August 5, 2021, 3:34 am
Title :
হিন্দু বাড়িতে হামলা, মারধর, পুলিশের হস্তক্ষেপে পালিয়ে থাকা পরিবার বাড়িতে প্রবাসী ফোরামের জন্মদিনে ব্লাড ডোনার ক্লাবকে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান ভাঙন কবলিত মানুষের মাঝে ইয়ামাহা রাইডার্স এর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সকালে ব্যক্তিগত গাড়ির লম্বা লাইন, দুপুরে ঘাটে মানুষের ভিড় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে লঞ্চে সকাল থেকেই মানুষের ভিড় গৃহকর্মীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা একা কারাগারে কারখানা খোলায় দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ঢল, যে যেভাবে পারছে সেভাবে ছুটছে পদ্মার ১৯ কেজির পাঙ্গাশ, বিক্রি হলো ২৬ হাজার ৬০০ টাকায় গোয়ালন্দে জুয়া খেলা অবস্থায় টাকাসহ ৬ জুয়াড়ি আটক, পলাতক দুই শ্রমিকদের যাতায়াতের সুবিদার্থে রাত থেকে চলবে লঞ্চ

দৌলতদিয়া যৌনপল্লিতে কিশোরী ও তরুনী বিক্রির অভিযোগে গ্রেপ্তার ২

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, জানুয়ারি ২৪, ২০২১
  • 13 Time View
শেয়ার করুনঃ

ষ্টাফ রিপোর্টার, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ দৌলতদিয়া যৌনপল্লিতে কিশোরী এবং তরুনী বিক্রির সাথে জড়িত সন্দেহে দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো রাজবাড়ী সদর উপজেলার ধুঞ্চি গ্রামের মৃত ইয়াদ আলী মন্ডলের ছেলে আমির হোসেন (৪৫) ও গোয়ালন্দের উত্তর দৌলতদিয়া নুরু চেয়ারম্যান পাড়ার আকবর আলী মন্ডলের ছেলে কবির হোসেন (৪২)।

গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শনিবার দিবাগত গভীররাতে যৌনপল্লি এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত ২০ জানুয়ারী গোয়ালন্দ ঘাট থানায় দায়েরকৃত মানব পাচার প্রতিরোধ ও দমন আইনে মামলায় (নং-১৮) গ্রেপ্তার দেখিয়ে গতকাল আদালতে প্রেরণ করেছে।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারী) রাতে দৌলতদিয়া যৌনপল্লিতে মামলার বাদীর ঘরে এক খরিদ্দার প্রবেশ করে। এসময় তার কাছে যৌনপল্লি থেকে উদ্ধারের আকুতি জানায়। ওই ব্যক্তি ৯৯৯ এ ফোন করে বিষয়টি অবগত করেন। ৯৯৯ থেকে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসিকে জানায়। ওসি তরুনীর সাথে ফোনে বিস্তারিত জানার পর রাত সাড়ে ১১টার দিকে পল্লিতে অভিযান চালায়। পল্লির নাজমা বেগমের বাড়ি থেকে ওই তরুনীকে উদ্ধার করে। একই সাথে পাশের কক্ষ থেকে কান্নার আওয়াজ পেয়ে পুলিশ আরো দুই কিশোরী উদ্ধার করে। তাদেরকে থানায় জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যমতো রাত আড়াইটার দিকে দ্বিতীয়দফা অভিযান চালিয়ে অন্ধকার কক্ষ থেকে আরো ১১জন কিশোরী উদ্ধার করে। তাদের দেখাশুনার দায়িত্বে থাকা নাজমার মেয়ে ঝর্না বেগম (২৫) ও বাড়ির তত্বাবধায়ক আনন্দ পালিয়ে যায়। পরদিন ২০ জানুয়ারী রাজবাড়ী পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ১৪ কিশোরী ও তরুনী উদ্ধারের বিষয়টি বিস্তারিত গনমাধ্যমের সামনে তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামান।

উদ্ধারকৃত কয়েকজন জানায়, তাদেরকে পারলারে, বাসা বাড়িতে কাজ দেওয়ার কথা বলে কয়েক মাস আগে যৌনল্লিতে বিক্রি করে। তাদেরকে অন্ধকার কক্ষে আটকে দিনে সাধারণ খাবারের পাশাপাশি মোটাতাজা করনের ওষুধ খাওয়ানো হতো। বাড়িওয়ালী ও তত্বাবধায়কের কথা মতো পতিতাবৃত্তিতে নামাতো। রাজি না হলে নির্যাতন করা হতো। কান্নার আওয়াজ যাতে কেউ শুনতে না পারে এজন্য উচ্চ শব্দে সাউন্ডবক্স বাজাতো। এমন নির্মম নির্যাতনের শিকার হতো সবাই। সবাই এ অন্ধকার জীবন থেকে উদ্ধার হয়ে নিজের পরিবারের কাছে ফিরে যেতে চায়।

এর আগে থানা পুলিশ গত বছর ১৬ নভেম্বর নাজমা বেগমের বাড়ি থেকে এক কিশোরী উদ্ধার করে। ওই ঘটনায় নাজমাকে গ্রেপ্তার করে মানব পাচার আইনের মামলায় জেলে পাঠায়। এখন পর্যন্ত নাজমা বেগম জেলেই রয়েছেন।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর বলেন, অন্ধকার কক্ষে আটকে জোরপূর্বক পতিতাবৃত্তি করানোর অভিযোগে ১৯ জানুয়ারী গভীররাতে দুই দফা অভিযানে ১৪ কিশোরী ও তরুনীকে উদ্ধার করা হয়েছে। এসময় নাজমার মেয়ে ও তত্বাবধায়ক পালিয়ে যাওয়ায় গ্রেপ্তার সম্ভব হয়নি। মানব পাচারের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে শনিবার গভীররাতে দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদেরকে ২০জানুয়ারী মানব পাচার মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102