September 17, 2021, 7:49 am
Title :
রাজবাড়ীতে নদী তীর সংরক্ষণ কাজের ৫০ মিটার সিসি ব্লক বিলীন দৌলতদিয়া ঘাটে ওরস ফেরত গাড়ির চাপে লম্বা লাইন, দুর্ভোগ রাজবাড়ীতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অভিযান, মাদকসহ গ্রেপ্তার ৩ পদ্মা নদীতে অবৈধভাবে মাটি খনন করায় ঝুঁকিতে রাস্তা-বসতভিটা বালিয়াকান্দিতে ইয়াবাবড়ি ও টাকা সহ দুই তরুণ গ্রেপ্তার মাঝ রাতে বিয়ে করলেন চিত্র নায়িকা মাহিয়া মাহি রাজবাড়ীতে হেরোইনসহ ট্রেন যাত্রী গ্রেপ্তার আইন শৃঙ্খলা সভাঃ “আমার ছেলে মদ-ই খেয়েছে, ডাকাতি তো করেনি”! দৌলতদিয়ায় মদ খেয়ে মাতলামী, ১১ মামলার আসামীসহ গ্রেপ্তার ৪ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে প্রাণ ফিরে এসেছে, স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত

শব্দ দূষণ প্রতিরোধে ইউএনও’র কাছে শিক্ষানবীশ আইনজীবীর আবেদন

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ফেব্রুয়ারি ১, ২০২১
  • 33 Time View
শেয়ার করুনঃ

মঈন মৃধা, গোয়ালন্দঃ শব্দ দূষনের হাত থেকে শহরবাসীকে বাঁচাতে রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানিয়েছেন মো. তানভীর হাসান ওরফে তনু নামের এক শিক্ষানবীশ আইনজীবী। ওই আইনজীবী গোয়ালন্দ পৌরসভার  ৯নং ওয়ার্ড বাহাদুরপুর গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল খালেক সরদারের ছেলে । এবং সে ঢাকা বার কাউন্সিলের একজন শিক্ষানবীশ আইনজীবী।

রোববার (৩১ জানুয়ারী) বিকালে গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী র্কমকর্তার কার্যালয়ে নিজেই গিয়ে এই আবেদন পত্রটি ইউএনও’র কাছে জমা দেন। গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী র্কমকর্তা (ইউএনও) আমিনুল ইসলাম আবেদন পত্রটি গ্রহণ করার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শিক্ষানবীশ আইনজীবী তানভীর হাসান ওরফে তনু বলেন, পরিবেশ দূষণ বর্তমানে এক অসহনীয় মাত্রায় পৌঁছেছে। নানাভাবে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। পরিবেশ দূষণের অন্যতম কারণগুলির মধ্যে শব্দদূষণ একটি। শব্দদূষণের কারণেও যে মারাত্মক রকমের স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে সে সম্পর্কে জনসাধারণের মাঝে সুস্পষ্ট ধারনা নেই। ২০ ডেসিবেল শব্দের মাত্রা হলেই আমরা সেটি শুনতে পাই। এর কম হলে শুনতে পারি না। ২০ থেকে ২০ হাজার হার্জ পর্যন্ত শব্দ আমরা শুনতে পারব। এর চেয়ে বেশি হলে শ্রবণশক্তি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বাংলাদেশের শব্দদূষণ নিয়ন্ত্রণ বিধিমালা (২০০৬) থাকলেও বাস্তবায়ন হচ্ছেনা।

তিনি বলেন, নীরব এলাকার জন্য দিনের বেলা ৫০ এবং রাতে ৪০ ডেসিবেল মাত্রা দেওয়া হয়েছে। শিল্প এলাকায় সর্বোচ্চ ৭০ এবং রাতে ৭৫ ডেসিবেল মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। কিন্তু বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, বাংলাদেশের কোথাও এই মাত্রা মেনে চলা হয় না। শব্দ সব জায়গায় এই মাত্রার চেয়ে বেশি পাওয়া যায়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে ৬০ ডেসিবেলের অধিক শব্দ যদি দীর্ঘ সময় থাকে তাহলে সাময়িক বধিরতা আর ১০০ ডেসিবেলের বেশি হলে স্থায়ী বধিরতা (Permament Deafness) হতে পারে। তবে শব্দদূষণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে শিশুরা। শব্দদূষণ তিন বছর বা তার কম বয়সী শিশুদের মানসিক বিকাশের অন্যতম অন্তরায়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102