী ও নানাবিধ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মিলে আরো এক হাজারসহ প্রায় চার হাজার বাসিন্দা রয়েছে। যারা প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে এইচআইভি এইডস সহ নানাবিধ যৌনরোগের ঝুঁকিতে রয়েছেন।

গণস্বাস্থ্য সংস্থা দৌলতদিয়ার জরিপ অনুযায়ী, যৌনকর্মী রয়েছেন প্রায় ১ হাজার ৩০০ জন, বাবু, মাসী, শিশু, বাড়িওয়ালীসহ রয়েছেন আরো প্রায় তিন হাজারের মতো। এরা প্রত্যেকে এইচআইভি এইডসসহ নানা যৌনরোগের ঝুঁকিতে আছেন। সর্বশেষ গত আগষ্ট মাসের সমীক্ষা অনুযায়ী দৌলতদিয়ায় ৩জন যৌনকর্মী এবং স্থানীয় দুইজন পুরুষ খদ্দের সহ মোট পাঁচজন এইচআইভি পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন।

গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ফারসিম তারান্নুম হক বলেন, যৌনকর্মী ও খরিদ্দার সকলে মারাত্মক এইডস সকলেই মারাত্মক এইড ঝুঁকিতে আছেন। এজন্য এইডসসহ যৌন রোগের ঝুঁকি কমাতে বিভিন্ন বেসরকারি সংগঠনের মাধ্যমে স্বাস্থ্য বিভাগ পল্লিতে কাজ করছে। তাদের নিয়মিত মনিটরিং ছাড়াও জটিল এবং সন্দেহজনক রোগীদের চিকিৎসা ও পরামর্শ দিয়ে থাকে। যেহেতু প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকার অনেকে এখানে যাতায়াত করেন এ কারনে এখানকার সবাই ঝুঁকিতে আছেন। এ জন্য সরকারিভাবে এইচআইভি এইডস শনাক্ত করণে স্থানীয়ভাবে একটি সাব সেন্টার খোলা দরকার। এ বিষয়ে আমি উর্দ্বোতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিতভাবে আবেদন জানানোর পরিকল্পনা করেছি।

পল্লির বাসিন্দারা জানান, বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিদিন কয়েক হাজার পুরুষ পল্লিতে যাতায়াত করে। স্কুল ছাত্র থেকে বিভিন্ন এলাকার ট্রাকচালকরাও আসেন। যারা বেশির ভাগ দৈহিক মিলনে কনডম ব্যবহারে অনাগ্রহী। খদ্দেরের ইচ্ছা ও বেশী টাকার লোভে বেশীর ভাগ মেয়ে অনিরাপদ মেলামেশায় যুক্ত থাকে। এছাড়া পল্লির বহু মেয়ে দীর্ঘদিন ধরে মাদকাশক্ত। নেশার টাকা যোগানো, খাবার ও ঘর ভাড়ার টাকা যোগাতে এ সকল মেয়েরা মেলামেশায় নিজেদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করার সুযোগ পায়না। অবাধ মেলামেশার কারনে এইচআইভি এইডস আক্রান্ত হবার ঝুঁকি বেশি।

জানাযায়, প্রায় ১২ বছর আগে পল্লিতে এইডস রোগী শনাক্তের জন্য সরকারী প্রতিষ্ঠান আইসিডিডিআরবি যৌনকর্মীদের রক্তের নমূনা নিয়েছিল। যদিও তার ফলাফল আদৌ জানা সম্ভব হয়নি। এর মাঝে দীর্ঘকাল এ পল্লিতে এইডস নিয়ে কোন কাজ ছিলনা। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং পায়াক্ট বাংলাদেশ নামক সংস্থা এইচআইভি এইডস ও যৌনরোগ নিয়ে পল্লিতে কাজ শুরু করেছে।

দৌলতদিয়া গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক মো. জুলফিকার আলী বলেন, ১ ডিসেম্বর সরকারি ছুটি থাকায় কোন কর্মসূচি নেই। সিভিল সার্জনের পরামর্শে আগামী রোববার যৌনকর্মী, বাড়িওয়ালী ও স্থানীয় এনজিওতে কর্মরতদের নিয়ে দিবসটি উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা হবে।

তিনি বলেন, আগের জরিপে এখানকার চারজন এইচআইভি এইডস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়। সর্বশেষ গত আগষ্ট মাসে আরেকজন যৌনকর্মী শনাক্ত হয়েছে। মোট পাঁচজনের মধ্যে তিনজন যৌনকর্মী এবং স্থানীয় দুইজন খদ্দেরকে শনাক্ত হয়েছে। পুরুষদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হলেও যৌনকর্মীদের ঢাকায় আশার আলো নামাক আরেক সংস্থার মাধ্যমে সরকারিভাবে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

ট্যাগঃ
রিপোর্টারের সম্পর্কে জানুন

Rajbari Mail

জনপ্রিয় পোস্ট

গোয়ালন্দ উপজেলা চেয়ারম্যান কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ফাইনাল

এইডস ঝুঁকিতে দৌলতদিয়া যৌনপল্লির প্রায় চার মানুষ

পোস্ট হয়েছেঃ ০৬:১২:২৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে এইচআইভি এইডস আক্রান্তের হার কম হলেও কিছু জনগোষ্ঠীর মধ্যে ক্রমে বেড়ে চলছে। এরমধ্যে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে দেশের সর্ববৃহৎ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লির যৌনকর্মী, খদ্দেরসহ পল্লি সংশ্লিষ্টরা। এ পর্যন্ত এখানে পাঁচজন এইচআইভি পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছে। অথচ ১ ডিসেম্বর ছিল বিশ্ব এইডস দিবস। ওই দিন বিশেষ কোন উদ্যোগ ছিলনা।

যৌনপল্লী সংশ্লিষ্ট বেসরকারি একাধিক সংগঠন জরিপ চালিয়েছে। এরমধ্যে মুক্তি মহিলা সমিতির সম্প্রতির জরিপ অনুযায়ী এখানে ১ হাজার ৫০ জনের মতো যৌনকর্মী, যৌনজীবীদের বাবু রয়েছে প্রায় ৯৫০ জনের মতো, বাড়িওয়ালী আছেন বাড়ীওয়ালী ২৮১, মাসি রয়েছেন ২৫০ জনের মতো এবং তাদের শিশু রয়েছে ৫০০ জনের মতো। এর বাইরেও বয়স্ক নারী ও নানাবিধ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী মিলে আরো এক হাজারসহ প্রায় চার হাজার বাসিন্দা রয়েছে। যারা প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে এইচআইভি এইডস সহ নানাবিধ যৌনরোগের ঝুঁকিতে রয়েছেন।

গণস্বাস্থ্য সংস্থা দৌলতদিয়ার জরিপ অনুযায়ী, যৌনকর্মী রয়েছেন প্রায় ১ হাজার ৩০০ জন, বাবু, মাসী, শিশু, বাড়িওয়ালীসহ রয়েছেন আরো প্রায় তিন হাজারের মতো। এরা প্রত্যেকে এইচআইভি এইডসসহ নানা যৌনরোগের ঝুঁকিতে আছেন। সর্বশেষ গত আগষ্ট মাসের সমীক্ষা অনুযায়ী দৌলতদিয়ায় ৩জন যৌনকর্মী এবং স্থানীয় দুইজন পুরুষ খদ্দের সহ মোট পাঁচজন এইচআইভি পজিটিভ হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন।

গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ফারসিম তারান্নুম হক বলেন, যৌনকর্মী ও খরিদ্দার সকলে মারাত্মক এইডস সকলেই মারাত্মক এইড ঝুঁকিতে আছেন। এজন্য এইডসসহ যৌন রোগের ঝুঁকি কমাতে বিভিন্ন বেসরকারি সংগঠনের মাধ্যমে স্বাস্থ্য বিভাগ পল্লিতে কাজ করছে। তাদের নিয়মিত মনিটরিং ছাড়াও জটিল এবং সন্দেহজনক রোগীদের চিকিৎসা ও পরামর্শ দিয়ে থাকে। যেহেতু প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকার অনেকে এখানে যাতায়াত করেন এ কারনে এখানকার সবাই ঝুঁকিতে আছেন। এ জন্য সরকারিভাবে এইচআইভি এইডস শনাক্ত করণে স্থানীয়ভাবে একটি সাব সেন্টার খোলা দরকার। এ বিষয়ে আমি উর্দ্বোতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিতভাবে আবেদন জানানোর পরিকল্পনা করেছি।

পল্লির বাসিন্দারা জানান, বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিদিন কয়েক হাজার পুরুষ পল্লিতে যাতায়াত করে। স্কুল ছাত্র থেকে বিভিন্ন এলাকার ট্রাকচালকরাও আসেন। যারা বেশির ভাগ দৈহিক মিলনে কনডম ব্যবহারে অনাগ্রহী। খদ্দেরের ইচ্ছা ও বেশী টাকার লোভে বেশীর ভাগ মেয়ে অনিরাপদ মেলামেশায় যুক্ত থাকে। এছাড়া পল্লির বহু মেয়ে দীর্ঘদিন ধরে মাদকাশক্ত। নেশার টাকা যোগানো, খাবার ও ঘর ভাড়ার টাকা যোগাতে এ সকল মেয়েরা মেলামেশায় নিজেদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করার সুযোগ পায়না। অবাধ মেলামেশার কারনে এইচআইভি এইডস আক্রান্ত হবার ঝুঁকি বেশি।

জানাযায়, প্রায় ১২ বছর আগে পল্লিতে এইডস রোগী শনাক্তের জন্য সরকারী প্রতিষ্ঠান আইসিডিডিআরবি যৌনকর্মীদের রক্তের নমূনা নিয়েছিল। যদিও তার ফলাফল আদৌ জানা সম্ভব হয়নি। এর মাঝে দীর্ঘকাল এ পল্লিতে এইডস নিয়ে কোন কাজ ছিলনা। গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র এবং পায়াক্ট বাংলাদেশ নামক সংস্থা এইচআইভি এইডস ও যৌনরোগ নিয়ে পল্লিতে কাজ শুরু করেছে।

দৌলতদিয়া গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ব্যবস্থাপক মো. জুলফিকার আলী বলেন, ১ ডিসেম্বর সরকারি ছুটি থাকায় কোন কর্মসূচি নেই। সিভিল সার্জনের পরামর্শে আগামী রোববার যৌনকর্মী, বাড়িওয়ালী ও স্থানীয় এনজিওতে কর্মরতদের নিয়ে দিবসটি উপলক্ষে র‌্যালী ও আলোচনা সভা হবে।

তিনি বলেন, আগের জরিপে এখানকার চারজন এইচআইভি এইডস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করা হয়। সর্বশেষ গত আগষ্ট মাসে আরেকজন যৌনকর্মী শনাক্ত হয়েছে। মোট পাঁচজনের মধ্যে তিনজন যৌনকর্মী এবং স্থানীয় দুইজন খদ্দেরকে শনাক্ত হয়েছে। পুরুষদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হলেও যৌনকর্মীদের ঢাকায় আশার আলো নামাক আরেক সংস্থার মাধ্যমে সরকারিভাবে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।