September 25, 2021, 3:39 pm
Title :
রাজবাড়ীতে পদ্মার গর্ভে বিলীন চরনিসিলিমপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন সংবাদ সম্মেলন জেলা আ.লীগের সভাপতি প্রার্থীতা ঘোষনা দিলেন সাংসদ কাজী কেরামত রাজবাড়ীতে বাইসাইকেল পেলো ৯৮ গ্রাম পুলিশ গোয়ালন্দে মাদক সেবনকারী ৫ ব্যাক্তিকে ৩ মাস করে কারাদণ্ড প্রদান পাংশায় মাছ ধরতে গিয়ে নিখোঁজের দুই দিন পর যুবকের লাশ উদ্ধার রাজবাড়ীতে বিদুৎ স্পর্শে ইলেকট্রিক মিস্ত্রির মৃত্যু রাজবাড়ীতে আ.লীগের বর্ধিত সভাঃ ‘দলকে শক্তিশালী করতে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান’ গোয়ালন্দে ভ্রাম্যমাণ আদালত কতৃক মুরগীর খামারীকে জরিমানা প্রয়াত নুরু মন্ডলের মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহ্ফিল ও স্বরণ সভা রাজবাড়ীতে স্বপ্নচূড়া’র আয়োজনে শাহ আব্দুল করিমে’র মৃত্যু বার্ষিকী পালিত

গোয়ালন্দে বিএনপি প্রার্থী খুঁজে পায়নি, মূল লড়াই হবে আ.লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২১
  • 29 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ ২০০০ সালে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ পৌরসভা প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ পর্যন্ত তিন দফা আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে প্রতিযোগিতাপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ১৪ ফেব্রুয়ারী চতুর্থ দফায় অনুষ্ঠেয় পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির কোন প্রার্থী নেই। তবে লড়াই হচ্ছে আ.লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে।

পৌরসভা ও সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ২০০০ সালের ২৬ জুলাই থেকে পৌরসভার কার্যক্রম শুরু। ২০০২ সালের ১৩ মে প্রথম দলীয় প্রতীকে না হলেও সকল রাজনৈতিক দলের অংশ গ্রহণে উৎসবমুখর পরিবেশে নির্বাচন হয়। বিএনপি নেতা সাইদুর রহমান হেনা, আ.লীগ নেতা ফকীর আব্দুল কাদের, শ্রমিকদল নেতা কাইয়ুম মোল্লা, ব্যবসায়ী আলাউদ্দিন মোল্লা এবং গোয়ালন্দ হ্যাচারীজ লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইদ্রিস আলী শেখ এর জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ মো. নিজাম প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। বিপুল ভোটে শেখ মো. নিজাম প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন। সাড়ে ৮ বছর পর ২০১১ সালের ১৭ জানুয়ারী দ্বিতীয় দফা নির্বাচন হয়। শেখ মো. নিজামের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন পৌর বিএনপির সভাপতি রেজাউল হাসান ইদ্রিস এবং আওয়ামী লীগ নেতা নাজিরুল ইসলাম দুলু। দ্বিতীয়বারও মেয়র নির্বাচিত হন শেখ মো. নিজাম। তৃতীয় দফা ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর দলীয় প্রতীকে নির্বাচনে মেয়র শেখ মো. নিজাম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে (জগ) প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। আ.লীগের প্রার্থী হিসেবে যুবলীগ নেতা নজরুল ইসলাম মন্ডল (নৌকা), পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল কাসেম মন্ডল (ধানের শীষ) এবং জাতীয় পার্টির প্রার্থী হেলাল মাহমুদ (লাঙল)। প্রায় আড়াই হাজার ভোটের ব্যবধানে তিন বারের মেয়র নির্বাচিত হন শেখ মো. নিজাম। বিএনপি মাত্র ২২০ ও জাতীয় পার্টি পান ৫৯ ভোট।

৪.৮৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকা নিয়ে গঠিত তৃতীয় শ্রেনীর গোয়ালন্দ পৌরসভাকে দ্বিতীয় শ্রেনীতে উন্নীত করন করা হয় ২০১২ সালের ২৪ এপ্রিল। ৪ বছর পর ২০১৬ সালের ১২ জুলাই দ্বিতীয় শ্রেনী থেকে প্রথম শ্রেনীতে উন্নীত করন হয়। তবে ‘ক’ শ্রেনীর পৌরসভা হলেও অবকাঠামোগত উন্নয়ন তেমন হয়নি। ২৭ হাজার জনসংখ্যা অধ্যূষিত পৌরসভার মোট ভোটার সংখ্যা ১৬ হাজার ৫৪৮ জন। এরমধ্যে পুরুষ ভোটার রয়েছে ৮,২৫৪ এবং মহিলা ভোটার সংখ্যা ৮,২৯৪ জন।

তৃতীয় দফা নির্বাচন শেষে সাবেক মন্ত্রী খোন্দকার মোশাররফ হোসেনের হাত ধরে রাজবাড়ীর এক অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন মেয়র। তিনি গোয়ালন্দ উপজেলা আ.লীগের ১নম্বর কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য। এবার কেন্দ্রীয়ভাবে দলীয় মনোনয়ন চেয়ে না পেয়ে তিনি ও তাঁর আপন ছোট ভাই শেখ নজরুল ইসলাম স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন। শেখ নিজাম মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেওয়ায় ছোট ভাই শেখ মো. নজরুল ইসলাম (জগ) প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। নৌকার বিপক্ষে প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করায় ও ছোট ভাইয়ের প্রচারণায় অংশ নেয়ার অভিযোগে ৪ ফেব্রুয়ারী জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী ইরাদত আলী স্বাক্ষরিত দলীয় প্যাডে আ.লীগ থেকে শেখ মো. নিজাম ও শেখ মো. নজরুল ইসলামকে বহিস্কার করেন।

নৌকার প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন পৌর আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নজরুল ইসলাম মন্ডল এবং জাতীয় পার্টির (এরশাদ) প্রার্থী হেলাল মাহমুদ (লাঙ্গল)। প্রতি নির্বাচনে তিন রাজনৈতিক দলের প্রার্থী থাকলেও এবছর বিএনপি কোন প্রার্থী দেয়নি। দলের ভিতর অভ্যন্তরীন কোন্দল ও দ্বিধাবিভক্তির কারণে অনেকটা নেতৃত্ব সংকট দেখা দেওয়ায় বিএনপি কোন প্রার্থী দিতে পারেনি।

উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবলু বলেন, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী দেওয়া হয়। ভোটারদের উপস্থিতি কম এবং দলের দ্বিধাবিভক্তির কারণে মাত্র ২৩০০ ভোট পায়। গত পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী থাকলেও লজ্জাজনক ভোট পাওয়ায় অনেকে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে। বর্তমানে টাকা ছাড়া নির্বাচন হয়না। স্বতন্ত্র ও সরকার দলীয় প্রার্থীর অর্থের প্রভাবের কাছে টিকে থাকা মুশকিল। দলের দ্বিধাবিভক্তিতে আমরা পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী দিতে পারিনি।

উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সুলতান নুর ইসলাম মুন্নু বলেন, বর্তমানে দলের ভিতর চরম নাজুক পরিস্থিতি চলছে। সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন দূরের কথা নিজেদের ভিতর শুদ্ধি অভিযান চালানো দরকার। জেলা পর্যায়ে আহ্বায়ক কমিটির বৈরী আচরণের কারণে এবার কোন প্রার্থী দিতে পারিনি। অথচ পৌরসভার মধ্যে বিগত দুটি নির্বাচনেই প্রায় ৪ হাজার ভোট পায়। এবছর আমরা ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে আছি।

রাজবাড়ী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক এ্যাড. লিয়াকত হোসেন বলেন, উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে বিএনপি থেকে প্রার্থী দিতে যোগ্য অনেককে আহ্বান করলেও কেউ সাড়া দেয়নি। বাধ্য হয়ে ইঞ্জিনিয়ার মাহাবুব আলম শাহিন নামের একজনকে দেই। কিন্তু জেলা বিএনপির সাবেক সাংসদ, সাবেক সভাপতি আলী নেওয়াজ মাহমুদ খৈয়াম এবং সাবেক সহসভাপতি বর্তমান জেলা কমিটির যুগ্ম-আহ্বায়ক এ্যাড. আসলাম মিয়া চরম বিরোধিতা করেন। এসব কারনে পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী খুঁজে পায়নি।

১৪ ফেব্রুয়ারী গোয়ালন্দ পৌরসভার চতুর্থ নির্বাচনে মেয়র পদে পৌর আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি নজরুল ইসলাম মন্ডল (নৌকা), স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান মেয়র শেখ মো. নিজামের ছোট ভাই তরুণ শিল্পপতি শেখ মো. নজরুল ইসলাম (জগ) ও জাতীয় পার্টি মনোনিত দলের জেলা কমিটির যুগ্ম-সাংগঠনিক সম্পাদক, সাংবাদিক হেলাল মাহমুদ (লাঙ্গল) প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। তবে নৌকা এবং জগ প্রতীকের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হচ্ছে বিষয়টি সবার কাছে স্পষ্ট রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102