September 17, 2021, 7:14 am
Title :
রাজবাড়ীতে নদী তীর সংরক্ষণ কাজের ৫০ মিটার সিসি ব্লক বিলীন দৌলতদিয়া ঘাটে ওরস ফেরত গাড়ির চাপে লম্বা লাইন, দুর্ভোগ রাজবাড়ীতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযান, মাদকসহ গ্রেপ্তার ৩ পদ্মা নদীতে অবৈধভাবে মাটি খনন করায় ঝুঁকিতে রাস্তা-বসতভিটা বালিয়াকান্দিতে ইয়াবাবড়ি ও টাকা সহ দুই তরুণ গ্রেপ্তার মাঝ রাতে বিয়ে করলেন চিত্র নায়িকা মাহিয়া মাহি রাজবাড়ীতে হেরোইনসহ ট্রেন যাত্রী গ্রেপ্তার আইন শৃঙ্খলা সভাঃ “আমার ছেলে মদ-ই খেয়েছে, ডাকাতি তো করেনি”! দৌলতদিয়ায় মদ খেয়ে মাতলামী, ১১ মামলার আসামীসহ গ্রেপ্তার ৪ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রাণ ফিরে এসেছে, স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত

সাবেক স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে দ্বিতীয় স্বামীর জবানবন্দী

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২১
  • 33 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলায় সাবেক স্ত্রীকে হত্যার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন মকিম মোল্লা (৪৫) নামের এক ব্যক্তি। বুধবার বিকেলে রাজবাড়ীর ২ নম্বর আমলি আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সুধাংশু শেখর রায়ের কাছে তিনি ১৬৪ ধারায় এ জবানবন্দি দেন। মাত্র ২৪ ঘন্টার মধ্যে পুলিশ রহস্য উদঘাটন করা সহ মূল আসামীকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে।

এর আগে গত সোমবার সকালে কালুখালী উপজেলার মাঝবাড়ী ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের কাশমিয়া বিলের পাড় থেকে মকিম মোল্লার স্ত্রী নাজমা খাতুন ওরফে মাঞ্জুয়ারার (৪২) লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। অভিযুক্ত মকিম মোল্লার (৪৫) বাড়ি উপজেলার চরকুলটিয়া গ্রামে। নিহত নাজমা খাতুন একই ইউনিয়নের কুষ্টিয়াডাঙ্গী গ্রামের মানিক মণ্ডলের মেয়ে। এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় নাজমার ভাই ইমান আলী মণ্ডল বাদী হয়ে কালুখালী থানায় হত্যা মামলা করেন।

কালুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুদুর রহমান বলেন, মামলা হওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে অভিযান চালিয়ে গাজীপুর থেকে আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে মকিম মোল্লা হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন। এরপর তাঁকে আদালতে হাজির করা হলে সেখানে তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। বুধবার বিকেলে তাঁকে আদালতের মাধ্যমে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার এজাহার ও আদালত-সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, মকিম মোল্লা ছিলেন নাজমা খাতুনের দ্বিতীয় স্বামী। তাঁর কাছ থেকে জমি বন্ধক নেওয়ার কথা বলে দেড় লাখ টাকা নিয়েছিলেন নাজমা। সেই টাকা পরিশোধ না করেই মকিমকে তিন বছর আগে ডিভোর্স দেন তিনি। এরপর থেকে নাজমা গাজীপুরে পোশাক কারখানায় চাকরি শুরু করেন। মকিমও আরেক স্ত্রী নিয়ে গাজীপুরে পোশাক কারখানায় চাকরি নেন। সপ্তাহখানেক আগে নাজমা খাতুন গ্রামে বাবার বাড়িতে আসেন। ঘটনার আগের দিন মৌরাট ইউনিয়নের বাগদুলে বোনের বাড়িতে পাওনা টাকা আনতে যান তিনি।

সূত্র আরো জানায়, বোনের বাড়ি থেকে ফেরার সময় মকিম মোল্লার সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ হয় নাজমা খাতুনের। পরে সোনাপুর মোড়ে দুজনের দেখা হয়। গল্প করতে করতে নাজমাকে নির্জন স্থানে নিয়ে যান মকিম। একপর্যায়ে তাঁকে পেছন থেকে ঘাড়ের ওপর চাকু দিয়ে আঘাত করেন তিনি। এতে মাটিতে পড়ে যান নাজমা। এরপর মাটিতে ফেলে তাঁকে কুপিয়ে হত্যা করেন মকিম। পরে তিনি গাজীপুরে চলে যান। সোমবার সকালে নাজমার লাশ উদ্ধার করা হয়। মুঠোফোনের কললিস্ট ঘেঁটে গাজীপুর থেকে মকিমকে মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার এমএম শাকিলুজ্জান জানান, তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে মাত্র ২০ ঘন্টার মধ্যেই মঞ্জু হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটন এবং ঘাতককে তারা গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছেন। তাদের এই কাজের ধারা অব্যাহত থাকবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102