October 23, 2021, 10:52 am
Title :
রাজবাড়ীতে চলন্ত ট্রেনে দুর্বৃত্তদের ছোড়া ঢিলে যুবক আহত দৌলতদিয়া যৌনপল্লির বাসিন্দাদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ গোয়ালন্দে চুরির ১০ দিন মটরসাইকেল উদ্ধার, তিন যুবক গ্রেপ্তার রাজবাড়ীতে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির মানববন্ধন ও সমাবেশ রাজবাড়ীতে হিন্দু মহাজোট ও ছাত্র মহাজোটের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ গোয়ালন্দে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের নিয়ে একেকে’র প্রশিক্ষন কর্মশালা দৌলতদিয়ায় ডিবির অভিযানে ২৫০ পিস ইয়াবা সহ গ্রেপ্তার ২ রাজবাড়ীতে নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ইলিশ শিকার করায় ১১ জেলের জেল গোয়ালন্দ উপজেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটি গঠন রাজবাড়ীতে ছাদ থেকে পড়ে রাজমিন্ত্রী নিহত

বাড়িতেই ইহলোক ত্যাগ করলেন গোয়ালন্দের চারণকবি গৌড় গোস্বামী

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ডিসেম্বর ১৮, ২০২০
  • 59 Time View
শেয়ার করুনঃ

জীবন চক্রবর্তী, গোয়ালন্দঃ রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার অসাম্প্রদায়িক চেতনার সুরস্রষ্টা, চারণকবি গৌড় গোস্বামী (৮২) আর নেই। গতকাল বৃহস্পতিবার গোয়ালন্দ পৌরসভার ক্ষুধিরাম সরকার পাড়ার নিজ বাড়িতে ইহলোক ত্যাগ করেন। সন্ধ্যার পর নিজ বাড়ির ওঠানে তাঁকে সমাধিস্থ করা হয়।

গৌড় কবি গোস্বামীকে সবাই গৌর সাধু হিসেবে চেনেন। পদাবলী সুর ও সঙ্গীতে গুরুপদে আসীন হওয়ায় স্থানীয়ভাবে তিনি গোস্বামী উপাধি লাভ করেন। তিনি নিজে অনেক গান রচনা করে সুর করে দর্শক স্রোতার মন জয় করেছেন। দীর্ঘদিন ধরে বার্ধক্য জনিত কারণে তিনি অসুস্থ্য হয়ে ঘরে পড়ে আছেন। অর্থের অভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না।

গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের ৩নম্বর ওয়ার্ড বিশম্ভ কবিরাজ পাড়ার কুঞ্জলাল রায় ও রঙ্গদেবী দম্পতির সন্তান তিনি। বর্তমানে তিনি গোয়ালন্দ বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায় কোন রকমে মাথা গোজার ঠাঁই করে নিয়েছেন। পরিবারের সাথে সেখানেই বাস করছেন। তাঁকে নিয়ে  ৪ নভেম্বর প্রথম আলো অন লাইনে “কবি গৌড় গোস্বামীর জীবন সংকটাপন্ন” শিরোনামে একটি সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

সম্প্রতি রাজবাড়ীমেইলে’র সাথে আলাপকালে গৌর সাধু জানান, প্রায় ৬০ বছর ধরে তিনি কীর্তন গান করছেন। পদাবলী ও অষ্টকালীন গান গেয়ে হাজারো দর্শকের মন জয় করেছেন। তাঁর সুদীর্ঘ জীবনে ৬ হাজার ৭৬৫ টি পালাগান নিজের কন্ঠে গেয়েছেন বলে জানান। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ভারতের শরনার্থীদের মাঝে দেশপ্রেম এবং সাহস জাগ্রত করতে বাহাদুরপুর কল্যাণী ক্যাম্পে গিয়ে গান রচনা করে নিজে কীর্তনীয়া দল গঠন করে শরনার্থীদের মনে শক্তি এবং সাহস যুগিয়েছিলেন। তাঁর রচিত গান গুলোর মধ্যে একটি “আয়রে তোরা বাংলা দেখতে যাই, রবি ঠাকুরের সোনার বাংলা জ্বলে পুড়ে হলো ছাই, আয়রে তোরা বাংলা দেখতে যাই” ওই সময় খুবই প্রচলিত ছিল। এমন অনেক গান গেয়ে ভীত এবং অসহায় শরনার্থীদের মনে প্রাণের সঞ্চার জাগিয়ে তুলতেন।

তাঁর বন্ধু চিত্তরঞ্জন দাস বলেন, গৌর সাধু পদাবলী কীর্তন করে এক সময় হাজারো মানুষের মন কেড়ে নিয়েছেন। তাঁর মধুর কন্ঠে ও সুরে ভক্তকুলের হৃদয়ে জাগাতেন পার্থিব জগতের পবিত্র ভাবনা। তাঁর জাদুর সুর ও ছন্দে ভারত, বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষের মন মাঝারে উন্মাদনার ঢেউ জাগিয়ে তুলতেন। তাঁর সুরের মূর্ছনায় আত্মহারা হয়ে যেত আসরের ভক্তবৃন্দের। অগণিত দর্শকের হৃদয় স্পর্শ করা এমন গুণী শিল্পী আজ যেন জীবনযুদ্ধে পরাজিত সৈনিক।

তাঁর স্ত্রীর পূর্ণিমা রানী রায় জানান, তিনি করোনার মধ্যেই হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। প্রথমে শরীরের জ্বর হয়, প্রাথমিক চিকিৎসায় জ্বর সেরে ওঠেনা। ধীরে ধীরে শরীর, পেট ফুলে যায়। পরবর্তীতে চেকাপে তাঁর লিভারে পানি জমেছে বলে চিকিৎসকরা জানায়। একমাত্র ছেলে গোবিন্দ রায় কাঠমিস্ত্রির কাজ করে যে সামান্য টাকা পান তা দিয়ে নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থা।

পূর্ণিমা রানী রায় আরো জানান, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তিনি বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়েন। তিনি দুপুরে পৌনে বারোটার দিকে ঘরে শুইয়ে থাকা অবস্থায় ইহলোক ত্যাগ করেন। পরে সন্ধ্যা ৬টার দিকে ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী বাড়ির ওঠানেই তাঁকে সমাধিস্থ করা হয়েছে। আজ থেকে ১১দিন ব্যাপী ধর্মীয় অন্যান্য কাজ সম্পন্ন করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Rajbarimail
Developed by POS Digital
themesba-lates1749691102