December 3, 2021, 1:22 am

চাউল বিক্রেতা সুজন মোল্লা এখন গোয়ালন্দ পৌরসভার কাউন্সিলর

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, মার্চ ৪, ২০২১
  • 40 Time View
শেয়ার করুনঃ

রাশেদ রায়হানঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌরসভা নির্বাচনে ৫নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন মো. সুজন মোল্লা (৩২)। বয়সে সর্বকনিষ্ঠ সুজন স্থানীয় জুড়ান মোল্লার পাড়ার বেলায়েত মোল্লার ছেলে ও গোয়ালন্দ বাজারের ক্ষুদ্র চাউল ব্যবসায়ী। ওই ওয়ার্ডে তাঁর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন আরো তিনজন প্রার্থী। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী থেকে ২১৫ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হন।

কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ার পরও ব্যবসা থেমে নেই। সাধারণ ক্রেতাদের সাথে সদা হাস্যোজ্জল সুজন মোল্লা দিব্বি চাল বেচাকেনা করে চলছেন। পাশাপাশি দোকানে বসেই জনগনের খেদমত করে যাচ্ছেন। ১৪ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সুজন টেবিল ল্যাম্প প্রতীক নিয়ে ৬২৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হিসেবে উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক মো. লিয়াকত আলী পাঞ্জাবি প্রতীকে পান ৪১২ ভোট, বর্তমান কাউন্সিলর মো. কুব্বাত কাজী উট পাখি প্রতীকে পান ২৯৬ ভোট ও সাবেক কাউন্সিলর নাট্যাভিনেতা প্রণব কুমার ঘোষ ডালিম প্রতীক পান ১৭৯ ভোট। এই ওয়ার্ডের মোট ভোটার সংখ্যা ১৮৪৭টি। নির্বাচনে প্রাপ্ত ভোটের মধ্যে বৈধ ভোট হিসেবে ১৫১৪ এবং বাতিল হিসেবে ২৩ ভোট গননা করা হয়। প্রথম শ্রেনীর পৌরসভার ৫নম্বর ওয়ার্ডটি শহরের প্রাণকেন্দ্র ঘেঁষে অবস্থিত হওয়ায় গুরুত্ববহন করে।

গোয়ালন্দের চাল বাজারে ভাড়া দোকানে ব্যস্ত সময় কাটাতে দেখা যায় নবনির্বাচিত কাউন্সিলর সুজন মোল্লাকে। একদিকে তাঁর ওয়ার্ডের অনেক ভোটার আসছেন কুশল বিনিময় করতে। আবার অনেকেই আসছেন তাঁর দোকানের নিয়মিত খরিদ্দার হিসেবে চাল-আটা কিনতে। সবার সাথেই তিনি হাস্যোজ্জল মুখে কুশল বিনিময় করে বেচাকেনা চালিয়ে যাচ্ছেন।

বাজারের হোটেল ব্যবসায়ী আক্কাস সরদার বলেন, আগে অন্যান্য দোকান থেকে চাল কিনতাম। কয়েক বছর আগে সুজনের দোকান থেকে চাল কিনতে আসলে তাঁর ব্যবহার আমাকে মুগ্ধ করে। এরপর থেকে তাঁর দোকান থেকেই চাল কিনি। কোনদিন টাকা দিতে না পারলেও সে মন খারাপ করেনি। তবে সময় মতো এসে টাকা পরিশোধ করে গেছি। তার ব্যবহারই সবাইকে মুগ্ধ করেছে।

আলাপকালে সুজন বলেন, পরিবারের তিন ভাই, তিন বোনের মধ্যে সে দ্বিতীয়। বড় ভাই কিছুটা মানসিক প্রতীবন্ধী। ছোট ভাই বাবার সাথে থেকে পারিবারিক কাজ করেন। তার কাজে সহযোগিতা করতে মাঝেমধ্যে ছোট ভাই বা বাবা এসে বসেন। বাবার হাত ধরেই চাল-আটার ব্যবসা শুরু করেন। বাবার কাজে সহযোগিতা করতেই পড়াশুনা তেমন একটা করতে পারেননি। স্থানীয় আইডিয়াল হাই স্কুল থেকে অষ্টম শ্রেনী পাশ করেন। এক পর্যায়ে পুরোদমে সংসারী হয়ে যান। পরিবারে মা-বাবার পাশাপাশি স্ত্রী, এক সন্তান রয়েছে।

ব্যবসায়ীক কাজের মাধ্যমে জনগনের সাথে ওঠাবসা। খরিদ্দার, এলাকার মানুষের আগ্রহে তাঁর জনসেবার বিষয় মাথায় কাজ করে। ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে স্থানীয়দের চাপ ছিল কাউন্সিলর হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করা। বয়সে বেশি নবীন হওয়ায় ইচ্ছা পোষণ করিনি। এ বছর সবার আগ্রহে নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করি। সারাদিন দোকানে বসে বেচাকেনার পাশাপাশি মাঝেমধ্যে সময় সুযোগ হলে এলাকায় যেতাম। বাকি সময়টুকো দোকানে বসেই মানুষের সাথে সম্পর্ক ঠিক রাখার চেষ্টা করতাম। তবে ভাবিনি আমি সবার ভালোবাসায় এত ভোট পাব। ধারণা ছিল যদি বিজয়ী হই তাহলে সর্বোচ্চ ৫০-৬০ ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হবো।

সুজন মোল্লা বলেন, বর্তমান ও সাবেক কাউন্সিলরসহ রাজনৈতিক নেতার সাথে টক্কর দিয়ে আমার মতো একজন ক্ষুদ্র নবীন মানুষকে ২১৫ ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী করবে ভাবিনি। ব্যবসায়ীক কাজে বাজারে থাকলেও বাড়িতে কেউ এসে খালিমুখে ফিরে যায়নি। জনগনের ভালোবাসা পেয়েছি, বাকিটা জীবন তাঁদের সাথেই থাকতে চাই। এলাকার উন্নয়নে নিজেকে নিয়োজিত রাখতে চাই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102