May 21, 2022, 12:19 am
শিরোনামঃ
রাজবাড়ীতে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তর সরবরাহকারী চক্রের ১৩ সদস্য আটক গোয়ালন্দে পদ্মার ভাঙনঃ থেমে আছে ঘাট আধুনিকায়ন কাজ রাজবাড়ীতে টিকা সপ্তাহ উপলক্ষে প্রশিক্ষণ কর্মশালা কালুখালীতে ভর্তুকি মূল্যে কৃষি যন্ত্রাংশ ক্রয়ে অনিয়মের অভিযোগ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় শ্রেনীর শিশু শিক্ষার্থী ধর্ষন, ধর্ষক গ্রেপ্তার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথঃ তিন ফেরি বিকল, ঘাট এলাকায় পণ্যবাহী গাড়ির চাপ গোয়ালন্দে হেরোইনসহ তরুণ গ্রেপ্তার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল রাজবাড়ীতে শব্দ দূষণ নিয়ন্ত্রনে সচেতনতামূলক সভা রাজবাড়ীর পুলিশ পরিদর্শক অধীর চন্দ্র রায়ের বদলি জনিত বিদায় সংবর্ধনা

রাজবাড়ীতে প্রকল্পের কাজ শেষ না হতেই ধ্বসে গেল সিসি ব্লক, হুমকিতে বেড়ীবাঁধ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, জুলাই ২৮, ২০২১
  • 116 Time View
শেয়ার করুনঃ

ষ্টাফ রিপোর্টার, রাজবাড়ীঃ প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার আগেই রাজবাড়ী শহরের গোদার বাজারের পদ্মা নদীর তীর সংরক্ষণ এলাকার প্রায় ৬০ মিটার বাঁধের সিসি ব্লক নদীগর্ভে বিলিন হয়েছে। কাজে অনিয়মের কারণে বাঁধ ধসে গেছে বলে অভিযোগ স্থানীয় এলাকাবাসীর।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) বিকেলে রাজবাড়ী সদর উপজেলার মিজানপুর ইউনিয়ন ও পৌর এলাকার গোদার বাজার এনজিএল ইট ভাটা এলাকায় এ  ভাঙ্গন দেখা দেয়।পরে  সন্ধ্যার মধ্যে ইটভাটা ও গোদার বাজার ঘাট এলাকায় প্রায় ৬০ মিটার সিসি ব্লক বাঁধ ধসে গেছে বলে জানিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ড।

সরেজমিনে দেখা যায়, গোদার বাজার ইট ভাটা ও ঘাট এলাকায় বেশে কয়েকটি স্থানে ভাঙ্গনের ফলে প্রায় ৬০মিটার সিসি ব্লক নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। পদ্মা নদীর শহর রক্ষা বাঁধের দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ চলমান থাকাকালীন এমন ভাঙন শুরু হয়। এতে এলাকার এনজিএল ইটভাটা সহ বাড়িঘর হুমকির মধ্যে রয়েছে। এ ছাড়া ভাঙনে হুমকির মুখে পড়েছে রাজবাড়ী শহর রক্ষা বাঁধ। এ সময় ভাঙন প্রতিরোধে সিসি ব্লক ও বালুভর্তি জিও ব্যাগ ফেলতে দেখা যায় পানি উন্নয়ন বোর্ডকে।

এর আগে ১৬ জুলাই ভাঙনের স্থান থেকে আধা কিলোমিটার পশ্চিমে শহর রক্ষা বাঁধের নদীর তীর এলাকার প্রকল্পের স্থানের কাজ শেষের দুই মাস না যেতেই প্রায় ৩০ মিটার এলাকা ভেঙে যায়।পরে ব্লক ও জিও ব্যাগ ফেলে ভাঙনরোধ করে পাউবো।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, রাজবাড়ী শহর রক্ষায় পদ্মা নদীর তীরে স্থায়ীভাবে সংরক্ষণের কাজ হয়েছে সাত কিলোমিটার এলাকায়। কাজটি সম্পন্ন করে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান খুলনা শিপইয়ার্ড।

ভাঙনরোধে ২০১৮ সালের জুন মাসে রাজবাড়ীর পদ্মা নদীর শহর রক্ষা বাঁধের ডান তীর প্রতিরক্ষার কাজ (দ্বিতীয় পর্যায়) প্রকল্পের আওতায় রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাটে তিন ও মিজানপুরে দেড় কিলোমিটারসহ সাড়ে চার কিলোমিটার এবং ২০১৯-এর জুলাইয়ে শুরু হওয়া (প্রথম সংশোধিত) শহর রক্ষা বাঁধের গোদার বাজার অংশের আড়াই কিলোমিটারসহ সাত কিলোমিটার এলাকায় ৪৫২ কোটি টাকা ব্যয়ে প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। এতে দ্বিতীয় পর্যায়ের সাড়ে চার কিলোমিটারে ৩৭৬ কোটি ও প্রথম সংশোধিত ১৫২৭ মিটারে ৭৬ কোটি টাকা ব্যয় ধরা হয়। প্রকল্পের জন্য ৮.৩ কিলোমিটার অংশে ৪৯ লাখ ঘনমিটার ড্রেজিং করা হয়েছে।

নদী পাড়ে বসবাসকারী একাধীক ভাঙনকবলিত কয়েকজন জানান, গেল কয়েক বছরের নদী ভাঙ্গনে বাপদার বসত বাড়ি ফসলি জমি জমা হারিয়েছি।এখন কোন ভাবে বেচেঁ আছি।এভাবে ভাঙ্গতে থাকলে আমাদের মত হাজারো মানুষ না খেয়ে মারা যাবে।পানি উন্নয়ন বোর্ডের ভাঙন প্রতিরোধ বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরু হলে আশায় বুক বেঁধেছিলাম। কাজের শুরুতেই অনিয়ম হতে দেখেও মুখ খুলে কিছু বলতে পারিনি।এ অনিয়মের কারণে আজ ব্লক ধসে যাচ্ছে।

পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুর আহাদ বলেন, স্থায়ীভাবে সংরক্ষণে সাত কিলোমিটার এলাকায় খরচ  ৩৭৬ কোটি টাকা। এর মধ্যে ড্রেজিং এর জন্য ধরা হয়েছিল প্রায় ২০০কোটি টাকা। যদিও ড্রেজিং থেকে প্রায় ১০০কোটি টাকা বেঁচে গেছে। এখন ভাঙনের কারন হলো নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়েছে। ধসে যাওয়া এলাকায় নদীর স্রোত বেশি। এ জন্য আরও পাঁচ কোটি টাকা অতিরিক্ত বরাদ্দ চেয়ে চিঠি দিয়েছি। বরাদ্দ পেলেই কাজ শুরু করা হবে। গতকাল সন্ধ্যায় হঠাৎ এনজিএল ইটভাটা এলাকায় বালুভর্তি জিও ব্যাগ ও সিসি ব্লক ফেলানোর ব্যবস্থা করি।

অনিয়মের বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, ব্লক ধসে যাওয়া অনিয়মের কোনো বিষয় নয়। জিওব্যাগ এবং ব্লক যা নদীতে ফেলার কথা ছিল তা এখনো ফেলা হয়নি। তাই বসানো ব্লক ধসে পড়েছে। আপাতত নদীতীরের সড়ক রক্ষার্থে ব্লকগুলো দেওয়া হয়েছিল। বৃষ্টি শেষে নিয়ম অনুযায়ী সব কাজ সম্পন্ন করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102