January 20, 2022, 4:40 pm

রাজবাড়ীতে নৌকাবাইচ প্রতিযোগীতা দেখতে দর্শনার্থীদের ভিড়

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, আগস্ট ২৮, ২০২১
  • 238 Time View
শেয়ার করুনঃ

হেলাল মাহমুদ, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নের হড়াই নদীতে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা দেখতে দর্শনার্থীদের ভিড় ছিলো চোখে পড়ার মতো। জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে বড় চারটি নৌকা এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে। বৈরী আবহাওয়া আর বৃষ্টি উপেক্ষা করে দর্শনার্থীরা এসেছিলো প্রতিযোগিতা দেখতে।

প্রায় ৫০হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে করতালি, বাদ্যযন্ত্রের ধ্বনি, বৈঠার তাল ও জারি-সারি গানে মুখরিত হয় বসন্তপুর ইউনিয়নের মুচিদহ-রতনদিয়া বালুরঘাট এলাকা। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। বসন্তপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মীর্জা বদিউজ্জামান বাবু প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করেন। শুক্রবার বিকেলে সদর উপজেলার সৈয়দা সামসুন্নাহার স্মৃতি সংঘের উদ্যোগে মুচিদহ-রতনদিয়া বালুরঘাট এলাকায় নৌকা বাইচ অনুষ্ঠিত হয়।

নৌকা বাইচ দেখতে আসা দর্শনাথী জমির আলী বলেন, একসময় নৌকা বাইচ গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ছিলো। বর্তমানে সেটি বিলুপ্তির পথে। এলাকায় প্রতিযোগীতার জন্য একটা কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি খুব কষ্ট করে চারটি নৌকা জোগাড় করে নৌকা বাইচের আয়োজন করেছে। একসময় দেশের বিভিন্ন স্থানে এই খেলা হতো। এখন আর হয়না। আমি এক সময় ১০০ হাত নৌকার বাইচ দেখেছি বলে জানান।

আরেক দর্শনার্থী রাজকুমার বিশ্বাস বলেন, নৌকা বাইচ প্রতিযেগীতা দেখতে এখানে হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত হয়েছে। আমার ধারণা প্রায় ৫০হাজার মানুষ এই নৌকা বাইচ দেখতে এসেছে। এই নৌকা বাইচ সরকারকে বার্তা দেয়, বিলুপ্ত প্রায় ঐতিহ্য ধরে রাখার।
নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতার প্রথম স্থান অধিকার করা নৌকার মালিক কাশেম শেখ বলেন, নৌকাবাইচে প্রচুর খরচ হয়। কিন্তু এগুলো আমরা চিন্তা করি না। বাপ-দাদায় এই খেলা দেখাইছে। বর্তমানে তাদের ঐতিহ্য ধরে রেখেছি। তিন বছর পর নৌকা বাইচ দিতে আসলাম। তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, প্রতি উপজেলায় এই আয়োজন করা গেলে ঐতিহ্য টিকে থাকবে। তানা হলে এ খেলাটি বিলুপ্ত হয়ে যাবে।

সৈয়দ সামসুন্নাহার স্মৃতি সংঘের সভাপতি ও নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতার সভাপতি মীর্জ ফরিদুজ্জামান হাবিবুর বলেন, আমরা চেষ্টা করি। প্রতি বছর গ্রাম বাংলার এই ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্য যে কারনে এগুলোর আয়োজন করা হয়। কিন্তু সেটি কঠিন হয়ে যাচ্ছে। নৌকা পাওয়া যায় না। যে বড় নৌকাগুলো ছিলো সেগুলো নষ্টের পথে। আমরা প্রতিবছর এই আয়োজনের চেষ্টা করবো বলে জানান।

রাজবাড়ী সদর উপজেলার বসন্তপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মীর্জা বদিউজ্জামান বাবু বলেন, ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্য সরকারকে এগিয়ে আসতে হবে। আজকের এই উপস্থিতি প্রমাণ করে মানুষ এসব ঐতিহ্য সব সময় ধরে রাখতে চায়। আমি সরকারকে অনুরোধ করবো তারা যেন গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য ধরে রাখার জন্য এগিয়ে আসেন।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102