June 22, 2021, 9:06 pm
Title :
রাজবাড়ীতে পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ দৌলতদিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে করোনায় সংক্রমণ রোধে কঠোরবিধি নিষেধ, পৌরসভার উদ্যোগে মাস্ক বিতরণ গোয়ালন্দ থানা পুলিশের উদ্যোগঃ বিট পুলিশকে তথ্য দিন, নিরাপদে কাটবে দিন করোনা নিয়ে উদ্বেগঃ রাজবাড়ীর তিন পৌরসভায় এক সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ রাজবাড়ীতে দ্বিতীয় পর্যায়ে ঘর পেল ভূমিহীন ৪৩০টি পরিবার পাংশায় আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের মাঝে জমিসহ গৃহ প্রদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত গোয়ালন্দে নতুন ঘরে নতুন আশা নিয়ে নতুন দিনের স্বপ্নে ৩০ পরিবার এবার যমুনা নদীতে জেলেদের জালে ধরা পড়লো ৪৭ কেজি ওজনের বাগাড় রাজবাড়ীতে ১০দিন ব্যাপি সাঁতার প্রশিক্ষণ উদ্বোধন

দৌলতদিয়ায় শেষ হলো ২৬ তম রাসেল গ্রামীণ মিলনমেলা

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, মার্চ ৬, ২০২১
  • 13 Time View
শেয়ার করুনঃ

জীবন চক্রবর্তী, গোয়ালন্দঃ গোয়ালন্দের দক্ষিণ দৌলতদিয়ায় অবসরপ্রাপ্ত বিডিআর আব্দুর রহিম এর বাড়িতে জাঁকজমকভাবে ৫দিন ব্যাপি ২৬ তম বার্ষিকী রাসেল মিলনমেলা বৃহস্পতিবার রাতে শেষ হয়েছে। গত ২৮ ফ্রেব্রুয়ারী থেকে গ্রামীণ মেলা শুরু হয়।

আয়োজকরা জানায়, প্রতি বছরের ন্যায় ২৬তম রাসেল মিলন মেলায় বৃহস্পতিবার রাতে রহিম-রুপবান যাত্রাপালার মধ্য দিয়ে মেলা শেষ হয়। এর আগে মেলার প্রথম দিন মানিকগঞ্জ থেকে শিল্পী নাসিমা দেওয়ান ও মনির সরকার বিচার গান পরিবেশন করেন। দ্বিতীয় দিন মাগুরা হতে শিল্পী পরিমল সরকার ও গৌর সরকার কবিগান পরিবেশন করেন। তৃতীয় দিন খানখাপুরের ভাই ভাই শিল্পগোষ্ঠী গাজীর যাত্রা (কহজ্জল বাদশা) পরিবেশন করেন। মেলার চতুর্থ দিন রাতে মানিকগঞ্জ রাজলক্ষ্মী অপেরা পরিবেশন করেন শহীদ কারবালা যাত্রাপালা অনুষ্ঠিত হয়। দুটি পালাই পরিচালনা করেন আসলাম উদ্দিন বেগ। মেলায় নাগরদোলা, কাঠের বেলনা, ব্যাট, স্ট্যান, পিঁড়ি, বাচ্চাদের বিভিন্ন প্রকার খেলনা সামগ্রী সহ তৈজসপত্রের দোকান, কসমেটিকস সামগ্রী, নানা প্রকার খাবারের  এবং চা পান-সিগারেটের দোকানপাটে বেশ কেনাবেচাও লক্ষ্য করা যায়।

রহিম বিডিআর বলেন, আমার প্রয়াত সন্তান রাসেলের নামে মেলাটি আমি ২৬ বছর ধরে পরিচালনা করে আসছি। মেলাতে বিগত দিনে এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যানসহ অনেক রাজনৈতিক ব্যক্তি এসেছেন। অনেকের কাছেই আমার মেলার জন্য সাহায্যের কথা বলেছি, কিন্তু পরিতাপের বিষয় আমার কেউ কোন অর্থনৈতিক সাপোর্ট দেয়নি। এমন কি মেলার বাইরের লোকদের জন্য একটি পানির টিউবওয়েল চেয়েও পাইনি। গ্রামের কর্মক্লান্ত খেটে খাওয়া মানুষ সারাদিন মাঠেঘাটে পরিশ্রম করে, সংসারের যাতাকলে পড়ে তারা হাঁপিয়ে ওঠেন। তাদের আনন্দ বিনোদন দিতে এবং আমার প্রয়াত সন্তানের স্মৃতি রক্ষার্থে মূলত আমি এই মেলার আয়োজন করি। মেলাতে শত শত লোকের ভীড়ে আমি আমার হারানো সন্তানকে খুঁজে পাই।

তিনি বলেন, আমার কিছু আত্মীয় স্বজনের সাহায্যে নিয়ে আমি এই মেলাটি পরিবেশন করি। মেলার জন্য আমি কিছু জমিও লিখে দিয়েছি। কিন্তু মেলার জন্য স্থায়ী কোন স্টেজ করতে পারিনি এখনো। বাইরে থেকে যে সকল শিল্পী অসেন তাদের থাকা খাওয়া, সম্মানি খরচ, লাইটিং বা ডেকোরেশন সহ ৫দিনে প্রতি বছর দেড় থেকে দুই লাখ টাকা খরচ হয়। আল্লাহু যতদিন আমাকে বাঁচিয়ে রাখবেন, আমি ততদিনই এভাবেই মেলা চালিয়ে যাব।

মেলা উদযাপন কমিটির সভাপতি মতিয়ার রহমান বলেন, স্থানীয়দের সহযোগিতা নিয়ে প্রতি বছর এ মেলার আয়োজন করে থাকি। গ্রামীন বাঙলার মেলা বা যাত্রাপালার আসর হারিয়ে যেতে বসেছে। এসব টিকিয়ে রাখতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন। সরকারি ও বেসরকারীভাবে সহযোগিতা পেলে আরো অনেক ভালো কিছু করা সম্ভব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102