August 5, 2021, 3:19 am
Title :
হিন্দু বাড়িতে হামলা, মারধর, পুলিশের হস্তক্ষেপে পালিয়ে থাকা পরিবার বাড়িতে প্রবাসী ফোরামের জন্মদিনে ব্লাড ডোনার ক্লাবকে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান ভাঙন কবলিত মানুষের মাঝে ইয়ামাহা রাইডার্স এর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সকালে ব্যক্তিগত গাড়ির লম্বা লাইন, দুপুরে ঘাটে মানুষের ভিড় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে লঞ্চে সকাল থেকেই মানুষের ভিড় গৃহকর্মীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা একা কারাগারে কারখানা খোলায় দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ঢল, যে যেভাবে পারছে সেভাবে ছুটছে পদ্মার ১৯ কেজির পাঙ্গাশ, বিক্রি হলো ২৬ হাজার ৬০০ টাকায় গোয়ালন্দে জুয়া খেলা অবস্থায় টাকাসহ ৬ জুয়াড়ি আটক, পলাতক দুই শ্রমিকদের যাতায়াতের সুবিদার্থে রাত থেকে চলবে লঞ্চ

ক্যাপসিক্যাম আবাদ করে স্বাবলম্বি রাজবাড়ীর শহিদুল ইসলাম

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২১
  • 18 Time View
শেয়ার করুনঃ

ইমরান হোসেন, রাজবাড়ীঃ রাজবাড়ীর মো. শহিদুল ইসলামি একজন চাইনিজ রেস্টুরেন্ট ব্যাবসায়ী। পড়াশোনাও করেছেন হোটেল ম্যানেজমেন্ট বিষয়ে। ব্যবসা পরিচালনার প্রয়োজনে সবজি হিসেবে প্রতিদিনই প্রচুর পরিমানে মিস্টি মরিচ বা ক্যাপসিক্যামের প্রয়োজন হয়। প্রচুর দাম ও হাতের নাগালে না পাওয়ার কারনে বর্তমানে শহিদুল ইসলাম নিজেই এর আবাদ করছেন।

২০১৯ সালে প্রথমে তিনি ১ বিঘা জমিতে প্রায় পৌনে দুই লাখ টাকা ব্যায়ে ক্যাপসিক্যামের আবাদ করেন। প্রথম বছরই নিজের রেস্টুরেন্টের চাহিদা মিটিয়ে তিনি প্রায় ৫ লাখ টাকার ক্যাপসিক্যাম বিক্রি করেন। বর্তমানে সারে ৪ বিঘা জমিতে এর আবাদ করে রাজবাড়ীতে নতুন ও সফল উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। ইতমধ্যে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার ও কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা ক্যাপসিক্যাম আবাদী ক্ষেত দেখতে গিয়েছিলেন।

রাজবাড়ী সদর, পাংশা ও বালিয়াকান্দিতে ক্যাপসিকামের আবাদ শুরু হয়েছে। জেলায় প্রথম আবাদ শুরু করেন সদর উপজেলার মিজানপুর বেনি নগর গ্রামের শহিদুল ইসলাম। তিনি প্রথমে এক বিঘা জমিতে এর আবাদ শুরু করেন এবং ভালো ফলন ও বেশি দাম পাওয়ায় ভালো লাভবান হন। প্রথম বছরই তিনি এক বিঘা থেকে সাড়ে চার লাখ টাকার ক্যাপসিক্যাম বিক্রি করেন। গত বছর তিনি সাড়ে ৪ বিঘা জমিতে এর আবাদ বাড়িয়েছেন। একবার চাড়া রোপন করলে ৪ বার ফুল হয় এবং ৮ বার ফলন উত্তোলন করা যায়। প্রতিটি গাছ থেকে ৩ থেকে ৫ কেজি পর্যন্ত ফলন পাওয়া যায়। তাইওয়ান, ইন্দোনেশিয়ান, ইটালিয়ান ও ইন্ডিয়ান এ চার জাতের এবং লাল, হলুদ ও সবুজ রঙ্গের এ ৩টি ধরনের ক্যাপসিক্যাম আবাদ হয়।

মৌসুম অনুযায়ী প্রতি কেজি ক্যাপসিক্যাম পাইকারি বাজারে বিক্রি হয় ১০০ টাকা থেকে ৪০০ টাকা পর্যন্ত। তবে শীত মৌসুম শেষে এর দাম বেড়ে যায়। প্রতি ১৫দিন পর পর ফলন উত্তোলন করা হয়। ঢাকা সহ দেশের ১৬টি জেলার পাইকাররা এসে শহিদুলের উৎপাদিত ক্যাপসিক্যাম কিনে নিয়ে যাচ্ছেন ব্যাবসায়ীরা।

শহিদুলের দেখা দেখি ও ভালো লাভবান হওয়ায় অনেকেই এখন ক্যাপসিক্যাম আবাদের দিকে ঝুঁকছেন। কেউ কেউ এখন বেকার জীবন ঘুচাতে শহিদুলের ক্যাপসিক্যামের ক্ষেত দেখতে আসছেন প্রতিদিন।

রাজবাড়ী সদর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা মো. বাহাউদ্দিন শেক বলেন, ক্যাপসিক্যাম একটি লাভজনক সবজি। যারা ইয়ং উদ্যোক্তা হিসেবে কৃষিকে বেছে নিতে চান তাদের জন্যে ক্যাপসিক্যাম চাষ একটি আদর্শ। যুবক শহিদুল নতুন উদ্যোক্তা হিসেব ক্যাপসিক্যাম আবাদ করেে লাবান হয়েছেন। যারা বেকার রয়েছেন তারা এর আবাদ করে ভার্গের চাকা পরিবর্তন করতে পারবেন। তাদের সহযোগীতায় আগামীতে এর আবাদ আরো বাড়বে বলে আশা করনে তিনি।

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক মো. মনিরুজ্জামান-উপ-পরিচালক বলেন, ক্যাপসিক্যাম একটি মূল্যবান কৃষিপণ্য। এর উৎপাদন ব্যায় অনেক বেশি। বিভিন্ন চাইনিজ ও ফাইভস্টার রেস্টুরেন্টে এর ব্যবহার বেশি হয়। বিধায় ক্যাপসিক্যামের আবাদের আগে মার্কেট প্লেস বা বিক্রির স্থান তৈরি করে নিতে হবে। আবাদ ও দক্ষ ম্যানেজমেন্টর কারনে তিনি সফলতা অর্জন করেছেন এটা ধরে রাখতে পারলে রাজবাড়ীতে আরো নতুন উদ্যোক্তা তৈরী হবে। কৃষি অধিদপ্তর থেকে সার্বক্ষনিক পরামর্শ প্রদান করা হয়।

জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম বলেন, পন্যটি দেশের বাইরের একটি সবজি হিসেবে পরিচিত। রাজবাড়ীতে একজন নতুন উদ্যোক্তো এর আবাদ করছেন। উৎপাদিত এই পন্যটি দেশের ১৬টি জেলাতে যাচ্ছে। ক্যাপসিক্যামের আবাদ পরবর্তি প্রজন্মকে কৃষির ক্ষেত্রে আরো এগিয়ে আসতে উৎসাহিত করবে। প্রচলিত কৃষির সাথে এই অপ্রচিলিত পন্যগুলো কৃষি ক্ষেত্রে সমৃদ্ধি আনবে। এই সবজির উৎপাদনের কারনে আশপাশের জেলার কাছে রাজবাড়ীর পরিচিতিকে তুলে ধরবে বলে আশা করেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102