August 4, 2021, 3:27 am
Title :
হিন্দু বাড়িতে হামলা, মারধর, পুলিশের হস্তক্ষেপে পালিয়ে থাকা পরিবার বাড়িতে প্রবাসী ফোরামের জন্মদিনে ব্লাড ডোনার ক্লাবকে অক্সিজেন সিলিন্ডার ও সুরক্ষা সামগ্রী প্রদান ভাঙন কবলিত মানুষের মাঝে ইয়ামাহা রাইডার্স এর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সকালে ব্যক্তিগত গাড়ির লম্বা লাইন, দুপুরে ঘাটে মানুষের ভিড় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে লঞ্চে সকাল থেকেই মানুষের ভিড় গৃহকর্মীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চিত্রনায়িকা একা কারাগারে কারখানা খোলায় দৌলতদিয়া ঘাটে মানুষের ঢল, যে যেভাবে পারছে সেভাবে ছুটছে পদ্মার ১৯ কেজির পাঙ্গাশ, বিক্রি হলো ২৬ হাজার ৬০০ টাকায় গোয়ালন্দে জুয়া খেলা অবস্থায় টাকাসহ ৬ জুয়াড়ি আটক, পলাতক দুই শ্রমিকদের যাতায়াতের সুবিদার্থে রাত থেকে চলবে লঞ্চ

যৌনপল্লির অন্ধকার কক্ষ থেকে ১৪ কিশোরী উদ্ধার করলো গোয়ালন্দঘাট থানা পুলিশ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, জানুয়ারি ২০, ২০২১
  • 20 Time View
শেয়ার করুনঃ

নিজস্ব প্রতিবেদক, গোয়ালন্দঃ ৯৯৯ এর একটি ফোন পেয়ে মঙ্গলবার দিবাগত মধ্যরাতে দুই দফায় রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া যৌনপল্লিতে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে অন্ধকার কক্ষ থেকে ১৪ কিশোরীকে উদ্ধার করেছে। বুধবার তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে নিরাপদ হেফাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামান এ তথ্য জানান।

উদ্ধার হওয়া জামালপুরের এক কিশোরী জানায়, দরিদ্র পরিবারের সন্তান বলে গত কোরবানীর ঈদের আগে চলে আসে ঢাকায়। পোশাক কারখানায় কাজের সন্ধান করতে থাকলে অজ্ঞাত এক ব্যক্তি ভালো চাকুরী দেবার কথা বলে যৌনপল্লির নাজমার কাছে মোটা অংঙ্কে বিক্রি করে দেয়। এরপর থেকে তার ওপরও চালানো হয় নির্যাতন।

প্রতিদিন খরিদ্দারদের মনোরঞ্জন করতে না পারলে বাড়িওয়ালী মারতো। জেলে যাওয়ায় বাড়ি দেখাশুনা করা দুই জন তাদের নির্যাতন করতে থাকে। প্রতিদিনের আয়ের টাকা নিয়ে যান তারা। তাদেরকে শুধুমাত্র পেটে ভাতে রাখা হয়। কোথাও যেতে চাইলে বের হতে দেয়না। পল্লিতে পুলিশ, সাংবাদিক ঢুকলে তাদেরকে একটি অন্ধকার কক্ষে আটকে রাখতো। এভাবে চলছিল গত চারটি মাস। সহ্য করতে না পেরে মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারী) রাতে এক খরিদ্দারের মুঠোফোন দিয়ে ৯৯৯ এ ফোন করে উদ্ধারের আকুতি জানায়। সেখান থেকে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশকে জানালে অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, ৯৯৯ এর ফোন পেয়ে যোগাযোগ করে মঙ্গলবার রাত বারোটার দিকে অভিযান চালিয়ে নাজমা বেগমের বাড়ি থেকে প্রথমে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। এরপর তার তথ্যমতে বাড়ি থেকে আরো দুই কিশোরী উদ্ধার করি। থানায় জিজ্ঞাসাবাদে লৌমহর্ষক ঘটনা জানতে পেরে রাত আড়াইটার দিকে দ্বিতীয় দফা অভিযান চালানো হয়। এসময় বাড়িতে বিশেষ কৌশলে তৈরী করা একটি অন্ধকার কক্ষ থেকে আরো ১১ কিশোরীকে উদ্ধার করি। অভিযানের খবর জানতে পেরে বাড়ির তত্বাবধায়কসহ দুইজন পালিয়ে যাওয়ায় গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়নি।

বুধবার (২০ জানুয়ারী) বেলা দুইটার দিকে রাজবাড়ী পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে কিশোরীদের উদ্ধারের তথ্য প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিস্তারিত তুলে ধরেন পুলিশ সুপার এমএম শাকিলুজ্জামান।

এসময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মো. সালাহ উদ্দিন, ডিআইওয়ান সাইদুর রহমান, রাজবাড়ী সদর থানার ওসি স্বপন কুমার মজুমদার, গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

পুলিশ সুপার বলেন, একত্রে ১৪ কিশোরী উদ্ধার পুলিশের একটি বড় সাফল্য। কিশোরীদের পাচারের পিছনে যত শক্তিশালী ব্যক্তি জড়িত থাকুক না কেন কাউকে ছাড় দেয়া হবেনা। এ বিষয়ে থানায় মানব পাচার আইনে মামলা হয়েছে। কিশোরীদের নিরাপদ হেফাজতে রাখা হবে। পরিবার চাইলে তাদের সেখান থেকে নিয়ে যাবেন। অপরাধীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করতে পুলিশ মাঠে কাজ করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102